channel 24

সর্বশেষ

  • ডেঙ্গুতে আরও ১৫১ জন হাসপাতালে

  • শেখ রাসেলের জাপান ভ্রমণের ছবি পোস্ট করে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

  • টসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

  • সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে চট্টগ্রামে আজও মানববন্ধন

  • স্কটল্যান্ডের টানা দ্বিতীয় জয়

  • পূজামণ্ডপের নিরাপত্তা দিতে সরকার ও গোয়েন্দারা ব্যর্থ: জিএম কাদের

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে নেইমারকে পাচ্ছেন না মেসিরা

  • জাতিগত বৈষম্যমূলক মন্তব্যে গ্রেপ্তার অভিনেত্রীর জামিন

  • গরু জবাই নিষিদ্ধ করছে শ্রীলঙ্কা

  • দেশে পোশাক কারখানার পরিবেশ বেশ উন্নত হয়েছে: সালমান এফ রহমান

  • করোনার টিকা দিতে প্লেনে করে ঘুরছেন ডাক্তার

  • মেঘনায় মা ইলিশরক্ষা অভিযানে কোস্টগার্ড সদস্য নিখোঁজ

  • প্রতিমাসে তিন কোটি ডোজ টিকা দেয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য খাবার, টিন ও অর্থ বরাদ্দ

  • সালাউদ্দিন আইয়ুবীর সময়কার তলোয়ার উদ্ধার

করোনাকালে কুড়িগ্রামে বাল্যবিয়ের হিড়িক

করোনাকালে কুড়িগ্রামে বাল্যবিয়ের হিড়িক

করোনাকালে কুড়িগ্রামে বাল্য বিয়ের হার বেড়েছে কয়েকগুণ। যে কিশোরীর বই হাতে নিয়ে স্বপ্নে বিভোর থাকার কথা, আকাশে নিজের ভবিষ্যৎকে দেখার কথা, সেই কিশোরীই অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে ভয়ানক বাল্যবিবাহের জালে।

দরিদ্রতার সঙ্গে সামাজিক সমালোচনা। এসব চিন্তা থেকেই মেয়েদের কম বয়সে বিয়ে দিয়ে বাবা-মা নিজেদের বোঝা হালকা করছেন,এমনই অভিমত অনেকের।

কুড়িগ্রামের জেলা শিক্ষা অফিসার শামসুল আলম জানিয়েছেন,প্রাথমিকভাবে তিনি যে খোঁজ-খবর পেয়েছেন তাতে ১০টি স্কুলের ২০০ ছাত্রীর বাল্যবিয়ে হয়েছে। এখন বিভিন্ন কমিটি করে এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। 

কুড়িগ্রামের ধরলা নদী সংলগ্ন সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের সারডোব উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়া ৯ জন ছাত্রীর ৮ জনেরই বিয়ে হয়ে গেছে। এখন শুধু স্কুলে আসছে শুধু নার্গিস নাহার। ওই স্কুলের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ২২৩ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্রীর সংখ্যা ছিল ৭৯ জন। করোনার মধ্যে শুধু এই স্কুলেই ১৮ জন ছাত্রীর বাল্যবিয়ে হয়ে গেছে। 

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক ফয়জার রহমান বলেন,এত ছাত্রীর বিয়ের তথ্য সঠিক নয়।  আমরা খোঁজ-খবর নিচ্ছি,বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। 

স্কুলটির শিক্ষক ও বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক সুলতানা পারভীন বলেন, এ ঘটনার অধিকাংশই চর এলাকা।  চরের অভিভাবকরা মেয়ে একটু বড় হলেই ‘আপদ' মনে করে দ্রুত বিয়ে দেন। অনেক বুঝিয়েও কাজ হচ্ছে না। করোনাকালে ঠিকমতো খোঁজ নেয়া সম্ভব হয়নি। এই সুযোগে ব্যাপকহারে বাল্যবিয়ে বেড়েছে।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নূরে তাসনিম বলেন,করোনার মধ্যে আমরা স্কুলগুলোর প্রধান শিক্ষকদের শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে খোঁজ-খবর রাখতে বলেছি। এখন মিডিয়াতে যে খবরগুলো আসছে তার প্রেক্ষিতে আমরা তদন্ত কমিটি করেছি। কমিটির রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে

এমএম

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর