channel 24

সর্বশেষ

  • বাংলাদেশের কোয়ারেন্টিন ইস্যুতে এখনো ধোঁয়াশায় লঙ্কান ক্রিকেট

  • 'ব্যক্তি নয়, টিম হিসেবেই চলছে ফেডারেশন'

  • প্রচারণায় সরগরম বাফুফে নির্বাচন

  • এবার ১৪ বছর কনডেম সেলে থাকা আসামিকে খালাস

  • করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বই আকারে সংরক্ষণ

  • অর্থনীতি সচল রেখে করোনার দ্বিতীয় ওয়েভ মোকাবিলা করা হবে

  • তরুণীর করা মামলায় নুরের বিরূদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • কুড়িগ্রামে কাঠমিস্ত্রি হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

  • এবার স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের স্ত্রী-সন্তানের সম্পদের খোঁজে দুদক

  • উচ্চ পুষ্টিমান ও ঔষধি গুণসম্পন্ন মাশরুম

  • চট্টগ্রামে করোনায় নতুন করে আক্রান্ত ৫৬

  • মাঝারি বর্ষণ পানিবন্দী চট্টগ্রামের বেশ কিছু এলাকা

  • চট্টগ্রাম বন্দরে কম্পিউটার অপারেটর পদে কোটা না মানার অভিযোগ

  • নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ-ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার প্রতিবেদন ১৩ অক্টোবর

  • চট্টগ্রামে দোকান কর্মচারীকে পিটিয়ে হত্যায় মামলা দায়ের, আটক ২

আঞ্চলিক কূটনীতির হালচাল নিয়ে আলাপচারিতায় ভারতের শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক

আঞ্চলিক কূটনীতির হালচাল নিয়ে আলাপচারিতায় ভারতের শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক

নতুন মানচিত্র ঘোষণাই বলে দেয়, সীমান্তে সন্ত্রাসবাদের প্রতি পাকিস্তানের মোহ। সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে চ্যানেল 24-কে এ কথা বলেন, ভারতের শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক। আলাপচারিতায় আরও ছিলো চীন-যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক মতাদর্শের ইস্যুও।

র্দীঘদিনের অমিমাংসিত জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে ইমরান খানের নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশ। অন্যদিকে কে হবে এশিয়ার এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক মোড়ল, চীন নাকি ভারত! এমন এক দোলাচলে ভারত। এমন বাস্তবতায় কীভাবে দেখছে পাকিস্তানের রাজনৈতিক মানচিত্র, এমন প্রশ্নে দিল্লীর শীর্ষস্থানীয় এক কূটনীতিক চ্যানেল 24-কে বলেন, সীমান্তে সন্ত্রাসবাদকে উস্কে দেবার মোহে এমন কাজ করেছে পাকিস্তান।

তিনি বলেন, আমরা দেখেছি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তথাকথিত একটি রাজনৈতিক মানচিত্রের ঘোষণা দিয়েছেন, এর কোনো যৌক্তিকতা নেই। ভারতশাসিত কাশ্মীর, গুজরাটের জুনাগড়, লাদাখসহ যেই অঞ্চল তার মানচিত্রের অংশ দাবিগুলো হাস্যকর, এর কোন আন্তর্জাতিক বৈধতা নেই, নেই গ্রহণযোগ্যতাও। প্রকৃতপক্ষে এমন মানচিত্রের ঘোষণা কেবল সীমান্তে সন্ত্রাসবাদের প্রতি পাকিস্তানের মোহ।

অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জমিতে রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে আঞ্চলিকভাবে ধর্মীয় অস্থিরতা তৈরী শঙ্কা আছে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে শ্রিংলা জানান, এই রায় সব ধর্মাবলম্বীদের মধ্যকার পারস্পরিক শ্রদ্ধাশীল মনোভাবের প্রকাশ।

তিনি আরও বলেন, পরিণত গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে ভারত সরকার ও জনগণ আদালতের রায় মেনে নিয়েছে এবং আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। এ রায় গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে ভারতকে পথ দেখিয়েছে। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী রাম মন্দিরের নির্মাণ কাজ দেখভালের জন্য সরকার একটি ট্রাস্ট গঠন করেছে। মসজিদ নির্মানে ৫ একর জমিও দিয়েছে। এই রায় ভারতের সব শ্রেণী পেশার মানুষ স্বাগত জানিয়েছে।

সম্প্রতি ভারত ও চীনের সর্ম্পকের উত্তেজনা আর যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল ঘিরে বানিজ্যের উদ্যোগের মাঝে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থানকে কিভাবে দেখেন? শ্রিংলার জবাব, যুক্তরাষ্ট্রের এই উদ্যোগ সবার জন্য উন্মুক্ত, যার মূল উদ্দেশ্য যোগাযোগ এবং উন্নয়ন। আর বাংলাদেশ চাইলে চীনের বেল্ট রোড ইনিশিয়েটিভেও যোগদানের বিষয়টি বিবেচনা নিতে পারে।

তবে স্পর্শকাতর এই মুহূর্তে আন্তর্জাতিক সর্ম্পকের বিশ্লেষকরা বলছেন, গভীরভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে। শনিবার মেহেরপুরে মুজিবনগর পরিদর্শন শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের রক্তের সম্পর্ক আর চীনের সাথে অর্থনৈতিক। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাফ কথা বাংলাদেশ কোনো বলয়ের অংশ হতে চায় না।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর