channel 24

সর্বশেষ

  • সুইস ব্যাংকে পাচার হওয়া অর্থ ফেরাতে সম্মিলিত কর্মপরিকল্পনা চায় দুদক

  • চট্টগ্রাম বন্দরে কম রাজস্ব আদায়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর ক্ষোভ

  • ৩০ মার্চ খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: শিক্ষামন্ত্রী

  • নির্বাচনি পরিবেশ নষ্টের জন্য দায়ী বিদ্রোহী প্রার্থীরা: ইসি শাহাদাত

  • মিয়ানমারে পুলিশের গুলিতে গণতন্ত্রপন্থী এক নারী নিহত

  • লেখক মুশতাকের মৃত্যু: সুষ্ঠ তদন্তের দাবিতে রাজধানীতে আজও বিক্ষোভ

  • চরমোনাই ওয়াজ মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুটি ট্রলার ডুবি

  • চুয়াডাঙ্গায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

  • ধানমন্ডিতে নিহত মৌমিতার শরীরে ধর্ষণের আলামত মেলেনি

  • খুলনায় পুলিশি বাধার মুখেই চলছে বিএনপির সমাবেশ

  • ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব সরকারের

  • নাইজেরিয়ায় গর্ভবতী নারীদের হাসপাতালে নিতে অর্থ জমিয়ে কিনেছেন হাইফোআলাফিয়া

  • বাংলাদেশকে উন্নয়নশীলের তালিকায় নিতে জাতিসংঘের সুপারিশ

  • দুই দশক পর আরিচা-কাজিরহাট রুটে ফেরি চলাচল শুরু

  • নিউজিল্যান্ডে তৃতীয় দিনের মতো কোয়ারেন্টিনে বাংলাদেশ দল

আর্মেনিয়ার ২ হাজার ৩০০ সেনা হতাহতের দাবি আজারবাইজানের

আর্মেনিয়ার ২ হাজার ৩০০ সেনা হতাহতের দাবি আজারবাইজানের

বিরোধপূর্ণ নাগেরনো-কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের সেনাদের লড়াইয়ে আর্মেনিয়ার ২ হাজার ৩০০ সেনা হতাহতের দাবি করেছে আজারবাইজান।

আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ২৭ সেপ্টেম্বরের পর থেকে এ পর্যন্ত তাদের পাল্টা অভিযানে ২ হাজার ৩০০ আর্মেনীয় সেনা আহত এবং নিহত হয়েছে।

অভিযানে, ১৩০টি ট্যাংক এবং সাজোয়াযান, ২শ'র বেশি আর্টিলারি এবং মিসাইল সিস্টেম, আনুমানিক ২৫টি আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, ৬টি কমান্ড এবং পর্যবেক্ষণ এলাকা, ৫টি গোলাবারুদ মজুদঘর, ৫০টি ট্যাংক বিধ্বংসী বন্দুক এবং ৫৫টি সামরিক গাড়ি ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছে আজারবাইজানের সামরিক বাহিনী।

আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনী এবং তাদের সামরিক অস্ত্র ধ্বংসের পাশাপাশি ওই এলাকা থেকে দখলদারদের হটাতে পাল্টা হামলা অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনী আজারবাইজানের সামরিক স্থাপনা এবং নাগরিকদের বসতিতে হামলা চালায়। এতে বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয় বাকুর। পরে পাল্টা হামলা চালায় আজারবাইজান।

১৯৮০ দশকের শেষের দিকে কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৯১ সালে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মুহূর্তে সংঘর্ষ চূড়ান্ত আকার ধারণ করে। ১৯৯৪ সালে দু'পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত এ সংঘর্ষে ৩০ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। কারাবাখ অঞ্চলটি আজারবাইজানের ভেতরে হলেও আর্মেনিয়া সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে তা নিয়ন্ত্রণ করছে জাতিগত আর্মেনীয়রা। ২০১৬ সালের পর এবারই প্রথম এই অঞ্চলে বড় ধরনের সংঘাতের জড়িয়ে পড়েছে আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর