channel 24

সর্বশেষ

  • জ্বর ও শ্বাসকষ্ট শুনে গ্রামে ঢুকতে বাঁধা, তরুণের মৃত্যু হয়েছে

  • চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের আর্থিক সহায়তার করবে বিসিবি

  • পোশাক খাতে ২৪ ঘন্টায় ১৩ কোটি মার্কিন ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল

  • নতুন কেউ করোনায় আক্রান্ত হয়নি; সুস্থ হয়েছেন ১৫ জন

  • শিবচরে লকডাউনের ১০ দিনে নতুন সংক্রমিত না হওয়ায় জনমনে স্বস্তি

  • ঠাকুরগাঁওয়ে একই পরিবারের ৫ জন আইসোলেশনে

  • বরিশাল মেডিকেলে করোনা ইউনিটে থাকা একজনের মৃত্যু

  • দেশে করোনা মোকাবিলায় নেই পর্যাপ্ত অবকাঠামো সুবিধা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • ইতালিতে প্রাণহানি ছাড়ালো ১০ হাজার, সংক্রমণের শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

  • করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই

  • রাস্তায় পড়ে থাকা ফিনল্যান্ডের নাগরিককে হাসপাতালে নিলো পুলিশ

  • করোনায় শুধু মানুষই নয় বিপাকে পশু-পাখিও

  • বিশ্বজুড়ে ৩০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি

  • পর্যটকদের স্বর্গরাজ্যগুলো আজ জনমানবহীন

  • ক্রমেই অসহায় হয়ে উঠছে বিশ্ব

জয়পুরহাটে মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড টাঙিয়ে নিয়োগ বাণিজ্য

জয়পুরহাটে মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড টাঙিয়ে নিয়োগ বাণিজ্য

জয়পুরহাটে মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড টাঙিয়ে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। যদিও অধ্যক্ষের দাবি, সব কিছু নিয়ম মেনেই চলছে। আর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বলছেন, এ নামে কোন প্রতিষ্ঠানের অনুমতি নেই।

রাস্তার পাশে দুই রুমের টিনের চালাঘর। সাইবোর্ডে লেখা রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ। অভিযোগ আছে, জেলা শিক্ষা অফিসের কোনো অনুমোদন না নিয়ে রাতারাতি গড়ে তোলা হয়েছে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

যদিও জনবল নিয়োগে স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে বিদ্যালয়টি মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত। এ বিষয়ে কিছুই জানেন না জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার। একই বক্তব্য জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার।

জয়পুরহাটের কালাই মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কমান্ডার রেজাউল ইসলাম বলেন, এই কার্যক্রমের সাথে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কতটুকু জড়িত সে সম্পর্কে জানা নেই।

জয়পুরহাটের ভারপ্রাপ্ত জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহাদুজ্জামান বলেন, মুক্তিযোদ্ধা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ করতে হলে কারিগরী শিক্ষা বোর্ডের অনুমতির প্রয়োজন হয়। অনুমোদন ছাড়া এভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবেনা। প্রতিষ্ঠানটির নামে টেনিক্যাল শব্দ থাকলেও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের নেই কোনো অনুমোদন।

জয়পুরহাটের ক্ষেতলালের ইটখোলা টেনিক্যাল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, নিয়ম মেনেই কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তারা।

জয়পুরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ প্রমাণিত হলে প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সাইনবোর্ড সর্বস্ব নয় ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চান স্থানীয়রা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর