channel 24

সর্বশেষ

  • টিকা নেয়ার পরও আক্রান্ত, ২৭ দেশে ওমিক্রন শনাক্ত

  • গ্যাস সিলিন্ডারে দগ্ধ ভাই-বোন মারা গেছেন

  • অভিমানে চেয়ারম্যানের দেয়া উপহার আগুনে পোড়ালেন সমর্থক

  • বিজয় দিবসে দেশব্যাপী শপথ বাক্য পাঠ করাবেন প্রধানমন্ত্রী

  • করোনার টিকা নিতে হবে টানা কয়েক বছর: ফাইজার প্রধান

  • চার বছর পর হিলি দিয়ে কয়লা আমদানি শুরু

  • নারী কেলেঙ্কারি: নাচোলের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার

  • টাঙ্গাইলে দক্ষিণ আফ্রিকাফেরত ৬ প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টিনে

  • নির্ধারিত সময়ে ২৭ শতাংশ আয়কর রিটার্ন জমা

  • এবার মার্কিন পুলিশের গু লিতে প্রাণ হারালেন হুইলচেয়ারে বসা বৃদ্ধ

  • বাবরের একাদশে পাকিস্তানের চেয়ে ভারতের ক্রিকেটার বেশি

  • চাকরি দিচ্ছে বিকেএসপি

  • দাউদাউ করে জ্বলছে বিয়েবাড়ি, খেয়েই চলেছেন নিমন্ত্রিতরা (ভিডিও)

  • ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

  • অভিবাসী প্রেরণে বিশ্বে ষষ্ঠ, রেমিটেন্স গ্রহণে অষ্টম বাংলাদেশ

দৃশ্যমান হলো বঙ্গবন্ধু টানেলের দুই টিউবের মুখ

দৃশ্যমান হলো বঙ্গবন্ধু টানেলের দুই টিউবের মুখ

করোনাসহ নানা চ্যালেঞ্জ ছিল। সবকিছু ডিঙিয়ে দৃশ্যমান হলো দ্বিতীয় টিউবের মুখ। সেইসঙ্গে দুটি টিউবের মাধ্যমে মিলল কর্ণফুলী নদীর দু'পাড়। 

দেশের যোগাযোগ অবকাঠামো খাতে আরও একটি বড় সুখবর। নানা চড়াই-উতরাই শেষে স্থাপিত হলো কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে দু'পাড়ের বহু কাঙ্ক্ষিত সংযোগ।

দ্বিতীয় টিউব খনন শেষ হওয়ার মাধ্যমে সম্পন্ন হয় মূল অবকাঠামোর কাজ। বঙ্গবন্ধু টানেলের এই দ্বিতীয় টিউবের কাজ শেষ করতে সময় লেগেছে অন্তত দশ মাস। এর আগে গেল বছরের আগস্টে শেষ হয় প্রথম টিউবের খনন কাজ। দুই লেনের প্রতিটি টিউব খনন করা হয়েছে নদীর তলদেশ থেকে ১৮ থেকে ৩১ মিটার গভীরতায়। সব মিলে পুরো কাজের শেষ হয়েছে ৭৩ শতাংশ।

আরও পড়ুন: ঠেকানো যাচ্ছে না চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ সন্ত্রাস

প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশিদ চৌধুরী জানান, যেহেতু দুইটি টিউবের মধ্যে আন্তঃসংযোগ এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এবং এটার উপর নির্ভর করছে প্রকল্প নির্ধারিত সময়ে শেষ করা যাবে কিনা। তবে আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করব, প্রকল্প যথাসময়ে শেষ করার।

এই প্রকল্পে ৩৫ ফুট চওড়া ও ১৬ ফুট উচ্চতার ২ দশমিক তিন পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ দুটি টিউব ছাড়াও নদীর দু'পাড়ে সংযোগ সড়ক থাকছে ৫ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার। থাকছে সেতু-কালভার্ট।

বলা হচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম এই টানেল দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে খুলে দেবে সারাদেশের যোগাযোগের নতুন দুয়ার। তবে পুরোপুরি সুফল পেতে টানেল সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কাজও ঠিকমতো শেষ করার ওপর জোর দেন ব্যবসায়ীরা। 

এই টানেল নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ১০ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। যার বড় একটি ইতিবাচক দিক হচ্ছে, দেশের অন্যান্য মেগা প্রকল্পের ব্যয় ও সময় বাড়লেও কোনোটাই বাড়াতে হয়নি টানেল প্রকল্পের।

কর্তৃপক্ষের আশা, আগামী বছর ডিসেম্বরের আগেই যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত হবে দেশের প্রথম বঙ্গবন্ধু কর্ণফুলী টানেল। 

একেএম/এইউ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর