channel 24

সর্বশেষ

  • দরকার ছাড়া বেরুলেই ফেরত পাঠানো হচ্ছে ঘরে

  • সপ্তাহ না পেরুতেই ধৈর্যহারা নগরবাসী; দরকার ছাড়াও বেরুচ্ছেন বাইরে

  • পিপিই পরে সাঈদ খোকনের ত্রাণ বিতরণ

  • মুখে মাস্ক পরে ফ্লিমি স্টাইলে ফার্মেসিতে ডাকাতি

  • স্পেনে একদিনে প্রাণহানি ৯৫০, মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ৪৮ হাজার ছাড়িয়েছে

  • গ্রামীণ জনপদে দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল কতটা সম্ভব?

  • চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কমেছে রোগী, বন্ধ প্রাইভেট চেম্বারও

  • গত ২৪ ঘন্টায় ১৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা: আইইসিডিআর

  • চট্টগ্রামে বেড়েছে ব্যক্তিগত যানচলাচল, নির্দেশনা মানতে চাইছেন না মানুষ

  • সংকুচিত ব্যাংকিং সেবার চাহিদা পূরণ করছে মোবাইল ব্যাংকিং

  • চট্টগ্রামে করোনার ধাক্কা দীর্ঘায়িত হলে মুখ থুবড়ে পড়বে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা

  • মেহেরপুরে সুরক্ষা সরঞ্জাম না থাকায় লাপাত্তা চিকিৎসক

  • করোনা থাবায় হুমকির মুখে দেশের পোলট্রি শিল্প

  • এসি মিলান ছাড়ছেন জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ

জাপানের প্রথম বধির বাস চালক

জাপানের প্রথম বধির বাস চালক

জাপানের ইতিহাসে প্রথম বধির বাস চালক, তাকিয়ামা মাৎসুয়ামা। যদিও, সামান্য শব্দ শুনতে পান তিনি। তাই কানে-শোনার যন্ত্র পরার শর্তে, বাস চালানোর লাইসেন্স পান, তাকিয়ামা। তার মতো শারীরিক প্রতিবন্ধকতার শিকার অন্যদেরও এই পেশায় আনতে চান।

জাপানের তাকিয়ামা মাৎসুয়ামার বউস ২৫ বছর। এই তরুণকে দেশটির প্রথম বধির বাস চালক বলছে জাপানের নিহন বাস এ্যাসোসিয়েশন।

ছোটবেলা থেকেই মাৎসুয়ামার স্বপ্ন ছিল বাস চালক হওয়া। কিন্তু শারিরীক অক্ষমতায় সেই স্বপ্ন পূরণ হচ্ছিলো না। ২০১৬ সালে দেশটির আইন সংশোধনের পর শ্রবনযন্ত্র পড়ে গাড়ি চালানোর বৈধতা পান তিনি। কিন্তু তারপরও প্রতিবন্ধকতা। কমপক্ষে ৭টি কোম্পানি মাৎসুয়ামাকে চাকরিতে নিতে আপত্তি জানায়। অবশেষে টোকিও বাস গ্রুপ চালক হিসেবে নিয়োগ দিলে ছোটবেলার স্বপ্ন পূরণ হয় তার।

তাকিয়ামা মাৎসুয়ামা বলেন, 'জাপানে এখনও এমন কুসংস্কার আছে যে, শারীরিকভাবে অক্ষম মানুষরা কফি শপ বা রেস্তোরাঁয় কাজ করতে পারে না। অথচ আমরাও যে সবকিছু করতে পারি, সেটি প্রমাণ করতে অনেক বাধা পেরোতে হয়েছে।'

মাৎসুয়ামাকে নিয়োগ দিয়ে খুশি টোকিও বাস গ্রুপও। তারা মনে করেন, কোনো ব্যক্তির বিশেষ সীমাবদ্ধতা থাকতেই পারে। তবে তার দক্ষতা কাজে লাগানোর সুযোগ থাকলে তা অবশ্যই করা উচিত।  

টোকিও বাস গ্রুপের পরিচালক তমোহিকো সাতো বলেন, 'দক্ষ চালকের অভাব রয়েছে আমাদের। কিছু নিয়মকানুন শিথীল করে হলেও মাৎসুয়ামার মত দক্ষ মানুষদের দায়িত্ব দেয়া উচিত। তাকে নিয়োগ দেয়ায় অনেকেই আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছে।'

গেল অক্টোবর থেকে দক্ষতার সাথে টোকিওর রাস্তায় বাস চালাচ্ছেন মাৎসুয়ামা। কানে লাগানো যন্ত্র দিয়ে খুব সহজেই তিনি সব শব্দ শুনতে পান। তার সহকর্মীরা বলছেন, আর পাঁচজন চালকের সাথে মাৎসুয়ামার বিশেষ পার্থক্য নেই।

মাৎসুয়ামার লক্ষ্য, তার মতো বধিররা যদি দক্ষতা অর্জন করতে পারে তবে তাদেরকে কাজে লাগানোর। সেইসাথে বধির যাত্রীদের জন্য একটি পর্যটক পরিবহন সেবাও চালু করার লক্ষ্য রয়েছে তার।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর