channel 24

সর্বশেষ

  • কাজের মেয়ে ভয়ংকর!

  • পঞ্চম দফায় ৩১ পৌরসভায় ভোট ২৮ ফেব্রুয়ারি

  • খুলনা বিভাগীয় শ্রেষ্ঠ জয়িতা রোকেয়া বেগম

  • সিলেটে ভরা মৌসুমেও সবজির দাম চড়া

  • চার বছরই সমালোচনার শীর্ষে ছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

  • ক্যান্সার ও হৃদরোগে কার্যকরী সূর্যমুখীর তেলবীজ

  • নতুন নতুন পন্থা বেছে নিচ্ছে অপহরণকারীরা

  • মৌলভীবাজারে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে হামলা

  • অর্থনৈতিক উন্নতিতে সম্ভাবনাময় ফসল মাশরুম

  • ফ্রি ট্রান্সফার ফিতে এসি মিলানে মারিও মানজুকিচ

  • জুনের মধ্যে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে চায় বাংলাদেশ

  • সুস্মিতা সেনের আগমনে হুগলী জেলায় খুশির জোয়ার

  • মেহেরপুরের গাংনীতে অবৈধ ইটভাটায় অভিযান

  • রাজশাহীতে মোটরসাইকেলের কাগজপত্র চাওয়ায় সার্জেন্টকে পিটিয়ে জখম

  • কীর্তনখোলাসহ দেশের সব নদী দখল মুক্ত করা হবে: নৌপ্রতিমন্ত্রী

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ৭ মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন দেড় শতাধিক। এমন তথ্য দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক মামলা। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য বলছে, গত সাত মাসে ধর্ষণের অভিযোগে হাসপাতালে এসেছেন শিশু, কিশোরী ও প্রতিবন্ধীসহ ১৬৭ জন। কিন্তু মেডিকেল পরীক্ষায় মাত্র পাঁচ ভাগের শরীতে ধর্ষণের আলামত মিলেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো: শাহ আলম বলেন, সময় মতো হাসপাতালে না আসায় অনেক ক্ষেত্রে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। এতে করে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে প্রকৃত অপরাধীরা। এছাড়া প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি না হওয়ায় এ ধরনের অপরাধ বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মামলা করেও প্রতিকার পাচ্ছেন না তারা। উল্টো নানা সময়ে তাদেরকে হুমকি ধমকি দিচ্ছে অভিযুক্তরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর বলছেন, অনেক সময় প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না। ফলে জেলায় বাড়ছে নারীর প্রতি সহিংসতা।

জেলায় নারী বা শিশু নির্যাতন বাড়ার কথা স্বীকার করে পুলিশ সুপার মো: আনিসুর রহমান বলেন, এসব ঘটনায় প্রশাসন সজাগ রয়েছে। অভিযোগ পাওয়া মাত্রই গুরুত্বসহকারে অভিযুক্তকে চিন্হিত করার ক্ষেত্রে প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট বলে জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার।  

তবে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের অনেক মামলাই হয় ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের জেরে। ফলে প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি অনেকের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর