channel 24

সর্বশেষ

  • ডোপিংয়ে পৃষ্ঠপোষকতা: ৪ বছর আন্তর্জাতিক ক্রীড়ায় নিষিদ্ধ রাশিয়া...

  • অংশ নিতে পারবে না টোকিও অলিম্পিক ও কাতার বিশ্বকাপে

  • এসএ গেমস ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কাকে ৭ উইকেটে হারিয়ে স্বর্ণ বাংলাদেশের

  • মানহীন সান্ধ্যকালীন কোর্সের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে...

  • শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি

  • অর্থনৈতিক অঞ্চলে নারী উদ্যোক্তারা বিশেষ সুবিধা পাবেন: প্রধানমন্ত্রী

  • নেতৃত্বের দুর্বলতায় বিএনপি অস্তিত্ব সংকটে: ওবায়দুল কাদের

  • রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের জায়গা নেই: মির্জা ফখরুল

  • ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশের সময়...

  • এক ভারতীয় নাগরিক ও ১২ বাংলাদেশি আটক

  • এসএ গেমস: ক্রিকেট: ফাইনালে শ্রীলঙ্কার দেয়া ১২৩ রানের টার্গেটে...

  • ব্যাট করছে বাংলাদেশ; স্কোর: শ্রীলঙ্কা ১২২ (হাসান মাহমুদ ৩/২০)

  • এসএ গেমস আর্চারিতে দশ স্বর্ণের সবকটি জিতলো বাংলাদেশ

  • একুশে পদকপ্রাপ্ত পদার্থবিজ্ঞানী অধ্যাপক অজয় রায় মারা গেছেন...

  • সর্বস্তরের শ্রদ্ধা জানাতে কাল সকালে নেয়া হবে শহীদ মিনারে...

  • মরদেহ দান করা হয়েছে বারডেম হাসপাতালকে

রোগী-ডাক্তার সম্পর্কটি হওয়ার কথা আন্তরিকতার, কিন্তু হয়ে উঠছে তিক্ততার

রোগী-ডাক্তার সম্পর্কটি হওয়ার কথা আন্তরিকতার, কিন্তু হয়ে উঠছে তিক্ততার

রোগী ও ডাক্তার। সম্পর্কটি হওয়ার কথা আস্থা ও আন্তরিকতার। কিন্তু, কখনো-কখনো অপেশাদার ও রুঢ় আচরণে তা হয়ে উঠছে অবিশ্বাস ও তিক্ততার। এতে যেমন প্রভাব ফেলছে সামগ্রিক চিকিৎসাসেবায়, তেমনি বিদেশমুখী করছে রোগীদের। সিনিয়র চিকিৎসকরা মনে করেন, বাড়তি রোগীর চাপ ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সংকট এই অবস্থার জন্য দায়ী। তবে চিকিৎসকদের মানবিক আচরণই পারে উভয়ের মাঝে দূরত্ব ঘোচাতে।

শাহাদত হোসেন। থাকেন রাজধানীর নিকেতনে। গত সপ্তাহে তার মা হঠাৎ নিম্ন রক্তচাপজনিত কারণে ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়লে চাঁদপুর থেকে চিকিৎসা নিতে আসেন ঢাকায়। শরণাপন্ন হন একটি বেসরকারি হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞের।

কিন্তু সুচিকিৎসার বদলে ওই ডাক্তারের দুর্ব্যবহার আরও বিপর্যস্ত করে ফেলে তাকে।

এদেশে ডাক্তার ও রোগীর সম্পর্ক যতোটা মধুর, অম্লও ততটায়। এই বাস্তবতায় উভয়ের মাঝে যে অনাস্থা তৈরী হয় তা অনেকসময়ই রোগীকে ঠেলে দেয় ভিন্ন দেশের পথে।

বিপুল জনসংখ্যার এই দেশে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সংখ্যা মাত্র ৭ সাত হাজার। তাই চিকিৎসকরা বলছেন, রোগীর অতিরিক্ত চাপ সামাল দিতে গিয়ে অনেকসময় মেজাজের ভারসাম্য ঠিক থাকে না। তবে, ইচ্ছে থাকলে তা অসম্ভব কিছু নয়।

চিকিৎসাখাতে নানা সংকট-সমস্যার মাঝেও অনেকেই আছেন, যারা রোগীর প্রতি আন্তরিক হতে এতটুকু কার্পণ্য করেন না। তেমনই একজন অধ্যাপক ডাক্তার এবিএম আব্দুল্লাহ। এই দূরত্ব দূর করতে তার পরামর্শ প্রাতিষ্ঠানিকভাবে রেফারাল পদ্ধতি চালু করার। পাশাপাশি দরকার চিকিৎসা শিক্ষার্থীদের মাঝে কাউন্সিলিং বাড়ানো।

ইতিবাচক সম্পর্ক তৈরীতে রোগীদের কাছেও দায়িত্বশীল আচরণ আশা করেন চিকিসৎকরা।

 

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর