channel 24

সর্বশেষ

  • টিকা নেয়ার পরও আক্রান্ত, ২৭ দেশে ওমিক্রন শনাক্ত

  • গ্যাস সিলিন্ডারে দগ্ধ ভাই-বোন মারা গেছেন

  • অভিমানে চেয়ারম্যানের দেয়া উপহার আগুনে পোড়ালেন সমর্থক

  • বিজয় দিবসে দেশব্যাপী শপথ বাক্য পাঠ করাবেন প্রধানমন্ত্রী

  • করোনার টিকা নিতে হবে টানা কয়েক বছর: ফাইজার প্রধান

  • চার বছর পর হিলি দিয়ে কয়লা আমদানি শুরু

  • নারী কেলেঙ্কারি: নাচোলের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার

  • টাঙ্গাইলে দক্ষিণ আফ্রিকাফেরত ৬ প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টিনে

  • নির্ধারিত সময়ে ২৭ শতাংশ আয়কর রিটার্ন জমা

  • এবার মার্কিন পুলিশের গু লিতে প্রাণ হারালেন হুইলচেয়ারে বসা বৃদ্ধ

  • বাবরের একাদশে পাকিস্তানের চেয়ে ভারতের ক্রিকেটার বেশি

  • চাকরি দিচ্ছে বিকেএসপি

  • দাউদাউ করে জ্বলছে বিয়েবাড়ি, খেয়েই চলেছেন নিমন্ত্রিতরা (ভিডিও)

  • ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

  • অভিবাসী প্রেরণে বিশ্বে ষষ্ঠ, রেমিটেন্স গ্রহণে অষ্টম বাংলাদেশ

বিএনপি পরিবারের সন্তানকে উপজেলা ছাত্রলীগের সা. সম্পাদক করার অভিযোগ

বিএনপি পরিবারের সন্তানকে উপজেলা ছাত্রলীগের সা. সম্পাদক করার অভিযোগ

পাবনার ফরিদপুরে বিএনপি পরিবারের সন্তানকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনীত করার অভিযোগ উঠেছে জেলা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। সম্মেলন ছাড়াই ত্যাগী কর্মীদের বঞ্চিত করে বিএনপি পরিবারের সন্তানকে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দেয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে। কমিটি বাণিজ্যের অভিযোগ তুলে নিন্দার ঝড় উঠেছে সামাজিক মাধ্যমেও।

স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জানান, কোনো ধরনের পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) ফরিদপুর উপজেলা ছাত্রলীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে সোহেল রানাকে সভাপতি ও জাহিদ হাসানকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেয় জেলা ছাত্রলীগ। পাবনা জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফিরোজ আলী ও সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলামের স্বাক্ষর করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠন গতিশীল করার স্বার্থে নতুন কমিটি দেয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

তবে, নব নির্বাচিত ফরিদপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ বিএনপি পরিবারের সন্তান বলে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ থাকার পরেও উৎকোচের বিনিময়ে জেলা ছাত্রলীগ তাদের মনোনীত করে বিতর্কিত কমিটি দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। বিষয়টি জানাজানি হলে সমালোচনা ও নিন্দার ঝড় উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও চলছে সমালোচনা। ক্ষোভে ফুঁসছেন পদ বঞ্ছিত ছাত্রলীগ নেতারা।

ফরিদপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আমির ফয়সাল বলেন, ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টির জন্য আমরা দাবি জানিয়েছিলাম। কিন্তু হঠাৎ করেই কোনো পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সোহেল রানা ও জাহিদ হাসানকে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে।

আমির ফয়সালের অভিযোগ, 'জাহিদ ছাত্রলীগের কোনো ইউনিটের সদস্যও ছিলো না। ত্যাগী কর্মীদের কোনো সুযোগ না দিয়ে জেলা ছাত্রলীগ অর্থের বিনিময়ে বিএনপি পরিবারের সন্তানদের কাছে কমিটি বিক্রি করেছে। আমরা এই বিতর্কিত কমিটি বাতিল চাই।'

জাহিদ হাসানের বাবা মৃত আব্দুল হামিদ বিএনপির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে ফরিদপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল ইসলাম বকুল বলেন, আব্দুল হামিদ উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ছিলেন।

জেলা আওয়ামীলীগের নির্বাহী সদস্য ও ফরিদপুর পৌর মেয়র খ ম কামরুজ্জামান মাজেদ বলেন, 'জেলা ছাত্রলীগ নেতাদের বারবার বলেছিলাম সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচিত করতে। তারা তা না শুনে বিএনপি পরিবারের সন্তানকে সাধারণ সম্পাদক বানিয়েছে। কমিটি বাণিজ্য করতেই প্রেস রিলিজ নির্ভর কমিটি দেয়া হচ্ছে। এটি আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য অশনি সংকেত।'

নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান বলেন, তার বাবা বিএনপি রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না। তবে তিনি নিজে ছাত্রলীগের কোনো কমিটির সদস্য ছিলেন না বলে স্বীকার করে বলেন, তিনি ২০১৪ সাল থেকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাথে কর্মী হিসেবে জড়িত রয়েছেন।

জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফিরোজ আলী বলেন, কমিটি গঠনে কোনো প্রকার টাকার লেনদেন হয়নি। কে কোথায় টাকা নিয়েছে আমার জানা নেই। পদ না পেয়ে অনেকে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে। জাহিদ হাসানকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সুপারিশে পদ দেয়া হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম বলেন, সদ্য মনোনীত নেতাদের কেউ বিএনপি পরিবারের নয়। স্থানীয় আওয়ামীলীগের মতামতের ভিত্তিতেই তাদের পদ দেয়া হয়েছে। অর্থ নেয়ার প্রমাণ দিতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেবেন বলেও জানান তিনি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর