channel 24

সর্বশেষ

  • চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন: আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী যারা

  • দিনাজপুরে গোলাগুলিতে ২ ডাকাত নিহত, আহত ৪ পুলিশ

  • টটেনহ্যামের মাঠে জয় লাইপজিগের

  • ভ্যালেন্সিয়াকে বিধ্বস্ত করলো আটালান্টা

  • কাল শুরু হচ্ছে নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

  • ফের স্বর্ণের দাম বাড়ায় হতাশ ক্রেতা-বিক্রেতারা

  • চট্টগ্রাম সিটিতে কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে আ.লীগ

  • অমর একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

  • করোনা ভাইরাসে প্রাণহানি কিছুটা বেড়েছে, তবে কমেছে আক্রান্তের হার

  • 'বর্ণবাদের' অভিযোগ তিন সাংবাদিককে বহিষ্কার করলো চীন

  • ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনঃমূল্যায়নের চিন্তা করছে সরকার: অর্থমন্ত্রী

  • ঢাকার চারপাশে নদীপাড়ে ধর্মীয় স্থাপনা না ভেঙে সংস্কার করবে সরকার

  • ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়: ওসিসহ ৭ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

  • চুড়িহাট্টায় আগুনে মারা যাওয়া ৩ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি

  • পরীক্ষা হলে সাহায্য না করায় সহপাঠীকে ছুরিকাঘাত, আটক ১

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে দেড় কিলোমিটার এলাকায় ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে দেড় কিলোমিটার এলাকায় ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়

একটি-দুটি নয়, বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের দেড় কিলোমিটার এলাকায় রয়েছে ১৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। জনবসতি কম হওয়ায় এসব বিদ্যালয়ের কোনোটিতেই তেমন শিক্ষার্থী নেই। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দাবি, বারবার নোটিশ দিলেও, শিক্ষকদের অনীহার কারণে সরানো যাচ্ছে না স্কুলগুলো।

বগুড়ার সারিয়াকান্দির যমুনা নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। বরইকান্দি থেকে কতুবপুর বাজার পর্যন্ত এই বাঁধের মাত্র দেড় কিলোমিটারের মধ্যে রয়েছে ১৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বছর তিনেক আগে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় চরের স্কুলগুলো। এরপর একে একে সেগুলো নিয়ে আসা হয় বাঁধ এলাকায়। এমনিতেই বাঁধের ওপর জনবসতিও কম, তারওপর এক জায়গায় এতো স্কুল। ফলে শিক্ষার্থী মিলছে না কোনো স্কুলেই। আগের স্থানে স্কুলগুলো ফিরিয়ে না নেয়ায়, শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে চরের শিশুরা।

বাঁধের ধারে এক বা দুই কক্ষের বিদ্যালয়ের কোনোটিতেই নেই খেলার মাঠ। নেই অবকাঠামোগত সুবিধাও।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বলছেন, বিদ্যালয়গুলো সরিয়ে নিতে নোটিশ দেয়া হয়েছে। তবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি, স্কুল সরাতে এখনও মেলেনি কোনো বরাদ্দ।

২০১৭ সালে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হলে বাঁধ এলাকায় চলে আসে, ১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। আর আগে থেকেই ছিল ৪টি।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর