channel 24

সর্বশেষ

  • করোনার হানায় স্থগিত যুব দলের ক্যাম্প

  • ৩৬ সদস্যের বাংলাদেশ ফুটবলের প্রাথমিক দল ঘোষণা

  • প্রেসিডেন্টস কাপে কাল তামিমের বাঁচা-মরার লড়াই

  • সম্রাটের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র মামলায় চার্জ গঠন ৩০ নভেম্বর

  • বিশ্বে এক একর জায়গার মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষের বসবাস লালবাগে

  • এজেন্ট না দিয়ে ভোটকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করে বিএনপি: কাদের

  • পেয়ারা ও পেঁপে বাগান করে স্বাবলম্বী প্রতিবন্ধী কৃষক এরশাদ

  • পাবনার চলনবিলে চলছে শামুক নিধনের মহোৎসব

  • যন্ত্রের সাহায্য ঘরে বসেই তৈরি করুন মজাদার চিপস

  • রায়হান হত্যার বিচারের দাবিতে উত্তপ্ত সিলেট, বিক্ষোভের মুখে পুলিশের গাড়ি

  • দেশে করোনায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু

  • চট্টগ্রামে ১১টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন, চলছে গণণা

  • দেশে নির্বাচন ব্যবস্থা পুরোপুরি ভেঙে গেছে: ফখরুল

  • ঢাবিতে অনলাইনে নয়, সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা

  • রাঙ্গামাটিতে দুর্বৃত্তের গুলিতে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের নেতা খুন

ভূমি অধিগ্রহণে পুকুরচুরি: ক্ষতিপূরণের অর্থ লোপাটে জড়িত দেড় থেকে ২শ' জন

ভূমি অধিগ্রহণে পুকুরচুরি: ক্ষতিপূরণের অর্থ লোপাটে জড়িত দেড় থেকে ২শ' জন

কক্সবাজারে ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণের অর্থ হাতিয়ে নেয়ার চক্রটিতে রয়েছে দেড় থেকে ২শ জন। চক্রটিকে আছেন রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি, আইনজীবী আর সাংবাদিক। যাদের সবার ব্যাপারেই অনুসন্ধান চালাচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

কক্সবাজারে উন্নয়ন প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণে যে পুকুরচুরি, তা অনেকটা কেঁচো খুঁড়তে সাপ বেরিয়ে আসার মতো ঘটনা।

গেল ১৯ ফেব্রুয়ারি শহরের বাহারছড়া এলাকা থেকে অবৈধ লেনদেনের সময় প্রায় ১ কোটি টাকা আর ১১ বস্তা আলামতসহ জেলা প্রশাসনের সার্ভেয়ার ওয়াসিম খানকে আটক করে র‍্যাব। ওই ঘটনায় ১০ মার্চ মামলা করে দুদক। পরে আটক হয় দালাল সেলিম, সালাউদ্দিন আর কামরুদ্দিন। তাদের জবানিতে বেরিয়ে আসে দেড় থেকে ২শ' জনের জড়িত থাকার তথ্য।

স্থানীয় একটি হোটেলে অভিযান চালিয়ে হোসেন নামের এক দালালের কাছ থেকে ভূমি অধিগ্রহণ আবেদনের মূল নথি জব্দ করা হয়। অন্যজায়গায় তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয় ক্ষতিপূরণের ২ হাজার আবেদনপত্র আর ডিসিআরসহ বিভিন্ন আলামত। যা থাকার কথা জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায়।

বড় ধরনের আর্থিক এই কেলেংকারিতে নাম আসা এবং সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের সম্পদের খোঁজ-খবর নিতে শুরু করেছে দুদক। এরইমধ্যে ৪ জনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

অনুসন্ধান থেকে জানা যায়, কক্সবাজারে ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হয় মূলত ২০১২-১৩ সালে। ১৫-১৬ সালে তা জোরদার হলে এ কাজের দায়িত্ব দেয়া হয় ২ জন ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা, ১জন কানুনগো আর ২ জন সার্ভেয়ারকে। তারাই বিভিন্ন পেশার লোকজন নিয়ে গড়ে তোলেন একটি চক্র। এরমধ্যে বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে, মেগা উন্নয়নের ভূমি অধিগ্রহণের বিষয়টি দেখভাল করা যার দায়িত্ব, কক্সবাজারে নেই সেই এডিসি-এলএ পদই। ফলে এডিসি-রাজস্বই অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে নানা জটিলতা।

দুদক জানিয়েছে, ইতোমধ্যে একশজনের খোঁজ মিলেছে। যারা এই আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িত। যাদের মধ্যে রয়েছে জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, আইনজীবী আর কয়েকজন গণমাধ্যম কর্মীও।

বিস্তারিত দেখুন ভিডিও লিংকে:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর