channel 24

সর্বশেষ

  • ত্রাণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বদরগঞ্জে পৌর মেয়র বিরুদ্ধে মানববন্ধন

  • বিক্ষোভে টালমাটাল লেবানন, ভাঙনের মুখে ইসলামপন্থী ও খ্রিষ্টান জোট সরকার

  • যশোরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন

  • চাঁদপুরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি

  • চুরির অপবাদে ষাটোর্ধ্ব নৈশ প্রহরীকে পিটিয়ে হত্যায় ৩ জন গ্রেপ্তার

  • তল্পিতল্পা গুটিয়ে দেশে ফিরছেন প্রবাসীরা

  • বরগুনায় ওসির হাতে এএসআই লাঞ্ছিতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

  • গাজীপুর সিটির জন্য ৫ হাজার ৭ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা

  • বাংলাদেশের কৃষি যান্ত্রিকিকরনের দিকে এগিয়ে চলেছে: কৃষিমন্ত্রী

  • দেশ-বিদেশে ওসি প্রদীপের সম্পদের পাহাড়; ভারত-অস্ট্রেলিয়ায় বাড়ি

  • সার্জেন্ট চয়ন নাইডু সাময়িক বরখাস্ত

  • উচ্চ ফলনশীল আমন ব্রি ধান-৮৭ ও ব্রি ধান-৭৫ চাষে ব্যাস্ত ফরিদপুরের চাষীরা

  • প্রখ্যাত সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী আর নেই

  • পশু পাখির কিচির মিছিরে মুখরিত শ্রীমঙ্গল বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন এলাকা

  • আপেলের পুষ্টিগুণ

সরকারি চাকরি যেন আলাদিনের চেরাগ

সরকারি চাকরি যেন আলাদিনের চেরাগ

সরকারি চাকরি তার কাছে হয়ে উঠেছিল সোনার হরিণ। যাকে কাজে লাগান টাকা কামাইয়ের জন্য আলাদিনের চেরাগ হিসেবে। চাকরির ১৮ বছরে যিনি হয়েছেন বিপুল বিত্ত-বৈভবের মালিক। আর এজন্য কারাগারকে বানিয়েছেন অপরাধের স্বর্গরাজ্য। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের সাবেক জেলার সোহেল রানা বিশ্বাসের কথা।

অপকর্মের জন্য শাস্তি ভোগসহ চাকরি হারিয়েও নিবৃত্ত হননি তিনি। বরং চাকরি ফিরে পেয়ে হয়ে ওঠেন আরো বেপরোয়া। মাদকদ্রব্য, নগদ টাকা আর চেকসহ আটকের পর দুদকের তদন্তে উঠে আসে একজন আইনের সেবকের এমন অপরাধের ফিরিস্তি।

চট্টগ্রাম কারাগারের সাবেক জেলার সোহেল রানা। আটক হবার আগে বায়না করেছিলেন ঢাকার উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরের একটি ৬ তলা ভবন কিনতে। এজন্য বাড়ির মালিককে দেন ৫০ লাখ টাকা। শুধু বাড়িই নয়, ব্যাংকে জমা রেখেছিলেন ১ কোটি ৮৯ লাখ টাকার মতো।

অর্থপাচার মামলায় গত ২৫ জুন জমা দেয়া দুদকের অভিযোগপত্রে মিলেছে সোহেলে রানার এমন নানা দুর্নীতির ফিরিস্তি। তাতে বলা হয়, চট্টগ্রাম কারাগারকে অনিয়ম-দুর্নীতির স্বর্গরাজ্য বানিয়েছিলেন সোহেল রানা। অবৈধপথে আসতো কাড়ি কাড়ি টাকা।      

দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ জায়েজ করতে নিজের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন সোহেল। ব্যাঙ্কে খোলেন ২৬টি হিসাব। যার মধ্যে তার ৮টি, স্ত্রীর ১০টি। বাকিগুলো শ্যালক, চাচাত ভাই আর এক বন্ধুর নামে। এসব হিসাবে ৮ কোটি ৬২ লাখ টাকা লেনদেনের প্রমাণ পায় দুদক।      

শুধু অবৈধ উপার্জনই নয়, তদন্তে উঠে আসে তার নানা কেলেঙ্কারির তথ্য। ২০০০ হাজার সালে চাকরিতে যোগদানের পর বিভিন্ন অপরাধে ৩ বার শাস্তি পেলেও প্রতিবারই বেঁচে যান সোহেল রানা।       

সোহেল রানা আটক হন ২০১৮ সালের ২৭ অক্টোবরে। ভৈরবে একটি ট্রেন থেকে আটকের পর তার লাগেজে পাওয়া যায় মাদক আর নগদ ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর