channel 24

সর্বশেষ

  • আল্লামা শফী মারা গেছেন

  • মানিকগঞ্জে শ্রমিক জুলহাসকে পায়ুপথে বাতাস দিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা

  • বাশের চেয়ে কঞ্চি বড়!

  • নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত ১

  • মাগুরায় দুই বাস-মাইক্রোবাসের ত্রিমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪

  • রংপুরে একই বাড়ি থেকে দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

  • বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সফর: বিসিবির চিঠির উত্তর দেয়নি এসএলসি

  • ক্রিকেটারদের দ্বিতীয় ধাপের করোনা পরীক্ষা শুরু

  • পচাত্তরের কুশীলবরা এখনো আশপাশে ওৎ পেতে আছে: শ ম রেজাউল

  • দেশে করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্য, শনাক্ত ১৫৪১

  • ইসরায়েলের সাথে আরব রাষ্ট্রের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার উদ্যোগের প্রতিবাদ

  • পেঁয়াজের দামে লাগাম টানার চেষ্টা, বিভিন্ন বাজারে অভিযান

  • পা হারালেও মনোবল হারাননি ইউনুছ, অটোরিকশা চালিয়ে হাল ধরেছেন সংসারের

  • ঢাকা শহরে কোনো অবৈধ বিলবোর্ড থাকবে না: মেয়র আতিক

  • দুর্গা পূজায় সরকারি ছুটি ৩ দিন করার দাবি হিন্দু মহাজোটের

বিপাকে নাটোরের চলন বিল ও হালতি বিলের কৃষকরা

বিপাকে নাটোরের চলন বিল ও হালতি বিলের কৃষকরা

সোতি জাল বিড়ম্বনায় নাটোরের চলন বিল ও হালতি বিলের কৃষকরা। জলাবদ্ধতায় চাষ করা যাচ্ছে না প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমি। অনিশ্চয়তায় বোরো আবাদ। সমস্যা সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপের দাবি স্থানীয়দের। যদিও প্রশাসনের পক্ষ থেকে শোনানো হচ্ছে আশার বাণী।

উত্তরাঞ্চলের শষ্য ভান্ডার খ্যাত নাটোরের চলন বিল ও হালতিবিলে এখন অথৈ পানি। বোরো মৌসুমের এ সময়ে সোতি জাল দিয়ে প্রভাবশালীরা জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করায় পানি আটকে রয়েছে।

প্রভাবশালীদের মাছ ধরার মহোৎসবে মহাবিপদে পড়েছেন কৃষকরা। সময় পেরিয়ে গেলেও চাষীরা তৈরি করতে পারছেন না বোরো বীজতলা। বছরের একমাত্র ফসল আবাদ নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

স্থানীয়রা বলেন, প্রশাসনের লোকজন ভেঙ্গে দিয়ে আসলেও রাতারাতি আবার ওখানে সোতিগুলো দিয়ে ফেলে। পানি নেমে যাবার জায়গায় বিশাল বড় একটা বাঁধার সৃষ্টি করে রেখেছে। কবে বিজতোলা তুলবো কবে লাগাবো জানি না। আবার দেরিতে ধান হলে বন্যার পানিতে ধান নষ্ট হবার সম্ভাবনা আছে। আমরা সরকারে দ্রুত দৃষ্টি আকর্ষন করছি যেন অল সময়ের ভিতর আমাদের এই সংস্কার করে দেয়।

বোরো আবাদ নিয়ে সংশয়ে খোদ কৃষি বিভাগও। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নিলেও কাজ হয়নি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সুব্রত কুমার সরকার বলেন, যদি অপসারণ করতে দেরি হয় তবে, সেখানে পানি নামার পরিমাণ কমে যাবে এবং বিলের তলাতে বেশ কিছ্য হেক্টর জমিতে বোরো চাষ বিলম্বিত হওয়ার এবং বাধাগ্রস্থ হবার সম্ভাবনা আছে।

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল আলম বলেন, জেলাপ্রশাসনের এই অভিযান চলছে এবং চলবে। আমরা আশা করছি যে অতি শীঘ্রই আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নাটোর জেলাতে যত সুতি জাল আছে আমরা অপসারণ করতে সক্ষম হব।

স্থানীয়রা মনে করেন, সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের পদক্ষেপের পাশাপাশি দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছাও।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর