channel 24

সর্বশেষ

  • যশোর শিক্ষাবোর্ডের দুর্নীতির প্রমাণ লোপাটের আশঙ্কা

  • বাণিজ্য-বিনিয়োগ খাতে সহযোগিতা বাড়াতে সম্মত বাংলাদেশ-বেলজিয়াম

  • দেড় কোটি টাকায় বিক্রি হলো হুররাম সুলতান

  • প্রার্থী হয়ে লাউয়ের বীজ বিলাচ্ছেন লাল

  • সংবিধানে মুক্তিযুদ্ধ ও বীর মুক্তিযোদ্ধার বিষয় যুক্ত করতে রিট

  • দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে ধাক্কা দিলো ট্রেন

  • নরসিংদীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সং ঘর্ষে নি হ ত ২

  • মুসলিম থেকে হিন্দু হলেন ইন্দোনেশিয়ার জাতির জনকের মেয়ে

  • বাংলাদেশ ম্যাচের আগে শক্তি বাড়াল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

  • আরিয়ানের তদন্তকারী সমীরের বিরুদ্ধে ঘুষের অভিযোগ

  • আবাসিক হোটেল থেকে ঢাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত ম র দে হ উদ্ধার

  • গুনে গুনে পাঁচ গোল হজম করল বায়ার্ন মিউনিখ

  • আরিয়ান-কাণ্ডে নতুন মোড়: অন্যতম সাক্ষী কিরণ গোসাভি আটক

  • প্রেমে ব্যর্থ হয়েই সুমাইয়াকে খুন করে মনির

  • স্ত্রীর ইচ্ছাপূরণে ১৯ লাখ টাকার গহনা দান করে দিলেন স্বামী

কক্সবাজারে সংরক্ষিত বনে সরকারি ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা

কক্সবাজারে সংরক্ষিত বনে সরকারি ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা

সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য আরেকটি প্রশিক্ষণ একাডেমি হচ্ছে কক্সবাজারে। এজন্য বরাদ্দ হয়েছে সংরক্ষিত বনের ৭০০ একর ভূমি। কিন্তু পরিবেশকর্মীদের দাবি, এখানে স্থাপনা হলে মারাত্মক হুমকিতে পড়বে পরিবেশ। স্থাপনা নির্মাণে আপত্তি আছে বন বিভাগেরও।

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাশে ঝিংলজা মৌজার শুকনাছড়ি। যেখানে দিগন্ত বিস্তৃত বন। সংরক্ষিত এ বনে বিচরণ করে বিপন্ন এশীয় প্রজাতির হাতি, বানরসহ নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণি। সেইসঙ্গে আছে মূল্যবান সব গাছ।

সংরক্ষিত এ বনের ৭০০ একরজুড়েই গড়ে তোলার কথা সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য বঙ্গবন্ধু একাডেমি অব পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। তবে জায়গাটির বাজারমূল্য ৪ হাজার কোটি টাকার বেশি হলেও ভূমি মন্ত্রণালয় বরাদ্দ দিয়েছে মাত্র ১ লাখ টাকায়। তাছাড়া এটা শতবছরের পুরোনো প্রাকৃতিক বন হলেও বরাদ্দ নেয়ার সময় দেখানো হয় অকৃষি খাসজমি হিসেবে।

আরও পড়ুন: পুরুষের দখলে নারী উদ্যোক্তাদের মার্কেট

তবে এমন একটি জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ বনে স্থাপনা নির্মাণ নিয়ে ঘোর আপত্তি আছে পরিবেশকর্মীদের। তারা বলছেন, এটি এমনিতেই পরিবেশ সংকটাপন্ন এলাকা। তাই সেখানে স্থাপনা হলে পরিবেশের পাশাপাশি নেতিবাচক প্রভাব পড়বে পর্যটন শিল্পের ওপর।

সরকারি একাডেমি হবে তাই উচ্ছেদ করা হবে কয়েকশ পরিবার। এজন্য তালিকাও প্রস্তুত। তবে পরিবারগুলোর দাবি, জলবায়ু উদ্বাস্তু হিসেবে বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এখানে থাকছে তারা।

জানা গেছে, বন্দোবস্তযোগ্য নয় বলে এ বনে স্থাপনা নির্মাণ নিয়ে আপত্তি আছে বন বিভাগের। কিন্তু প্রকল্প নেয়ায় তাদের কোনও অনাপত্তিও নেয়নি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। তবে এসব বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক ও দক্ষিণ বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা।

একেএম/ডি

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর