channel 24

সর্বশেষ

  • চট্টগ্রাম ওয়াসায় আগুন পুড়ে গেছে কাগজপত্র ও আসবাব

  • আবারো ক্ষোভে ফুসছেন মার্কিনিরা

  • দেশে ২ লাখ ৭ হাজার দ্বৈত ভোটার শনাক্ত

  • পেঁয়াজের বাড়তি দাম খাতুনগঞ্জে

  • খাগড়াছড়িতে কমান্ডারকে হত্যার দায়ে আনসার সদস্যের মৃত্যুদণ্ড

  • চট্টগ্রামে ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত ৬৩

  • আলোচনায় ৭৫ বছরের জাতিসংঘকে ঢেলে সাজানো

  • কুষ্টিয়ায় ওএমএসের চাল আত্মসাৎ, ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

  • নির্ধারিত সময়ে শ্রীলঙ্কা যাওয়া হচ্ছে না বাংলাদেশের

  • মাতারবাড়ী সমুদ্র বন্দর নির্মাণ প্রকল্পে জাপানি পরামর্শক নিয়োগ

  • চালের দাম বৃদ্ধিতে মিলারদের সিন্ডিকেট দায়ী, দাবি পাইকারি বিক্রেতাদের

  • গোপন বৈঠক ও ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই, বিএনপিকে কাদের

  • দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকায় মানবেতর দিন কাটাচ্ছে জাবি'র দোকান মালিকরা

  • ঢাবি শিক্ষার্থীদের কল্যাণে নতুন নতুন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে: এ কে আজাদ

  • হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে চালু হল হিমঘর

ওসি প্রদীপের কুকর্ম নিয়ে একে একে মুখ খুলছেন অনেকে

ওসি প্রদীপের কুকর্ম নিয়ে একে একে মুখ খুলছেন অনেকে

ভয়ে এতদিন মুখ না খুললেও এখন বেরিয়ে আসছে ওসি প্রদীপ ও তার সহযোগীদের নানা অপকর্মের খবর। উখিয়ার বখতিয়ার নামে এক ইউপি সদস্যকে বাসা থেকে ধরে নিয়ে ক্রসফায়ার দেন প্রদীপ। এতে তাকে সহযোগীতা করেন উখিয়ার ওসি মর্জিনা আক্তার।

বখতিয়ার ভাই, একটু বের হবেন? একজন মানুষকে শনাক্ত করতে হবে, আপনি চেনেন কি না। গত ২২ জুলাই গভীর রাতে এভাবেই বাসার বাইরে ডেকে নেয়া হয় কক্সবাজারের কুতুপালং ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের তিনবারের মেম্বার বখতিয়ার উদ্দিনকে। টেকনাফ ও উখিয়া পুলিশের টিমকে নেতৃত্ব দেন দুই ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও মর্জিনা আক্তার।

রাত ৩টার দিকে বখতিয়ার মেম্বারকে পুলিশের গাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরদিন দেনদরবার করেও জানা যায়নি কোথায় আছেন তিনি। বিকেলে খবর আসে টেকনাফ থানায় রাখা হয়েছে তাকে। ২৩ জুলাই রাত ৮টার ওসি প্রদীপের নেতৃত্বে পুলিশ ফিরে আসে ঐ বাসায়। গাড়িতে রাখা হয় বখতিয়ারকে। বাসা থেকে নেয়া হয় নগদ ৫১ লাখ টাকা, ১০ ভরি স্বর্নালংকার, জমির দলিল, চেকবইসহ মূল্যবান নানা কাগজপত্র। এ সময় ঐ পরিবারের নারী সদস্যদেরও লাঞ্ছিত করেন পুলিশ সদস্যরা।

২৪ জুলাই ভোরে জানা যায়, পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন দুজন। একজন বখতিয়ার মেম্বার, আরেকজন মো. তাহের।

দুজনই মাদক ব্যবসায়ী এমন দাবি করে টেকনাফ খানা পুলিশ জানায়, হ্নীলার ওয়াংব্রা থেকে ইউনুস নামে একজনকে ২০ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তারের পরম সে জানায় তাহেরের নাম। তাহের দেয় বখতিয়ারের তথ্য। তারপর বখতিয়ারকে নগদ ১০ লাখ টাকা ও ২০ হাজার ইয়াবাসহ আটকের পর ভোরে আটককৃতদের নিয়ে আরো ইয়াবা উদ্ধারে গেলে গুলি চালায় তাদের সহযোগীরা। দুপক্ষের গোলাগুলিতে মারা যান দুজন, আহত হয় তিন পুলিশ সদস্য।

ঘটনাস্থল থেকে ৫টি দেশীয় অস্ত্র, ১৭ রাউন্ড গুলি ও ১৩ টি গুলির খোসা উদ্ধারের দাবি করে পুলিশ। কিন্তু বখতিয়ারের বাসা থেকে নেয়া টাকা ও স্বর্নালংকারের কোন খবর নেই। জানা যায়, ঐ টাকার ৩৩ লাখ নিয়েছেন ওসি মর্জিনা আর বাকি ১৮ লাখ নেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

নিউজটির বিস্তারিত প্রতিবেদন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর