channel 24

সর্বশেষ

  • রাজধানী ছাড়ছে মানুষ, দুই ঘাটে উপচেপড়া ভিড়

  • ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে নষ্ট ১৫০ কোটি চিংড়ি পোনা

  • জুমাতুল বিদায় মসজিদে মুসল্লিদের ঢল

  • প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে উঠতে পারছেন না হতদরিদ্ররা

  • বিধিনিষেধের মধ্যেই রাজধানী ছাড়ছে মানুষ

  • করোনায় ভালো নেই মা হাজেরা ও তার পথশিশুরা

  • ধুঁকছে মানিকগঞ্জের হাসপাতালগুলো, বাড়ছে দুর্ভোগ

  • চারদিন পরে নিভল সুন্দরবনের আগুন

  • বাংলাদেশের দেয়া চিকিৎসা সামগ্রী উপহার গেল ভারতে

  • দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়ায় দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট

  • মিথেন গ্যাস নিঃসরণের হটস্পট বাংলাদেশ

  • মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাবিতে ভিসির নিয়োগের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

  • পবিত্র জুমাতুল বিদা আজ

  • ইপিএলে আজ লেস্টারের মুখোমুখি নিউক্যাসেল

  • খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা অনুমতির সুরাহা হতে পারে আজ

দেশে সপ্তাহ ব্যবধানে কমেছে মৃত্যু-সংক্রমণ

দেশে সপ্তাহ ব্যবধানে কমেছে মৃত্যু-সংক্রমণ

সপ্তাহের ব্যবধানে বাংলাদেশে মৃত্যু ও সংক্রমণ দুটোই কমেছে। এপ্রিল মাসের প্রথম ২৫ দিন যতটা ভয়াবহ ছিলো পরের ৬ দিন সেই শঙ্কা কেটেছে অনেকটাই। টানা ৪৮ দিন পর সবচেয়ে কম সংখ্যক মানুষ করোনা শনাক্ত হয়েছেন একদিনে। মারা গেছেন আরও ৬০ জন। তবে তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, প্রথম ঢেউয়ের তুলনায় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বাংলাদেশে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

১৯১৮-১৯-এ স্প্যানিশ ফ্লু-তে প্রথমের চেয়ে দ্বিতীয় ঢেউয়ের আঘাত ছিল বেশি বিধ্বংসী। করোনা মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে তেমনই হতে যাচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশে। দুই দেশেরই ২০২০ সালের এপ্রিল আর চলতি বছরের এপ্রিলের শনাক্ত মৃত্যুর পরিসংখ্যান গা শিউরে ওঠার মতো।

দেশে মহামারীর প্রথম মাস মার্চে ৫ জন ও পরের মাসে ১৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এক বছর পরে ঠিক একই সময়ে মৃত্যু বেড়েছে প্রায় ১৫ গুণ। এতে গত মাসে মারা গেছেন ২ হাজারের বেশি মানুষ। দ্বিতীয় ঢেউয়ে দৈনিক করোনা শনাক্তের সংখ্যাও ভীতিকর। গেল বছরের এপ্রিলজুড়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭ হাজার ৬১৬ জন। কিন্তু নতুন ভ্যারিয়েন্ট, মানুষের উদাসীনতা সব মিলে বছরের ব্যবধানে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে ১৯ গুণ।

অবশ্য স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অভিজ্ঞতা এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের দক্ষতায় এক বছরে টেস্ট যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে সুস্থ মানুষের সংখ্যাও। 

অবশ্য ২০২১ এর এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ থেকে মৃত্যু ও সংক্রমণ দুটোই কিছুটা কমতির দিকে। পয়লা মে প্রকাশিত স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রিপোর্ট বলছে, নতুন শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৪৫২ জন। যা গেল ৪৮ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। অবশ্য গেল কয়েকদিনের তুলনায় টেস্টও কম হয়েছে। ১৫ হাজার ১১৭টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এদিন ৬০ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। যদিও, সপ্তাহের ব্যবধানে প্রাণহানি কমেছে সাড়ে ১৬ শতাংশ। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা সাড়ে ১১ হাজার ছাড়ালো।

কিন্তু স্বস্তির খবর আছে হাসপাতালে আইসিইউ ও সাধারণ শয্যা সংখ্যায়। এখনও বেশিরভাগ করোনা হাসপাতালে এ সব বেডের একটি বড় অংশ খালি রয়েছে।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর