channel 24

সর্বশেষ

  • দেশে করোনায় ২৪ ঘন্টায় প্রাণহানি ৩, নতুন করে শনাক্ত ৫৪

  • র‍্যাবের মহাপরিচালক হলেন চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল-মামুন

  • বেনজীর আহমদকে পুলিশ মহাপরিদর্শক করে প্রজ্ঞাপন

  • করোনা সংক্রমণ রোধে ঢাকার ৫০টির বেশি এলাকার ও বাড়ি লক ডাউন

  • করোনায় ঘরবন্দি বেশিরভাগ মানুষ, সুস্থ থাকতে সুষম খাদ্যাভাস ও শরীর চর্চার পরামর্শ

  • দেশে করোনার সামাজিক সংক্রমণ শুরু, ১৫ জেলায় মিলেছে রোগী

  • মহামারি সংক্রমণ আইন প্রথমবারের মতো কার্যকর, তবে মানছেন না কেউ

  • ঢাকা মেডিকেলে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন যুবকের মৃত্যু

  • বঙ্গবন্ধুর খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) মাজেদের মৃত্যু পরোয়ানা জারি

  • টাঙ্গাইলে করোনা রোগী শনাক্ত, আশেপাশের ৩৫ টি বাড়ি লকডাউন

  • বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অর্থ তহবিল বন্ধের হুঁশিয়ারি ট্রাম্পের

  • চীনের উহানে খুলে দেওয়া হয়েছে বিমানবন্দর ও রেল স্টেশন

  • করোনা উপসর্গে কাপাসিয়ায় মেডিকেল ছাত্রের মৃত্যু

  • নিউইয়র্ক যেন মৃত্যুনগরী

  • করোনায় প্রাণহাণি ছাড়ালো ৮২ হাজার

দিনাজপুরে বস্তাপ্রতি চালের দাম বেড়েছে দেড়শো থেকে দুশো টাকা

দিনাজপুরে বস্তাপ্রতি চালের দাম বেড়েছে দেড়শো থেকে দুশো টাকা

অস্থির চালের বাজারও। দিনাজপুরে এক সপ্তাহের ব্যবধানে বস্তাপ্রতি দাম বেড়েছে দেড়শো থেকে দুশো টাকা। আর সব ধরনের চালে কেজি প্রতি বেড়েছে তিন থেকে চার টাকা। দাম বাড়ায় খুচরা বিক্রেতারা দায় চাপাচ্ছেন মিলারদের ওপর। আর মিলাররা বলছেন, ধানের দাম বাড়ায় বেড়েছে চালের দাম।

সপ্তাহখানেক আগেও দিনাজপুরে প্রতি কেজি বিআর আটাশ চালের দাম ছিলো ৩৬ টাকা। যা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৯টাকায়।

মিনিকেট, গুটি স্বর্ণ, বিআর ঊনত্রিশ, নাজিরশাইর চালেরও কেজি প্রতি বেড়েছে তিন থেকে চার টাকা। আর সব চালই ৫০ কেজির বস্তায় বাড়তি ১৫০ থেকে ২০০ টাকা। হঠাৎ চালের এমন দামে বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষ।

চালের দাম বাড়ার পেছনে মিলারদের দায়ী করছেন, খুচরা ও পাইকারী ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা জানান, আমরা কেনা-বেচা করি, বেশি দামে কিনতে হচ্ছে তাই বিক্রিও বেশি দামে করতে হচ্ছে। বর্তমানে কৃষকদের কাছে ধান নেই, ধান সব মিলারদের কাছে। এখন আমন ধান ওঠছে, চালের দাম কম হওয়ার কথা কিন্তু দাম উর্ধ্বমুখী।

যদিও মিল মালিকরা বলছেন, ধানের দাম বাড়ায় বাড়তি চালের বাজার।

দিনাজপুর বাংলাদেশ অটো মেজর অ্যান্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতির সহসভাপতি শহীদুর রহমান পাটোয়ারী মোহন বলেন, কেজিপ্রতি কৃষকের ধানের দাম বেড়ে গেছে তাই স্বাভাবিকভাবে চালের দাম বাড়বে। তাই আমি মনে করি কৃষক বাচাঁনোর স্বার্থে ধানের দাম আরো বাড়ানো উচিত। কারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়ে গেছে।

গত আমন মৌসুমে দিনাজপুরে প্রায় সাড়ে ৭ লাখ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হয়েছে।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর