channel 24

সর্বশেষ

  • শিবচরে লকডাউনের ১০ দিনে নতুন সংক্রমিত না হওয়ায় জনমনে স্বস্তি

  • ঠাকুরগাঁওয়ে একই পরিবারের ৫ জন আইসোলেশনে

  • বরিশাল মেডিকেলে করোনা ইউনিটে থাকা একজনের মৃত্যু

  • দেশে করোনা মোকাবিলায় নেই পর্যাপ্ত অবকাঠামো সুবিধা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • ইতালিতে প্রাণহানি ছাড়ালো ১০ হাজার, সংক্রমণের শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

  • করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই

  • রাস্তায় পড়ে থাকা ফিনল্যান্ডের নাগরিককে হাসপাতালে নিলো পুলিশ

  • করোনায় শুধু মানুষই নয় বিপাকে পশু-পাখিও

  • বিশ্বজুড়ে ৩০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি

  • পর্যটকদের স্বর্গরাজ্যগুলো আজ জনমানবহীন

  • ক্রমেই অসহায় হয়ে উঠছে বিশ্ব

  • স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম দিলো স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

  • আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল তৈরিতে জনতার ক্ষোভ

  • জনগণকে সচেতন হবার আহ্বান জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ

  • শৈশব থেকেই বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী ছিলেন বঙ্গবন্ধু

দিল্লিতে গুজরাটের ছায়া; শিশু ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাসহ প্রাণ গেছে ২৩ জনের

দিল্লিতে গুজরাটের ছায়া; শিশু ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাসহ প্রাণ গেছে ২৩ জনের

ভারতের দিল্লিতে যেন গুজরাট দাঙ্গার ছায়া। টানা তিনদিনের সহিংসতায় শিশু ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাসহ প্রাণ গেছে অন্তত ২৩ জনের। এতে আবারও সেনা মোতায়েনের দাবি তুলেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

হিংসার আগুনে জ্বলছে ভারতের রাজধানী। নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভ ঘিরে দুপক্ষের সংঘর্ষ রূপ নিয়েছে ভয়াবহ।

সংঘাত নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায়, মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবন ঘেরাও করেন জেএনইউ ও জামিয়া মিলিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। দিনভর দফায় দফায় চলে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া।

দুদিনে সংঘাতে বেড়েই চলছে প্রাণহানি। বুধবার চান্দবাদ থেকে এক গোয়েন্দা কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মারা গেছে এক শিশুও।

দিল্লি পরিস্থিতি নিয়ে নড়েচড়ে বসেছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কয়েকদফা বৈঠক করেছেন কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। জাফরাবাদ, মৌজপুর ও গোকুলপুর পরিদর্শন করেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল।

বিষয়টি গড়িয়েছে সর্বোচ্চ আদালতেও। সুপ্রিম কোর্টের মন্তব্য, সংঘাত নিয়ন্ত্রণে দিল্লি পুলিশের পেশাদারিত্বের অভাব ছিল। বিক্ষোভকারীদের শাহীনবাগ থেকে সরিয়ে দেয়ার আর্জি মার্চ পর্যন্ত মুলতবি রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। রাজনৈতিক দলগুলোকে উত্তেজনা না ছড়ানোর নির্দেশও দেন দেশটির সর্বোচ্চ আদালত।

দিল্লি হাইকোর্ট বলছেন, ১৯৮৪ সালের পরিস্থিতি আর হতে দেয়া যাবে না।

বিষয়টি নিয়ে উত্তপ্ত ভারতের রাজনীতিও। কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর পদত্যাগ দাবি করেছেন কংগ্রেস। 

কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী বলেন, 'দিল্লি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুরোপুরি ব্যর্থ কেন্দ্র ও দিল্লি সরকার। বিজেপি নেতাদের উসকানিমূলক কথাবার্তার জন্যই এ সংঘাত ছড়িয়েছে। অমিত শাহর পদত্যাগ করা উচিত।'

কংগ্রেস নেতা নওয়াব মালিক বলেন, 'পুলিশের চোখের সামনে রাজধানীতে কীভাবে এমন তাণ্ডব চলে? হামলার ধরণ অনেকটা ২০০২ সালের গুজরাট মডেল। মনে হচ্ছে, অমিত শাহই নিরাপত্তা বাহিনীকে ব্যবস্থা নিতে নিষেধ করেছেন।'

বুধবার বিভিন্ন এলাকায় টহলে নামে নিরাপত্তা বাহিনী।

দিল্লি পুলিশ প্রধান আমুলয়া পাটনায়েক বলেন, 'পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শান্তি কমিটির বৈঠক হচ্ছে। দিল্লির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক।'

দিল্লিতে শান্তি বজায় রাখার আহবান জানিয়ে টুইট করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ভুক্তভোগী ও বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয় সাধনে, অ্যাডভোকেট জোবেদা বেগমকে এমিকাস কিউরি নিযুক্ত করেছেন দিল্লি হাইকোর্ট।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর