channel 24

সর্বশেষ

  • ফের উত্তপ্ত নির্বাচন কমিশন, কর্তৃত্ব নিয়ে সিইসি-কমিশনারদের বাকবিতণ্ডা

  • পাকিস্তানে ফিরলো টেস্ট ক্রিকেট

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মুখোমুখি বায়ার্ন মিউনিখ-টটেনহ্যাম

  • আইসিজেতে মামলার এখতিয়ার নেই গাম্বিয়ার: মিয়ানমারের আইনজীবী

  • রাজ্যসভায়ও নাগরিকত্ব বিল পাশ; অগ্নিগর্ভ আসাম-ত্রিপুরায় সেনা মোতায়েন

  • বিজয়ীর বেশে দেশে ফিরলো দশ স্বর্ণজয়ী আর্চারি দল

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য রিপোর্ট সুপ্রিম কোর্টে জমা; জামিন শুনানি কাল

  • গরু ছাগল চিনলেই চালক, দায়িত্বশীলদের কথা এমন হতে পারে না: হাইকোর্ট

  • আখাউড়া সীমান্তে নারী ও শিশুসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক

  • বনানীতে মাটি চাপা অবস্থায় চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

  • চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

  • কেরানীগঞ্জে অগ্নিদগ্ধ ৩৩ জন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি, কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

  • খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ঘিরে আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

  • ইলিয়াস কাঞ্চনের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের আন্দোলন নোংরামি: হাইকোর্ট

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতা দমাতে পারেনি দুই ভাই-বোনকে

নেশার পথ ছেড়ে মাদকবিরোধী আন্দোলনে মাসুম

নেশার পথ ছেড়ে মাদকবিরোধী আন্দোলনে মাসুম

নেশার পথ ছেড়ে মাদকবিরোধী আন্দোলনে পাবনার ঈশ্বরদীর মাসুম পারভেজ কল্লোল। তার কারণে মাদক ছেড়ে সুন্দর স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন অনেকে। এলাকায় কমেছে নেশার ভয়াবহতাও। মাসুমকে অনুসরণ করে মাদকবিরোধী আন্দোলনে সামিল হচ্ছেন অনেক যুবক।

পারভেজ কল্লোল এক সময় বুঁদ হয়ে থাকতেন মরণ নেশায়। দুর্বিষহ করে তুলেছিলেন পরিবারের সদস্যদের জীবন।  

সচ্ছল পরিবারের সন্তান মাসুম স্কুল জীবনে খেলাপড়ায় ভালো ছিলেন। করতেন সংগীত চর্চাও। কিন্তু ১৯৯৪ সালে হঠাৎ-ই ঘটে ছন্দপতন। জড়িয়ে পড়েন মাদকের নেশায়।

পারভেজ কল্লোল জানান, একদম শখের বশে বন্ধুদের সাথে মাধক গ্রহন করেছি। কিন্তু তার অবস্থা সত্যিই ভয়াবহ। তারপর অনেকবার ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টা করি।
 
সুমতি ফেরে ২০০২ সালে মাদকাসক্ত এক বন্ধুর মৃত্যু দেখে। বেরিয়ে আসেন অন্ধকার জগত থেকে। সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নিজেই শুরু করেন মাদকবিরোধী প্রচারণা। গড়ে তোলেন `মাদককে না বলি' নামের একটি সংগঠনও। তার অনুপ্রেরণায় মাদক ছেড়েছেন অনেকেই।
 
পারভেজ বলেন, শিলু আমার খুব কাছের বন্ধু ছিল। ও মাদক সেবন করতো। শিলুর মৃত্যু আমাকে খুব নাড়া দিয়েছে। সেখান থেকে এই চেতনাটা আসে, আর না।

মাসুমের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয়রা। বলছেন, তার প্রচারণায় মাদকের ভয়াবহতা অনেকখানি কমেছে ঈশ্বরদীতে। এলাকায় এখন আর আগের মতো নেশাগ্রস্থ কাউকে দেখা যাচ্ছে না।

এলাকাবাসী বলছেন, মাদকবিরোধী প্রচারণায় নেশা ছেড়ে এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন অর্ধশতাধিক মানুষ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর