channel 24

সর্বশেষ

  • ওসি প্রদীপের ফোনালাপের পরামর্শদাতা সাবেক এসপি আল্লাহ বকশ

  • সিনহা হত্যা: জামিন মিললো সিফাতের

  • কিংবদন্তি সুরকার ও গীতিকার আলাউদ্দিন আলীর দাফন আজ

  • নকল ওষুধ প্রস্তুত ও বাজারজাতে লাকসামে দুটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

  • সাতক্ষীরায় ট্রাক চাপায় স্বাস্থ্য বিভাগের দুই কর্মী নিহত

  • প্রথমবারের মতো পুঁজিবাজারে সাড়ে চার ঘণ্টা লেনদেন

  • সিনহা হত্যা মামলায় সব ধরনের নথি-আলমত খতিয়ে দেখছে র‍্যাব

  • ক্রিকেট ও ফুটবলের পর শুরু হলো হকির কার্যক্রম

  • মাঠের লড়াইয়ে ফিরতে মরিয়া সাব্বির

  • কাল আবারো ফুটবলারদের ভিন্ন দুই প্রতিষ্ঠানে করোনা পরীক্ষা

  • একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শুরু, ইন্টারনেটের ধীরগতিতে দুর্ভোগ

  • ত্রাণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বদরগঞ্জে পৌর মেয়র বিরুদ্ধে মানববন্ধন

  • বিক্ষোভে টালমাটাল লেবানন, ভাঙনের মুখে ইসলামপন্থী ও খ্রিষ্টান জোট সরকার

  • যশোরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন

  • চাঁদপুরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি

হজ বাতিল হওয়ার যত নজির

হজ বাতিল হওয়ার যত নজির

কখনও কি হজ বাতিলের মতো কোনো ঘটনা ঘটেছিল? সেটি হলে কেন হয়েছিল? ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায়, ভয়ংকর রোগ-বালাই, মহামারি, যুদ্ধ-বিগ্রহ আর ক্ষমতার দ্বন্দ্বে অন্তত ১৮ বার হজ পালন করতে পারেননি মুসলমানরা। যার সবশেষ নজির ১৮৫৮ সালে।

হজ ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম। তবে, শুধু সামর্থবানদের জন্যই এটি ফরজ। যা ফরজ হয় ৯ম হিজরিতে।

তবে, অনেক আগে থেকেই হজ পালন করতেন বিভিন্ন নবী-রাসুলের অনুসারীরা। যার ইতিহাস অন্তত সাড়ে চার হাজার বছরের। কিন্তু, এই সময়ে যুদ্ধ-বিগ্রহ, মহাহারিসহ নানা কারণে বেশ কয়েক দফায় হজই করতে পারেননি মুসলমানরা।

ঐতিহাসিকরা বলছেন, ৮৬৫ খ্রিষ্টাব্দে আব্বাসীয় আমলে, ঈসমাইল বিন ইউসুফের মক্কা আক্রমণকালে হজ বাতিলের প্রথম নজির স্থাপিত হয়। ৯৩০ সালে কট্টর শিয়াদের হামলায় নিহত হন ৩০ হাজার হাজি। এ ঘটনায় ওই বছরের হজ স্থগিত হয়। ইরাক ও সিরিয়া ভিত্তিক আব্বাসীয় খিলাফত ও মিসর ভিত্তিক ফাতেমীয় খিলাফতের মধ্যকার দ্বন্দ্বের কারণেও ৯৮৩ থেকে ৯৯০ সাল পর্যন্ত সাত বছর হজ পালিত হয়নি।

মধ্যযুগে ভয়াবহ আকার ধারণ করা 'ব্ল্যাক ডেথ' খ্যাত মহামারি প্লেগ উনিশ শতকের শুরুর দিকেও হানা দেয় বাগদাদসহ বিভিন্ন অঞ্চলে। এতে ১৮১৪ ও ১৮৩১ সালে দুবার হজ স্থগিত করা হয়। আর প্লেগ ও কলেরার কারণে ১৮৩৭ থেকে ১৮৫৮ সাল পর্যন্ত ২১ বছরে ৭ বার বন্ধ থাকে পবিত্র হজ।

একুশে শতকে সার্স, মার্স ও ইবোলা সংক্রমণ ভয়ংকর আকার ধারণ করলেও; স্বাভাবিক নিয়মেই সারাবিশ্বের মুসলমানরা যোগ দেন হজে। এ সময় হাজিদের সুরক্ষায় নানা ব্যবস্থা নেয় সৌদি আরব।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর