channel 24

সর্বশেষ

  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভূমি অফিসের দুর্নীতিতে অতিষ্ঠ সেবা গ্রহিতারা

  • মৌলভীবাজারে অবৈধ মজুদকৃত ৭০ টন পলিথিন জব্দ

  • কুষ্টিয়ায় শতকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত বাঁধেও থামানো যাচ্ছে না নদীভাঙন

  • মহাখালীতে হচ্ছে ১০০০ শয্যার আইসোলেশন সেন্টার

  • সরকারি চাকরি যেন আলাদিনের চেরাগ

  • গাইবান্ধায় ১৭৪ বস্তা সরকারি চালসহ আটক ২

  • ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের দাফন সম্পন্ন

  • দেশে করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবি গ্লোব বায়োটেকের

  • এন 95 মাস্ক সরবরাহে দুর্নীতি, ৫ জনকে দুদকে তলব

  • শতবর্ষে পদার্পণের দিনে বিশ্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ফেরানোর আশা

  • শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে জমি দিয়ে ৫ বছরেও ক্ষতিপূরণ পায়নি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশীদ

  • 'হলি আর্টিজান হামলার পর হাজারের বেশি জঙ্গি আইনের আওতায়'

  • বিদায় বিজনেস টাইকুন লতিফুর রহমান

  • কলা গাছের পানামা রোগ দমনের কৌশল

  • বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মাশরুম চাষ

বিশ্বের প্রভাবশালী দেশের শীর্ষ নেতারা মাস্ক পরতে চান না

বিশ্বের প্রভাবশালী দেশের শীর্ষ নেতারা মাস্ক পরতে চান না

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে মানুষকে মাস্ক পরার পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্বের প্রায় সব দেশের সরকার। তবে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়াসহ বিশ্বের প্রভাবশালী কয়েকটি দেশের শীর্ষ নেতারা ধার ধারছেন না মাস্ক পরার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বে যখন করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়ছে, তখন তাদের এমন খামখেয়ালি আচরণ সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করতে পারে।

নিয়ম না মানাই যেন নিয়মে পরিণত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে যখন আশপাশের সবাই মাস্ক পরছেন, নিজে তা একদমই মানতে নারাজ।  বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বরাবরই বিরক্ত তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমার মাস্ক পরার দরকার নেই। অফিসের সবারই করোনা পরীক্ষা করা। আমিও করিয়েছি। মাস্ক পরার কি দরকার?

কম যান না মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সও। জর্জিয়ার একটি ক্যাফেতে মাস্ক না পরে দলবল নিয়ে হাজির হয়ে, হয়েছেন সমালোচিত।

লকডাউন বিধিভাঙার আরেক বড় নাম ডমিনিক কামিংস। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের এই উপদেষ্টা, করোনা লক্ষণ নিয়ে পরিবারের সাথে পাড়ি দিয়েছেন কয়েকশো কিলোমিটার পথ। দেশজুড়ে তীব্র সমালোচনার মুখে তিনিও সাফাই গেয়েছেন নিজের পক্ষেই।

বরিস জনসনের উপদেষ্টা ডমিনিক কামিংস বলেন, আমি করোনার দিকনির্দেশনা ভালোভাবেই জানি। পরিবারের সাথে ড্রাইভিংয়ে গিয়ে কোনো ভুল করেছি বলে মনে করি না।

আরেক বিশ্বনেতা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। করোনা শুরুর প্রথম থেকেই মাস্ক পরতে দেখা যায়নি তাকে। হাসপাতাল পরিদর্শন থেকে শুরু করে জরুরি বৈঠক সবখানেই হাজির হন কোন ধরণের মাস্ক ছাড়াই।

মাস্ক না পরে সমালোচিত হওয়ার পর, ক্ষমা চেয়েছেন স্কটল্যান্ডের প্রধান মেডিক্যাল অফিসার।

স্কটল্যান্ডের প্রধান মেডিক্যাল অফিসার ক্যাথরিন ক্যালডারউড বলেন, দেশের মানুষের অভিযোগ আমি নিজে দিকনির্দেশনা তৈরি করে তা পালন করিনি। তাদের সমালোচনাকে আমি সম্মান করি। যা করেছি তা ভুল। আমি দুঃখিত। এরকম আর হবে না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বে যখন করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়ছে, তখন দেশগুলোর শীর্ষ অবস্থানে থাকা ব্যক্তিদের আরও সচেতন হওয়া উচিত। তাদের এমন খামখেয়ালি আচরণ সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর