channel 24

সর্বশেষ

  • খুলেছে ঢাবি গ্রন্থাগার, কর্তৃপক্ষের নির্দেশ উপেক্ষা চাকরিপ্রার্থীদের

  • সাড়ে ১০ হাজার শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য

  • নাসিরনগরে পানিতে ডুবে যমজ ভাই-বোনের মৃত্যু

  • এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ, পিছিয়েছে বিএনপি: কাদের

  • বিমানবন্দরে পরীক্ষামূলকভাবে আরটিপিসিয়ার ল্যাব চালু

  • তেলের মিলের পাশে পড়ে ছিলো আনসার কমান্ডারের লাশ

  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে মাস্ক ও হ্যান্ড সেনিটাইজার পেল গার্ল গাইডস

  • কুষ্টিয়ায় ব্যাংক কর্মকর্তা খুন: বিচার চেয়ে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

  • ‘সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর সিদ্ধান্ত সময়োপযোগী নয়’

  • রাজবাড়ীতে গাছ কাটতে গিয়ে বিস্ফোরণ, নারীসহ আহত ৩

  • দেশে করোনায় মৃত্যু কমলো, বাড়লো শনাক্ত

  • আসছে নুরের নতুন রাজনৈতিক দল, নেতৃত্বে রেজা কিবরিয়া

  • দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে ‘আগ্রহী’ উত্তর কোরিয়া

  • অন্যের সঙ্গে সম্পর্ক করায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হ ত্যা

  • প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেয়া হবে ৮০ লাখ ডোজ টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এক শিক্ষিকাই পাঁচ শ্রেণির পাঠদানের ভরসা

এক শিক্ষিকাই পাঁচ শ্রেণির পাঠদানের ভরসা

ভোলার লালমোহনের ১৬৩ নং কুমারখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সকল ক্লাসে পাঠদানের ভরসা মাত্র একজন শিক্ষিকা। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত বিদ্যালয়টিতে মোট ছাত্র-ছাত্রী ১২৪ জন।

১৯৯১ সালে স্থাপিত হয় বিদ্যালয়টি। যা ২০১৩ সালে জাতীয়করণ করা হয়। বিদ্যালয়টির প্রথম থেকে ৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা ছিলেন। তবে পর্যায়ক্রমে ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কাজল রেখা নামের একজন শিক্ষিকা ছাড়া বাকি সকলে বিভিন্ন সময়ে অবসর গ্রহণ করেন। পরে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্ব গ্রহণ করেন কাজল রেখা। এরপর থেকে পুরো বিদ্যালয়ের দায়িত্ব আসে তার ওপরে।

করোনার কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও গত ১২ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয় খোলার পর পুরো বিদ্যালয়ের পাঁচ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাতে হচ্ছে কাজল রেখাকে। যাতে করে চরম বিপত্তিতে পড়েছেন তিনি। বিদ্যালয়টিতে নেই চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীও।

বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক জানান, একজন শিক্ষিকা দিয়ে পুরো স্কুলের এত শিক্ষার্থীকে পাঠদান করা সম্ভব না। শিগগিরই এখানে আরও শিক্ষকের পদায়ন দেয়া জরুরি।

বিদ্যালয়টির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা কাজল রেখা বলেন, একা বিদ্যালয়ের এত শিক্ষার্থীকে পড়ানো ব্যাপক কষ্টসাধ্য। তাই দ্রুত বিদ্যালয়টিতে আরও শিক্ষক পদায়ন দেয়া প্রয়োজন।

এব্যাপারে লালমোহন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আক্তারুজ্জামান মিলন বলেন, আগে বিষয়টি জানা ছিলো না, এখন জেনেছি। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সেখানে শিক্ষক পদায়নের ব্যবস্থা করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর