channel 24

সর্বশেষ

  • বিড়াল উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস!

  • মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে সুপ্রিমকোর্টে ক্ষণ গণনার ঘড়ি উদ্বোধন

  • করোনা ভাইরাস: শাহজালাল বিমানবন্দরে বসানো হয়েছে স্ক্যানিং মেশিন

  • শেষ হল নারী ফুটবল লিগের দলবদল

  • নড়াইলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই

  • মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে তিনদিন ধরে সার্ভারে সমস্যা

  • এক নারীকে নির্যাতনের পর পিকআপ থেকে ফেলে দেয়ার অভিযোগ

  • মিথ্যা ঘোষণায় আনা ১ কন্টেইনার সিগারেট জব্দ

  • বাংলাদেশকে অন্ধকার থেকে আলোতে এনেছে আ.লীগ: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • কলেজছাত্রী হত্যা মামলায় প্রভাষকের মৃত্যুদণ্ড, এডভোকেটের যাবজ্জীবন

  • তেঁতুলিয়ায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ১, আহত অর্ধশতাধিক

  • হামলা-মামলার বিষয়ে কূটনীতিকদের অবহিত করলো বিএনপি

  • নিখুঁতভাবে কৃষিকাজ করছে রোবট

  • ইলিশের পুষ্টিগুণ, ডিমছাড়া নাকি ডিমওয়ালা ইলিশটি বেশি স্বাদের?

  • মাছকে খাবার দিবে যন্ত্র! দেশেও শুরু হয়েছে এই প্রযুক্তি

তুমুল বিরোধিতার পর ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব বিল পাশ

তুমুল বিরোধিতার পর ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব বিল পাশ

টানা ১২ ঘন্টা বিতর্ক শেষে ভারতের লোকসভায় ৩শ১১-৮০ ভোটে পাশ হলো বহুল আলোচিত নাগরিকত্ব সংশোধন বিল। আজ এটি তোলা হবে ভারতের রাজ্যসভায়। বিল পাশের পর অমিত শাহকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বিরোধীদের অভিযোগ, পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু মুসলিমদের টার্গেট করা হয়েছে এ বিলে। পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি এবং নাগরিকত্ব বিল প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছেন মমতা।

৬ দশক আগের পুরনো আইন বদলে, ভারতের লোকসভায় উঠলো, নাগরিকত্ব সংশোধন বিল। লক্ষ্য বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে বসবাসরত অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেয়া। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিল উত্থাপনের শুরুর পরই তীব্র হট্টগোল শুরু হয় পার্লামেন্টে। বিরোধীতায় সরব হয় কংগ্রেস, তৃণমূলসহ বিরোধীরা।   

কংগ্রেস নেতা শশী থারুর বলেন, ভারতের মূল্যবোধের পরিপন্থী এ আইন। আদর্শ, ধর্ম কিংবা ভাষার কখনও জাতীয়তার ভিত্তি হতে পারে না। এটা পাকিস্তানি চিন্তাধারা।

এআইএমআইএম সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেন, মাননীয় স্পিকার, এ আইনের হাত থেকে দেশ ও দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে রক্ষা করুন। নইলে ডেভিড বেন গুরিয়ন ও হিটলারের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নাম উচ্চারিত হবে।

বিরোধীদের অভিযোগের পাল্টা উত্তর দেন বিজেপি প্রধান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, মুসলিমদের নাগরিক অধিকার কেড়ে নেয়ার দাবি সর্বতই ভুল। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব বিলে সংশোধনী করা হয়নি। স্বাধীনতার পর কংগ্রেস যদি ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ না করত, তবে এ বিলের প্রয়োজন পড়ত না।

এদিকে, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হুঁশিয়ার করেছেন, তার রাজ্যে নাগরিত্ব বিল কিংবা এনআরসি কোনোটাই হতে দেয়া হবে না। বিল প্রত্যাখান করেছেন মুসলিম নেতারাও।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কোন বিভাজন হবে না। একটা লোককেও দেশ থেকে তাড়ানো চলবে না।

এআইইউডিএফ প্রধান বদরুদ্দিন আজমল বলেন, এই বিল সংবিধান পরিপন্থী এবং হিন্দু মুসলমানের মধ্যে বিভাজন উসকে দেবে। এটি প্রত্যাখান করছি।

এর আগে গেলো বুধবার নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের পক্ষে মত দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। ১৯৫৫ সালের আইনে ১১ বছর বাস করলেই, তিনি নাগরিকত্ব দাবি করতে পারেন। নতুন আইনে এ বিধান অমুসলিমদের জন্য ৫ বছর করা হয়েছে।

বিলের প্রতিবাদে উত্তাল উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলি। বিভিন্ন এলাকায় বনধের ডাক দিয়েছে ৪ টি সংগঠন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর