channel 24

সর্বশেষ

  • পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে সুনামগঞ্জ

  • করোনায় আক্রান্ত অমিতাভ বচ্চন

  • পাপুলকাণ্ডে গ্রেপ্তার কুয়েতের সেনা কর্মকর্তা

  • রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজি সম্পর্কে জানা ছিল না: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • রিজেন্ট চেয়ারম্যান সাহেদের পাসপোর্ট জব্দ

  • লাভের আশায় গরু পালন করে দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় খামারীরা

  • আগামী মাসে মাঠে গড়াচ্ছে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ

  • আবারও মনোবিদ আজহার আলীর ওপর আস্থা বিসিবির

  • আগস্টের প্রথম সপ্তাহ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফুটবল দলের আবাসিক ক্যাম্প

  • সাউদাম্পটন টেস্টে ৯৯ রানে পিছিয়ে ইংল্যান্ড

  • বিএফডিসিতে অসহায় শিল্পীদের সহায়তা করলেন অনন্ত-বর্ষা

  • সিলেটে বিষ খাইয়ে হত্যাচেষ্টা, মা-ছেলে কারাগারে

  • কুমিল্লায় ব্যবসায়ী আকতার হত্যার ঘটনায় মামলা

  • সাংবিধানিক কারণেই করোনার মধ্যে উপনির্বাচন: সিইসি

  • বানের জলে ডুবছে লোকালয়; সুরমা উপচে তলিয়েছে সুনামগঞ্জ শহর

হুমায়ূন আহমেদের শ্রদ্ধায় প্রকাশিত গান 'কোথাও কেউ নেই'

হুমায়ূন আহমেদের শ্রদ্ধায় প্রকাশিত গান 'কোথাও কেউ নেই'

হুমায়ূন আহমেদের ৭১তম জন্মবার্ষিকী আজ। তার পঙ্তিমালার আবেগে এখনও হলদে সাজে, হিমু হয়ে ঘোরে কেউ, কেউবা হয়ে ওঠে রূপা। সাহিত্যের এই বরপুত্রের প্রতি শ্রদ্ধায় প্রকাশিত হল গান কোথাও কেউ নেই। পুরো গানটিই লেখা হয়েছে, তার ২৯টি বইয়ের নাম ব্যবহার করে।

গানের শিরোনাম যদিও 'কোথাও কেউ নেই' তবুও পাঠক মনের মতো পুরোটা জুড়েই আছেন তিনি।

উৎসর্গের চিঠি হয়ে গানের প্রতিটি লাইনেই রয়েছে প্রিয় লেখকের আপন সৃষ্টি। কারণ কথা সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের ২৯টি বইয়ের নাম থেকেই লেখা হয়েছে গানের কথা।

গীতিকার নীল মাহবুব বলছেন, তাঁর পরায়নের পর তাঁর যারা ভক্ত আছেন, তাদেরও অনেক অব্যাক্ত কথা রয়েছে। তাই চেষ্টা করেছি যে তাঁর বইয়ের নামগুলো দিয়েই সেই ভক্ত হৃদয়ের অব্যক্ত কথাগুলো প্রকাশ করতে।

গল্প আড্ডায় জানা হলো, হুমায়ুন আহমেদের ৭১তম জন্মদিনর উপলক্ষে নেয়া এই ভিন্নধর্মী প্রয়াসের খুটিনাটি। যেখানে এক সুতোয় গাঁথা হয়েছে দুই প্রজন্মকে।

মিউজিক কম্পোজার শরীফ সুমন বলেন, 'কোথাও কেউ নেই' আমরা গানটি করেছি প্রায় দেড় বছর ধরে।

বইয়ের নামগুলোর মালা গেথে যে নতুন গল্পের জন্ম হয়েছে এই গানে তা হুট করে নয় বরং দীর্ঘ দেড় বছরের প্রচেষ্টা। হৃদয়ে নিংড়ানো ভালোবাসায় তাই যেন গীতিকার, সুরকার কিংবা শিল্পী পুরো দলই দিতে চেয়েছেন নিজেদের সেরাটা।

কন্ঠশিল্পী ইউসুফ আহমেদ খান বলছেন, তাঁর লেখা বইগুলোর নাম দিয়ে সাজানো একটি গান যদি উৎসর্গ করা যায় তখন কিন্তু আমাদের হাড়ানোর কিছু নেই। কারণ তাঁর সৃষ্টি করা জিনিসই আমরা তাঁকে উপহার দিচ্ছি।

নিজের লেখনিতে পাঠক মনে তৈরি করেছেন অসংখ্য চরিত্র, যাদের জীবনের চিত্রপট কখনও হাসিয়েছে কখনও আবেগী করেছে মন আবার কখনও করেছে অশ্রুসিক্ত। তাই যেন প্রকাশের পর গানটি যেমন ছুঁয়েছে হাজারো ভক্তমন তেমনি আচড় কেটেছে পরিবারের সদস্যদের মনেও।

হুমায়ূন আহমেদের ভাইরা বলছেন, এতসুন্দর করে বইয়ের নামগুলো সাজিয়েছে যে কেউ যদি না জানে তবে সে কল্পনাও করতে পারবে না যে এত গুলো বইয়ের নাম পরপর বলে যাওয়া হয়েছে। আগে অনেকে চিঠি লিখত এই প্রথম পূর্নাঙ্গ একটি গান হয়েছে। এটি অন্যরকম একটি কাজ।

হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বলেন, শুধু বয়ের নাম দিয়ে গান তৈরি করা খুবি চমৎকার একটি কাজ।

কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ আর নেই কিন্তু নিজের সৃষ্টিতে স্বমহিমায় বর্তমান তিনি। গানের মতো করেই আগামীর পাঠকেরা জানবে তাকে, অনুপ্রাণিত হবে তারই চিন্তাশক্তিতে, বিকশিতো হবে সৃজনশীল প্রতিভার।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিনোদন খবর