channel 24

সর্বশেষ

  • খুলনা জেনারেল হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য চালু হচ্ছে ৭০ শয্যা

  • তামাকের ন্যায্যমূল্যসহ ৬ দফা দাবি তামাক চাষী ও ব্যবসায়িক সমিতির

  • চাঁদপুর সদর থেকে অজগরসহ ৮টি বন্যপ্রাণি উদ্ধার

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৩টি স্থানে পশুর হাট বসবে: তাপস

  • কোরবানির ঈদ সামনে রেখে গাজীপুর পুলিশ সুপারের সভা

  • নবম বাংলাদেশি হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে শতক মিজানুরের

  • সেনাসদস্য মুকুলের মৃত্যুতে নবনিযুক্ত সেনাপ্রধানের শোক

  • ৭ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বসিকের সাবেক মেয়র কামাল জামিনে মুক্ত

  • পদ্মার পানিতে বিলীন পাটুরিয়া ২নং ঘাট, হুমকিতে বাকি চারটিও

  • মৌলভীবাজারে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে ইমাম কারাগারে

  • পরীমণি ইস্যুতে উত্তপ্ত সংসদ

  • কমেছে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর, কৃত্রিম জলাধারে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের উদ্যোগ

  • পচা গম মিশিয়ে কুষ্টিয়ায় উৎপাদন হচ্ছে আটা-ময়দা

  • দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ৫৩ হাজার গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে ভূমিসহ ঘর

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটন স্পট খুলে দেয়ার দাবি ব্যবসায়ীদের

চট্টগ্রামে ৩ বছরেও পিসি রোডের সংস্কার শেষ করেননি ঠিকাদার, নরকযন্ত্রণায় স্থানীয়রা

চট্টগ্রামে ৩ বছরেও পিসি রোডের সংস্কার শেষ করেননি ঠিকাদার, নরকযন্ত্রণায় স্থানীয়রা

এ যেন নরকযন্ত্রণা। একদিকে ভাঙ্গা আর ব্যবহার অনুপযোগী সড়ক। সাথে ৩ বছর ধরে চলা সংস্কারকাজ শেষ না হওয়ার বিড়ম্বনা। চট্টগ্রাম নগরীর পোর্ট কানেকটিং রোডের দুরাবস্থায় বিঘ্নিত, দেশের প্রধান সমুদ্র বন্দরের আমদানি-রপ্তানি পণ্য পরিবহন। এজন্য চসিক প্রশাসক দুষছেন ঠিকাদার নিয়োগে অনিয়মকে। তার মুখেই উঠে এলো আলোচিত টেন্ডারবাজ জি কে শামিমের কথা। যিনিই অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করেছেন পিসি রোডের দরপত্র।

বন্দরসহ নানা অর্থনৈতিক কারণে চট্টগ্রাম নগরীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পোর্ট কানেকটিং বা পিসি রোড। তবে এই সড়কে চলাচলে কষ্টের শেষ নেই মানুষের। কেননা ৩ বছরেও শেষ হয়নি সংস্কারকাজ। বাকি আছে নর্দমা তৈরিও। এমনকি সড়কের কোনো কোনো অংশে হাতই লাগেনি এখনো। সড়কের কোথাও একপাশে কোনভাবে চলছে যানবাহন। অন্যপাশে উন্নয়নকাজ। তবে তা দীর্ঘায়িত হওয়ায় ধূলোবালিতে নাকাল ব্যবসা-বাণিজ্য আর স্থানীয়দের বসবাস।

সড়কটির সবচেয়ে নাজুক অবস্থা আনন্দপুর গেইট থেকে কলকা সিএনজি স্টেশন পর্যন্ত। গেলবছরের নভেম্বরে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ম্যাক ওই অংশের কাজ শুরু করলেও অগ্রগতি সামান্যই।

ম্যাকের স্বত্ত্বাধীকারী মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী বলেন, 'গতবছর বৃষ্টি এবং লকডাউনের জন্য আমরা কাজ করতে পারিনি।'

মোট ৪টি প্রতিষ্ঠান পিসি রোডের সংস্কারকাজের দায়িত্ব পায়। যাদের অন্যতম নিমতলা থেকে আনন্দিপুর পর্যন্ত কাজ পাওয়া রানা বিল্ডার্স-সালেহ আহমদ জেভি। তাদের কাজ পাবার পেছনে ছিল আলোচিত ঠিকাদার জি কে শামিমের কারসাজি এমন অভিযোগ প্রসাশকের। 

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেন, 'সব দুর্গতির মূলে হল জি কে শামীমের কারসাজি। এরা টাকা দিয়ে রোডের কন্টার্ক্ট নিয়ে সাব কন্টার্ক্টারদের দেয়।'

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয় পিসি রোডের সংস্কারকাজ। যাতে ব্যয় ধরা হয় ১৬৮ কোটি টাকা। সড়কটির দুপাশে বাস করে ৪ থানার কয়েকলাখ মানুষ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর