channel 24

সর্বশেষ

  • স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজির গাড়ি চালক শত কোটি টাকার মালিক

  • দীর্ঘ বিরতির পর দলগত অনুশীলনে টিম বাংলাদেশ

  • কুমিল্লায় ভুয়া মেজর পরিচয় প্রদানকারী এক প্রতারক গ্রেপ্তার

  • ভোলায় ১০ মিনিটের টর্নেডোর আঘাতে লণ্ডভণ্ড শতাধিক ঘরবাড়ি

  • সৌদি এয়ারলাইন্সের টিকিট কিনতে ভিড়-ভোগান্তি

  • সিআরআই'র ম্যাগাজিন 'হোয়াইট বোর্ড' এর উদ্বোধন

  • মহিষ চুরির অভিযোগে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রের বয়স ১৯ দেখিয়ে মামলা!

  • স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজির গাড়ি চালকের ঢাকায় ২৪টি ফ্ল্যাট, ৩টি বাড়ি

  • টেকনাফে ৫ লাখ ইয়াবা জব্দ, রোহিঙ্গাসহ আটক ৭

  • মসজিদে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার অভিযোগে আটক মিস্ত্রী ২ দিনের রিমান্ডে

  • কোয়ারেন্টিনে টিম বাংলাদেশ

  • ভারত থেকে আসা বেশিরভাগ পেঁয়াজই নষ্ট

  • চালের কুড়ার তেলের উপকারিতা

  • পেঁয়াজের বিকল্প হিসাবে পাতা পেঁয়াজের ব্যবহার

  • চাঁদপুরে পাটাপুতা নিয়ে দ্বন্দে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ সংগঠিত করেছে নিরাপত্তা বাহিনী: আইসিওই’র চূড়ান্ত প্রতিবেদন

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ সংগঠিত করেছে নিরাপত্তা বাহিনী: আইসিওই’র চূড়ান্ত প্রতিবেদন

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে ৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে মিয়ানমারের রাখাইনে মুসলিমদের (রোহিঙ্গা) বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ, মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং অভ্যন্তরীন আইন লঙ্ঘন হয়েছে। তবে মুসলিমদের বিরুদ্ধে জেনোসাইড হয়েছে এমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

মিয়ানমার সরকার গঠিত স্বাধীন তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন তথ্য। আজ সোমবার (২০ জানুয়ারি) এই কমিশন মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট ইউ উইন মিন্ট এবং স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচির কাছে তাদেও চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়।

মিয়ানমারের রাখাইনে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন অপরাধের তদন্তের জন্য দেশটি ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই এই স্বাধীন তদন্ত কমিশন গঠন করে। এই কমিশন চার সদস্য বিশিষ্ট। কমিটির সদস্যরা হলেন- ফিলিপাইনের সাবেক ডেপুটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোজারিও মানালো, যিনি এই কমিশনের চেয়ারপারসন। অন্য সদস্যরা হলেন- মিয়ানমারের সংবিধান ট্রাইব্যুনালের সাবেক প্রধান ইউ মায়া থেইন, জাতিসংঘে জাপানের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি কেনজো ওশিমা, ইউনিসেফ’র সাবেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা অং তুন থেট।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি মিয়ানমারের রাখাইনের বেশ কয়েকটি পুলিশ আউটপোস্ট এবং মিলিটারি স্থাপনায় হামলা চালায়। এরই প্রেক্ষিতে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী অভিযান পরিচালনা করে। ফলে মুসলিমদেরর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ, মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং অভ্যন্তরীন আইন লঙ্ঘন হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এটা বিশ্বাস করার যথেষ্ট কারণ আছে এইসব অপরাধের সাথে নিরাপত্ত বাহিনীর সদস্যরা জড়িত। এয়াড়া নিরাপরাধ গ্রামবাসীদেও হত্যা এবং তাদেও ঘরবাড়ি ধ্বংস করার সাথেও তারা জড়িত। তবে এনসব অপরাধের সাথে জেনোসাইডের কোন সম্পর্ক নাই। এছাড়া এইসব অপরাধের মাধ্যমে এটি গোষ্ঠীকে নির্মূল করার কোন উদ্দেশ্য বা পরিকল্পনার কোন প্রমাণ নেই বলেও প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে রাখাইনের মুসলিম, রাখাইন, স্থানীয় এবং সেনাবাহিনী ও পুলিশ সদস্যসহ ১৫০০ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে।

২৩ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক বিচার আদালত রোহিঙ্গা জেনোসাইড নিয়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার মামলার বিষয়ে আদেশ দেবেন। এর আগে এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলো।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর