channel 24

সর্বশেষ

  • সাবমেরিন পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ায় ইন্টারনেটে ধীরগতি

  • 'নেক ক্যাচেস এন্ড থ্রো'তে এখন বিশ্বসেরা ঝালকাঠির আশিক

  • সীমান্তে সন্ত্রাসবাদের মোহেই পাকিস্তানের নতুন মানচিত্র: ভারতের পররাষ্ট্র সচিব

  • ৫ ভেন্যুতে চলছে ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত অনুশীলন

  • সিনহা হত্যা: খুব কাছ থেকে ৪টি গুলি করায় ক্ষত সৃষ্টি হয় ৬টি

  • কুষ্টিয়ায় স্বেচ্ছাশ্রমে ভাঙা সড়ক মেরামত করলেন শিক্ষার্থীরা

  • করোনায় দেশে আরও ৩৪ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৪৮৭

  • ওসি প্রদীপ ও স্ত্রীর অবৈধ সম্পদের প্রমাণ দুদকে

  • রাজনৈতিক পরিচয় কোন অপরাধীর আত্মরক্ষার ঢাল হতে পারে না: কাদের

  • শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের কাজে বিলম্ব হবে না: বিমান প্রতিমন্ত্রী

  • ডিএনসিসির মার্কেটটি স্থায়ী হাসপাতাল করার পরিকল্পনা নিয়েছে সিটি করপোরেশন

  • সিনহা হত্যার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য স্বাধীন কমিশন গঠনের আহ্বান ডা. জাফরুল্লাহর

  • এবারের ঈদযাত্রায় ২৩৮ দুর্ঘটনায় নিহত ৩১৭, আহত ৩৭০

  • জুবায়ের মনিরের জামিন বাতিল

  • পারিবারিক দ্বন্দ্বেই খুন আবাসন ব্যবসায়ী আবুল খায়ের; স্ত্রীর বড় ভাইয়ের স্বীকারোক্তি

করোনাভাইরাস: চীনে আটকা পড়া ১৯৮ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর দেশে ফেরার আকুতি

 করোনাভাইরাস: চীনে আটকা পড়া ১৯৮ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর দেশে ফেরার আকুতি

চীনে করোনা ভাইরাসে, আরও ৯৮ জন মারা গেছেন। এই নিয়ে মৃত্যের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে, এক হাজার ৮৬৮ জনে। আক্রান্ত ৭৮ হাজারের মধ্যে ৩ হাজার ১৯ জন স্বাস্থ্যকর্মী। তবে বয়স্করাই বেশি ঝুঁকিতে; মৃতের হার বেশি ৮০ উর্ধ্বদের। শিশু থেকে ৯ বছর পর্যন্ত মৃতের রেকর্ড নেই। এসব তথ্য উঠে এসেছে, দেশটির রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র সিসিডিসির নতুন গবেষণা প্রতিবেদনে।

উহান ইউনিয়ন হাসপাতাল থেকে সোমবার সুস্থ্ হয়ে ঘরে ফিরেছেন অন্তত ২৭৬ জন। এর মধ্যে আছেন ৯০ বছরের বৃদ্ধও। উহান ছাড়াও চীনের অনেক শহরে বাড়ছে রোগমুক্তি। পুরো চীনে সোমবার ছাড়া পান ১৭শ' ১ জন।

করোনা ভাইরাস থেকে সুস্থ হওয়া একজন বলেন 'পরিস্থিতি যখন খারাপ ছিলো, ভেবেছিলাম হয়ত মারাই যাবো। ডাক্তার আশ্বাস দিয়েছিলেন, নার্সরা হাত বাড়িয়ে দেন। এরপর দিন দিন পরিস্থিতি উন্নতি হয়।

আরেকজন বলেন, 'আমি এখন অনেকটাই ভালো বোধ করছি। বিরতিহীনভাবে আমি এখন ৫তলা পর্যন্ত উঠতে পারি।'

সোমবার মারা গেছেন উহান উচং হাসপাতালের পরিচালক লিউ ঝিমিং। উহানসহ চীনজুড়ে আক্রান্তের হার কিছুটা কমলেও, ঝুঁকির তালিকায় চিকিৎসাকর্মীরা। এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১৯ জন স্বাস্থ্যকর্মী সংক্রমিত হয়েছেন। আক্রান্তের ৮০ শতাংশের অসুখ সামান্য। বয়স্করাই বেশি ঝুঁকিতে; মৃতের হার বেশি ৮০ বা তার চেয়ে বেশি বয়সীদের। শিশু থেকে ৯ বছর পর্যন্ত মৃতের রেকর্ড নেই। ৩৯ উর্ধ্ব বয়সীদের মৃতের হার দুই দশমিক ৩ শতাংশ।

চীনের রিপোর্ট বলছে, এখনও ঝুঁকির তালিকায় বেশিরভাগ শহর। বিশেষ করে চীনের আশপাশের দেশগুলোতেও ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব ছড়াতে পারে।

আতঙ্ক তাড়া করছে হুবেই প্রদেশে অনেকটা অবরুদ্ধ বাংলাদেশিদের। জিংমেন সিটির বাংলাদেশি শিক্ষার্থী চ্যানেল 24-কে জানান, তাদের নিরাপত্তাহীনতার কথা। তারা জানান, দেশে ফেরার আকুতি।

চীনের অধ্যায়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থী বিন্তি বলেন, 'মৃত্যুর হার হু হু করে বেড়ে যাচ্ছে। মানুষ বের হতে পারছে না ভয়ে। বাবা-মা তার সন্তানের কাছে যেতে পারছে না। আমরা আটকা পড়া আছি। বের হতে পারছি না। এখন আমরা দেশে ফিরত যেতে চাচ্ছি।'

আরেক চীনের অধ্যায়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থী টুম্পা বলেন, 'কবে যে এই ভাইরাস আমাদের মধ্যে চলে আসবে আমরা জানি না। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশেই আমাদের হাসপাতাল। আমরা একটা ভাল জায়গা চাই। আমাদের সরকারের কাছে আকুল আবেদন, আমরা যে ১৯৮ জন শিক্ষার্থী হুবেই প্রদেশে আটকা আছি তাদের জন্য একটা ব্যবস্থা করতে।'

এদিকে জাপানে নোঙর করা প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসে আরও ৯৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জাহাজটির ৫৫৪ জনের শরীরে মিললো ভাইরাসটি। নিজ নিজ নাগরিকদের ফেরাতে বিমান পাঠাচ্ছে কানাডা, অস্ট্রেলিয়া এবং হংকং।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর