channel 24

সর্বশেষ

  • বিদেশ যেতে হলে করোনার সার্টিফিকেট নিতে হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • ভুয়া ডাক্তার, নিষিদ্ধ ওষুধ ও লাইসেন্স না থাকায় এসএইচএস হাসপাতাল সিলগালা

  • রিজেন্ট-জেকেজির জালিয়াতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিবৃতি দায়সারা

  • টক-মিষ্টি স্বাদের লটকন

  • এখনো পাওনা এক টাকাও পায়নি ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্রিকেটাররা

  • কক্সবাজার সৈকতে ভাসছে বর্জ্য, মারা গেছে ২০টি কচ্ছপ

  • পাঁচ প্রতিষ্ঠানের করোনা নমুনা পরীক্ষা স্থগিত

  • ৩ বছর বন্ধের পর কক্সবাজারে পুনরায় শুরু হচ্ছে জন্মনিবন্ধন প্রক্রিয়া

  • সাবরিনা-আরিফ দম্পতির রূপকথার জীবনের নানা গল্প

  • খাগড়াছড়িতে সাবেক ছাত্রদল নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

  • চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের দু'গ্রুপে সংঘর্ষ, আহত ৭

  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি আবুল কালাম আজাদকে শোকজ

  • এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকীর দিন উপনির্বাচন পেছাতে ইসিতে জাপা

  • ডা. সাবরিনা জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে বরখাস্ত

  • জ্বর-সর্দি ও শ্বাসকষ্টে দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০ জনের মৃত্যু

ব্রিজ আছে, সংযোগ সড়ক নেই; দুর্ভোগে লাখো মানুষ

ব্রিজ আছে, সংযোগ সড়ক নেই; দুর্ভোগে লাখো মানুষ

জামালপুরে কোনো কাজেই আসছে না তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা দুটি সেতু। সংযোগ সড়ক না থাকায় বাঁশের সাঁকোয় পার হতে হচ্ছে স্থানীয়দের। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন অন্তত ২০ গ্রামের মানুষ। এদিকে জয়পুরহাটে জনপ্রতিনিধির হাতে স্থানীয়রা দেড় লাখ টাকা তুলে দিলেও দৃশ্যমান হয়নি সেতু। <বরাদ্দের অভাবে সেতুর কাজ শেষ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

১০ বছর আগে জামালপুরের মেলান্দহ ও মাদারগঞ্জ উপজেলার হেমড়াবাড়ি এলাকায় নির্মাণ করা হয় এই দুটি সেতু। তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই সেতুর সংযোগ সড়ক হয়নি এতোদিনেও। ফলে স্থানীয়দের কাছে এখন গলারকাঁটার মতো ঠেকেছে সেতুদুটি।

এর ফলে বছরের পর বছর ধরে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে অন্তত ২০ গ্রামের মানুষের। সংযোগ সড়ক না থাকায় বাঁশের সাঁকোই ভরসা তাদের।  

গ্রামবাসী বলছেন, কেউ অসুস্থ হলেও হাসপাতালে নিয়ে যাবার মত অবস্থা থাকে না, রোগীকে ঘরেই মরে যাওয়া লাগে। স্কুল ছাত্ররা স্কুলে যেতে পারে না।

বরাদ্দের অভাবে রাস্তা নির্মাণ করা যাচ্ছে না বলে দাবি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি উপজেলা চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বেলালের। তবে সহসাই দুর্ভোগ কমানোর আশ্বাস কর্তৃপক্ষের।

প্রায় একই রকম বিপদ জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মৃধাপাড়া ঘাট এলাকার বাসিন্দাদের। কেননা সেতুর জন্য জনপ্রতিনিধির হাতে দেড় লাখ টাকা তুলে দিলেও সেতুর বদলে তাদের ভাগ্যে জুটেছে খালের মাঝে ছোট ছোট কয়েকটি স্টিলের পাইপ।

স্থানীয়রা জানায়, প্রায় ৩ বছর থেকেই এই কাজটা বন্ধ হয়ে আছে।

নানা জটিলতায় সেতুর কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে বলে দাবি চেয়ারম্যানের।

ঠিকাদার জাকির হোসেন বলছেন, আমাদের কালেকশনে উঠেছে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। বাকি যে অর্থ তাঁর অভাবে কাজ স্থগিত হয়ে আছে।

ভোটের আগে সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও জনপ্রতিনিধিরা তা এখনও পূরণ না করায় হতাশ স্থানীয়রা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর