channel 24

সর্বশেষ

  • ঠাকুরগাঁওয়ে একই পরিবারের ৫ জন রংপুর মেডিকেলের আইসোলেশনে

  • বরিশাল মেডিকেলে করোনা ইউনিটে থাকা একজনের মৃত্যু

  • দেশে করোনা মোকাবিলায় নেই পর্যাপ্ত অবকাঠামো সুবিধা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • ইতালিতে প্রাণহানি ছাড়ালো ১০ হাজার, সংক্রমণ শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

  • করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই

  • রাস্তায় পড়ে থাকা ফিনল্যান্ডের নাগরিককে হাসপাতালে নিলো পুলিশ

  • করোনায় শুধু মানুষই নয় বিপাকে পশু-পাখি

  • বিশ্বজুড়ে ৩০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি

  • পর্যটকদের স্বর্গরাজ্যগুলো আজ জনমানবহীন

  • ক্রমেই অসহায় হয়ে উঠছে বিশ্ব

  • স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম দিলো স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

  • আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল তৈরিতে জনতার ক্ষোভ

  • জনগণকে সচেতন হবার আহ্বান জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ

  • শৈশব থেকেই বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী ছিলেন বঙ্গবন্ধু

  • স্পেনে আরও ৮৩২ জনের প্রাণহানি

শিক্ষার্থীদের ৫ টাকায় দুপুরের খাবার দিচ্ছেন শ্যামল সরকার

শিক্ষার্থীদের ৫ টাকায় দুপুরের খাবার দিচ্ছেন শ্যামল সরকার

স্কুল শিক্ষার্থীদের জন্য মাত্র পাঁচ টাকায় মিলছে দুপুরের খাবার। রাজশাহীর বাঘার আড়ানী বাজারে অন্নপূর্ণা হোটেলে মিলছে এমন সুযোগ। যেখানে নিজ হাতে খাবার দেন হোটেল মালিক শ্যামল সরকার ও ছেলে বিপ্লব সরকার।

ঘড়ির কাটায় দুপুর একটা বাজতেই খাবার খেতে দল বেধেঁ অন্নপূর্ণা হোটেলে ঢুকছেন স্কুল শিক্ষার্থীরা।

মাত্র পাঁচ টাকায় ভরপেট খাবার মিলছে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার শ্যমল সরকারের গড়ে তোলা এই হোটেলে। তাইতো দুপুর ২টা পর্যন্ত হোটেলের সব টেবিল দখলে থাকে শিক্ষার্থীদের। ভাতের সাথে থাকে সবজি, মাংসের ঝোল আর ডাল।

শ্যামল সরকারের এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষকরাও। বলছেন, এতে বিকেলের ক্লাসে মনোযোগ বেড়েছে শিক্ষার্থীদের।

শিক্ষকরা জানান, ছেলেমেয়েরা যাতে ঠিকমতো লেখাপড়া করতে পারে সারাদিন স্কুলে থেকে সেখান থেকে তারা উপকৃত হচ্ছে। প্রায় বিনামূল্যে খাবারটা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এতে বাচ্চাদের শারীরিক মানসিক অবস্থা বেশ ভালো থাকে।

শ্যমল সরকারের সাথে কাজ করছেন ছেলে বিপ্লব সরকারও। মানব সেবার ব্রত নিয়ে বাবা-ছেলে মিলে এমন উদ্যোগ নেন ২০১৫ সালে।

শ্যামল সরকার বলেন, প্রথমে অনেকে বলতো দুয়েক টাকা, টাকা নাই, সেখান থেকে খাওয়াতে শুরু করলাম, তারপর আস্তে আস্তে বেড়ে গেল।

বিপ্লব সরকার বলেন, বাচ্চারা দোকানে এসে বলতো একটা সিঙ্গারা দেন, আমি ওদের সিঙ্গারার বদলে ভাত খাওয়া শিখাইছি।

প্রতিদিন অন্তত ৩০০ মানুষ খাবার খান অন্নপূর্ণা হোটেলে। যাদের মধ্যে বেশির ভাগই স্কুল শিক্ষার্থী।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর