channel 24

সর্বশেষ

  • গানে গানে বাংলা ভাষাকে ছড়িয়ে দিচ্ছেন জাপানিজ দম্পতি

  • করোনা আতঙ্কে ভুতুড়ে নগরী দক্ষিণ কোরিয়ার দায়েগু

  • দৌলতদিয়াতে আরেক যৌনকর্মীর জানাজা অনু‌ষ্ঠিত

  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে ধর্ষণ ও হত্যায় অভিযুক্ত বন্দুকযুদ্ধে নিহত

  • কল্পনার রং আর নকশার কারুকাজে শহীদ মিনারের প্রতিটি সড়ক একেকটি ক্যানভাস

  • মাগুরায় ছাত্রলীগ-ছাত্রদলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

  • একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

  • নারীর গৃহস্থালী কাজকে সরাসরি জাতীয় আয়ে যুক্ত করার সুযোগ এখনো নেই: অর্থমন্ত্রী

  • শুক্রবার থেকে পাওয়া যাবে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টেস্ট টিকিট

  • ফরিদপুরে ওবায়দুর রহমানের আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া মাহফিল

  • ফের ঢাকার বাতাস বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত

  • একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রস্তুত গোটা দেশ

  • বাংলা ওয়েবসাইট চালু করলো মার্কিন দূতাবাস

  • চুড়িহাট্টায় আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণসহ ৮ দফা দাবি

  • বাংলাদেশ লিগে দ্বিতীয় ম্যাচেই পয়েন্ট হারালো চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা

সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ ও হাঁসের খামার করে স্বাবলম্বী বরগুনার মোর্শেদা বেগম

সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ ও হাঁসের খামার করে স্বাবলম্বী বরগুনার মোর্শেদা বেগম

এক সময়ে হতাশায় ডুবে থাকা বরগুনার মোর্শেদা বেগম, এখন এলাকার নারীদের কাছে আদর্শ। ৯ বছর আগে বিবাহ বিচ্ছেদের পর কঠিন হয়ে পারে তার জীবন। এরপর সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ নিয়ে বাড়িতেই শুরু করেন দর্জি কাজ। করেন হাঁসের খামারও। এখন তার কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেক নারী হচ্ছেন স্বাবলম্বী।

বরগুনার মনসাতলী গ্রামের মোর্শেদা বেগম। ৯ বছর আগে বিবাহ বিচ্ছেদের পর কন্যা সন্তানকে নিয়ে এক কঠিন জীবনে পা দেন।

তারপরও দমে যাননি তিনি নিজের একাগ্রতা আর পরিশ্রমে ভর করে এগিয়ে চলেন। সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ নিয়ে বাড়িতেই শুরু করেন দর্জির কাজ। শুধু তাই নয়, একটি বেসরকারি সংস্থার সহযোগিতায় ১৫টি হাঁস নিয়ে করেন খামার।

মোর্শেদা বেগম বলেন, আমি স্বামীর বাড়ি থেকে আসার পর তার সাথে ডিভোর্স হয়ে যায়। তারপর এই ৯ বছর আমি বাবার বাড়িতে, বাবার কাছি ছিলাম  আমি ভারী বোঝার মতো তারপর মেয়ে নিয়ে চলতে আমার কষ্ট হতো।

গ্রামের অন্যসব নারীদের কাছে, মোর্শেদা এখন আদর্শ। তার কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেকে হয়েছেন স্বাবলম্বী।

বরগুনার জাগোনারীর প্রধান নির্বাহী হোসনেআরা হাসি বলেন, আমাদের দেশে অনেক কর্মক্ষম নারী আছেন যারা একটু সহযোগিতা পেলে ঘুরে দাড়াতে পারে তার উদাহারণ আমাদের আজকের এই মোর্শেদা বেগম। নারীদের একটু আর্থিক সহযোগিতা এবং পরিবার থেকে সাপোর্ট পেলে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারে।   

এক সময়ের যার মাথা গোঁজার ঠাই ছিলনা, এখন সেই মোর্শেদা তার বাবা-মায়ের ভরণপোষণ চালাচ্ছেন। মেয়েকে পড়ালেখা করিয়ে সুন্দর ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখছেন।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর