channel 24

সর্বশেষ

  • বিমান পাঠিয়ে চীন থেকে আনা হচ্ছে টিকা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • গণপরিবহন চালু হওয়ায় ক্রেতা উপস্থিতি বেশি শপিংমলে

  • রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ নিয়ে ছাত্রলীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ

  • দেশে ফিরলেন সাকিব-মোস্তাফিজ, থাকতে হবে কোয়ারেন্টিনে

  • উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধ না হলে চীনা পণ্য বয়কটের ঘোষণা

  • সাকিব-মোস্তাফিজের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

  • ঢাবির জিয়া হলে 'হ্যান্ডেলিং চার্জ' নামে অদ্ভুত ফি আদায়

  • খননকৃত নৌপথ প্রতি বছর ড্রেজিং করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার আবেদন আইন মন্ত্রণালয়ে

  • রুশ টিকা বানাতে চায় ওরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালস

  • খুলনায় নদীতীর ও খাসজমি দখল করে ইটভাটা তৈরি

  • আইসিইউ থাকলেও তালাবদ্ধ, চালু হয়নি সেন্ট্রাল অক্সিজেন

  • করোনার প্রভাবে বগুড়ার জালি টুপি শিল্পে স্থবিরতা

  • ঈদের ছুটিতে চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার জটের শঙ্কা

  • খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে সরকার ইতিবাচক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ৭ মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন দেড় শতাধিক। এমন তথ্য দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক মামলা। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য বলছে, গত সাত মাসে ধর্ষণের অভিযোগে হাসপাতালে এসেছেন শিশু, কিশোরী ও প্রতিবন্ধীসহ ১৬৭ জন। কিন্তু মেডিকেল পরীক্ষায় মাত্র পাঁচ ভাগের শরীতে ধর্ষণের আলামত মিলেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো: শাহ আলম বলেন, সময় মতো হাসপাতালে না আসায় অনেক ক্ষেত্রে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। এতে করে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে প্রকৃত অপরাধীরা। এছাড়া প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি না হওয়ায় এ ধরনের অপরাধ বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মামলা করেও প্রতিকার পাচ্ছেন না তারা। উল্টো নানা সময়ে তাদেরকে হুমকি ধমকি দিচ্ছে অভিযুক্তরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর বলছেন, অনেক সময় প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না। ফলে জেলায় বাড়ছে নারীর প্রতি সহিংসতা।

জেলায় নারী বা শিশু নির্যাতন বাড়ার কথা স্বীকার করে পুলিশ সুপার মো: আনিসুর রহমান বলেন, এসব ঘটনায় প্রশাসন সজাগ রয়েছে। অভিযোগ পাওয়া মাত্রই গুরুত্বসহকারে অভিযুক্তকে চিন্হিত করার ক্ষেত্রে প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট বলে জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার।  

তবে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের অনেক মামলাই হয় ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের জেরে। ফলে প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি অনেকের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর