channel 24

সর্বশেষ

  • শিবচরে লকডাউনের ১০ দিনে নতুন সংক্রমিত না হওয়ায় জনমনে স্বস্তি

  • ঠাকুরগাঁওয়ে একই পরিবারের ৫ জন আইসোলেশনে

  • বরিশাল মেডিকেলে করোনা ইউনিটে থাকা একজনের মৃত্যু

  • দেশে করোনা মোকাবিলায় নেই পর্যাপ্ত অবকাঠামো সুবিধা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • ইতালিতে প্রাণহানি ছাড়ালো ১০ হাজার, সংক্রমণের শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

  • করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই

  • রাস্তায় পড়ে থাকা ফিনল্যান্ডের নাগরিককে হাসপাতালে নিলো পুলিশ

  • করোনায় শুধু মানুষই নয় বিপাকে পশু-পাখিও

  • বিশ্বজুড়ে ৩০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি

  • পর্যটকদের স্বর্গরাজ্যগুলো আজ জনমানবহীন

  • ক্রমেই অসহায় হয়ে উঠছে বিশ্ব

  • স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম দিলো স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

  • আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল তৈরিতে জনতার ক্ষোভ

  • জনগণকে সচেতন হবার আহ্বান জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ

  • শৈশব থেকেই বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী ছিলেন বঙ্গবন্ধু

জনগণকে সুসংগঠিত করতেই নোয়াখালীতে এসেছিলেন বঙ্গবন্ধু

জনগণকে সুসংগঠিত করতেই নোয়াখালীতে এসেছিলেন বঙ্গবন্ধু

সাংগঠনিক ও রাষ্ট্রীয় সফরে ১৩ বার নোয়াখালী গেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর স্মৃতিবিজড়িত স্থানগুলো পরিবর্তন হলেও, কালের সাক্ষী হয়ে আছে নোয়াখালী প্রেসক্লাব। বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্য পেয়েছেন এমন মুক্তিযোদ্ধা ও রাজনৈতিক নেতারা এখনো বেঁচে আছেন। বয়সের ভারে নুয়ে পড়লেও অমলিন বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি।

চৌমুহনী এস এ কলেজের সাবেক ভিপি মোহাম্মদ উল্যাহ বলেন, বঙ্গব্ন্ধু নোয়াখালীতে এসে আমার স্লোগান শুনে আমাকে ডাক দিয়েছিলেন, পরবর্তীতে এসেও তিনি আমাকে চিনতে পেরেছিলেন।

৫২'র ভাষা আন্দোলনের পরই দেশ যখন উত্তাল, তখন দেশব্যাপী আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে নোয়াখালীতে পা রেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর

রহমান। সেদিন কেরানি ব্যারাট মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় ভাষণ দেন তিনি।

ভিপি মোহাম্মদ উল্লা বলেন, ১৯৬২ সালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী এবং মাওলানা ভাষানীর সাথে বঙ্গবন্ধু নোয়াখালী এসেছিলেন জনসভা করার  জন্য, চৌমুহনী স্টেশনে আমি নেতাদেরকে দেখতে গেলাম এবং বঙ্গবন্ধুর জন্যই বেশি শ্লোগান দিলাম, উনি এটা দেখলেন। আমি দক্ষিণ দিক থেকে স্টেশন যখন আসি তখন উনি আমাকে ডেকে ওনার বগিতে ওঠাইলেন এবং আমাকে সোনাপুর নিয়ে গেলেন এবং জনসভায় ওনার পাশে বসাইলেন। সেই জনসভা দেখার সুযোগ হয়েছে আমার। এরপর ১৯৬৪ সালে বঙ্গবন্ধু যখন জনসভা করতে আসলেন আমি মনে করেছিলাম তিনি আমাকে চিনবেন না, কিন্তু উনি শ্লোগানের এক ফাঁকে আমাকে নাম ধরে ডাকেন, তখন আমি নিজেও অবাক হলাম এবং পুরো জনসভা অবাক হলো।

নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ হানিফ বলেন, কেরানি ব্যারাট মাঠের দক্ষিণ পাশ একটা বট গাছ ছিল এই বটগাছকে কেন্দ্র করেই মিটিং মঞ্চ হতো। বঙ্গবন্ধু এখানে আসবে আমরা শুনছি, শেখ মুজিব আসতেছে শুনেই আসরা মানুষজন ডাকতে শুরু করেছি। লম্বা মানুষ বক্তব্য করতেছে, কন্ঠ ঠিক আছে, আওয়াজ ঠিক আছে, তেজোদীপ্তনা আছে।

সাংগঠনিক ও রাষ্ট্রী সফরে ১৩ বার নোয়াখালীতে গিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর সান্নিধ্য পেয়েছিলেন যারা, তাদের অনেকে এখন বেঁচে আছেন। বয়সের ভারে নুয়ে পড়লেও, স্মৃতির ক্যানভাসে রয়ে গেছে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর