channel 24

সর্বশেষ

  • দেশে করোনায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩২০

  • চলতি বছর রেমিট্যান্স প্রবাহে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান অষ্টম

  • ৩৩ বছরেও চালু হয়নি বগুড়া বেতার কেন্দ্র

  • ৬শ’র বেশি ধর্ষণ মামলায় জট, বিপাকে ভুক্তভোগিরা

  • চট্টগ্রামে রহস্যজটে মাদ্রাসা শিক্ষকের মৃত্যু

  • মানবদেহে সীসা দূষণের প্রধান উৎস সীসাযুক্ত পেইন্ট

  • সম্মিলিত চেষ্টায় দারিদ্র্য জয় সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী

  • বেশি দামে আলু বিক্রির অভিযোগে রাজধানীতে র‍্যাবের অভিযান

  • আগামীকাল থেকে সুন্দরবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হচ্ছে

  • বাগান থেকে কাঁথায় মোড়ানো নবজাতক উদ্ধার

  • গ্রাম্য সালিশে মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা

  • তুরস্ক ও গ্রিসে শক্তিশালী ভূমিকম্পে প্রাণহানি বেড়ে ২৬

  • ফ্রান্সে মহানবীকে অবমাননা: ইতালিতে বাংলাদেশিদের বিক্ষোভ

  • পরের ৩ ম্যাচে নেইমারকে পাবে না পিএসজি

  • অবশেষে করোনামুক্ত ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ৭ মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন দেড় শতাধিক। এমন তথ্য দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক মামলা। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য বলছে, গত সাত মাসে ধর্ষণের অভিযোগে হাসপাতালে এসেছেন শিশু, কিশোরী ও প্রতিবন্ধীসহ ১৬৭ জন। কিন্তু মেডিকেল পরীক্ষায় মাত্র পাঁচ ভাগের শরীতে ধর্ষণের আলামত মিলেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো: শাহ আলম বলেন, সময় মতো হাসপাতালে না আসায় অনেক ক্ষেত্রে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। এতে করে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে প্রকৃত অপরাধীরা। এছাড়া প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি না হওয়ায় এ ধরনের অপরাধ বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মামলা করেও প্রতিকার পাচ্ছেন না তারা। উল্টো নানা সময়ে তাদেরকে হুমকি ধমকি দিচ্ছে অভিযুক্তরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর বলছেন, অনেক সময় প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না। ফলে জেলায় বাড়ছে নারীর প্রতি সহিংসতা।

জেলায় নারী বা শিশু নির্যাতন বাড়ার কথা স্বীকার করে পুলিশ সুপার মো: আনিসুর রহমান বলেন, এসব ঘটনায় প্রশাসন সজাগ রয়েছে। অভিযোগ পাওয়া মাত্রই গুরুত্বসহকারে অভিযুক্তকে চিন্হিত করার ক্ষেত্রে প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট বলে জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার।  

তবে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের অনেক মামলাই হয় ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের জেরে। ফলে প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি অনেকের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর