channel 24

সর্বশেষ

  • নারায়ণগঞ্জ জেলা সম্পূর্ণরূপে লকডাউন

  • বিশ্বে প্রাণহানি ৭৮ হাজার ছাড়ালো, জাপানে জরুরি অবস্থা জারি

  • অভিনব কায়দায় মাস্ক চুরি করলো যুক্তরাষ্ট্র!

  • করোনা আতঙ্কের মাঝে সুখবর দিলেন সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ

  • ২২০টি করোনা শনাক্তের কিট দিলেন সাবেক এমপি রুহী

  • করোনায় আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি

  • জামালপুরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুটি বিশেষ বাজার চালু

  • ঢাকার বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত নারায়ণগঞ্জবাসী, টাঙ্গাইল লকডাউন

  • করোনা উপসর্গ নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৪ জনের মৃত্যু

  • চিকিৎসা না দিয়ে ফিরিয়ে দেয়ায় রাস্তায় নবজাতক প্রসব

  • কর্মহীন হয়ে পড়া খেটে খাওয়া মানুষদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন অনেকেই

  • বান্দরবানে নিজস্ব উদ্যোগে সুরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে ম্রো জনগোষ্ঠি

  • বঙ্গবন্ধুর খুনি আব্দুল মাজেদ গ্রেপ্তারের পর কারাগারে

  • লকডাউনের মাঝেই জার্মানিতে বায়ার্ন মিউনিখের অনুশীলন শুরু

  • মারা গেলেন ফুটবল কোচ রাদোমির অ্যান্টিচ

ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে হত্যা মামলার আসামী শনাক্ত

ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে হত্যা মামলার আসামী শনাক্ত

শেরপুর জেলার নকলা থানার একটি হত্যা মামলার হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছোরা হতে রক্তের নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে আসামী শনাক্ত করেছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডির ডিএনএ ল্যাবরেটরী ইউনিট।

গত ১১/০২/২০২০খ্রিঃ নকলা থানাধীন রুনীগাঁও গ্রামের জনৈক সোহেল মিয়ার পালিত ছাগল আহসানুল কবীরের জমিতে ঢুকে ধানের চারা নষ্ট করে। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারা ঝগড়া-বিবাদে জড়িয়ে পড়লে তাদের প্রতিবেশী আঃ বারেক তাদের ঝগড়া বিবাদ মীমাংসার চেষ্টা করে। আঃ বারেক তাদের ঝগড়া বিবাদ মীমাংসা চেষ্টা করার ফলে আহসানুল কবির ও তার পরিবারের সাথে মনোমালিন্য হয় ও তাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করে।
পরদিন আঃ বারেক জমিতে কাজ করার উদ্দেশ্যে বাড়ি হতে বের হলে পথিমধ্যে আহসানুল কবীর এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যগণ তার পথ রোধ করে ধারালো ছোরা দিয়ে তাকে আঘাত করে। আঃ বারেকের চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

পরবর্তীতে আঃ বারেকের পুত্র মোঃ শামীম বাদী হয়ে আসামী আহসানুল কবীর এবং তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে নকলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্তকালে আহসানুল কবীরের নিকট হতে রক্তমাখা ধারালো কাঠের বাটযুক্ত একটি ছোরা জব্দ করে ফরেনসিক ডিএনএ ল্যাবরেটরি, সিআইডিতে আলামত হিসেবে রক্তের নমুনা ডিএনএ পরীক্ষার জন্য প্রেরন করে।

অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডির  ডিএনএ ল্যাবে উক্ত রক্ত মাখা ছোরা পরীক্ষা করে। ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল হতে দেখা যায় যে, ছোরাতে লেগে থাকা রক্ত এবং মৃত আঃ বারেকের শরীর হতে সংগৃহীত রক্তের ডিএনএ  প্রোফাইল সম্পূর্ণ এক।

উক্ত ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল হতে প্রমাণিত হয় যে আসামী আহসানুল কবীরের নিকট হতে জব্দকৃত ছোরা দিয়ে আঃ বারেক কে খুন করা হয়। উক্ত ডিএনএ ফলাফলের মাধ্যমে প্রকৃত আসামী শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। ফলে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে আদালতে সাক্ষ্য হিসেবে উক্ত ডিএনএ প্রতিবেদন সহায়তা করবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর