channel 24

সর্বশেষ

  • মক্কা-মদিনায় কারফিউ জারি

  • করোনাভাইরাসে বিশ্বে প্রাণহানি ৫০ হাজার ২৩০

  • সুনামগঞ্জে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ওমানফেরত একজনের মৃত্যু

  • রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকের ব্যতিক্রম ত্রাণ বিতরণ

  • করোনা শনাক্তে বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষা শুরু

  • দরকার ছাড়া বেরুলেই ফেরত পাঠানো হচ্ছে ঘরে

  • সপ্তাহ না পেরুতেই ধৈর্যহারা নগরবাসী; দরকার ছাড়াও বেরুচ্ছেন বাইরে

  • পিপিই পরে সাঈদ খোকনের ত্রাণ বিতরণ

  • মুখে মাস্ক পরে ফ্লিমি স্টাইলে ফার্মেসিতে ডাকাতি

  • স্পেনে একদিনে প্রাণহানি ৯৫০, মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • করোনা গিলে খাচ্ছে গোটা বিশ্ব; প্রাণহানি ৫০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • গ্রামীণ জনপদে দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল কতটা সম্ভব?

  • চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কমেছে রোগী, বন্ধ প্রাইভেট চেম্বারও

  • গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা: আইইডিসিআর

  • চট্টগ্রামে বেড়েছে ব্যক্তিগত যানচলাচল, নির্দেশনা মানতে চাইছেন না মানুষ

কক্সবাজারে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ নিয়ে ভোগান্তিতে ক্ষতিগ্রস্তরা

কক্সবাজারে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ নিয়ে ভোগান্তিতে ক্ষতিগ্রস্তরা

কখনো জাল দলিল দিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থ হাতিয়ে নেয়া আবার কখনো ক্ষতিপূরণের চেক নিতে কমিশন। চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণ নিয়ে এমন নানা অনিয়মের বাসা কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের এলএ শাখা। এতে চরম ভোগান্তির শিকার ক্ষতিগ্রস্তরা। র‍্যাবের দাবি, এই শাখায় সক্রিয় একটি চক্রকে শনাক্ত করেছেন তারা।

মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়ার নোনাছড়ি গ্রামের বাসিন্দা ছারা খাতুনের দুই একরের বেশি জমি অধিগ্রহন হয় কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে। যার ক্ষতিপূরণ পেতে তিনি মামলা করেন আদালতে।

কিন্তু মামলা বিচারাধীন হলেও জাল দলিল দিয়ে এই নারীর ক্ষতিপূরনের অর্থ হাতিয়ে নেয় আলী আহমদ নামে এক ব্যক্তি। অভিযোগ, এর পিছনে আছেন জেলা প্রশাসনের ভূমিঅধিগ্রহণ শাখার সার্ভেয়ার ফরিদ ও ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা রেজাউল করিম।

মহেশখালির ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ছারা খাতুন বলেন, জাল দলিল ব্যবহার করে আমার ক্ষতিপূরনের টাকা আত্বসাৎ করেছে ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তারা। একই অভিযোগ চকরিয়ার স্কুল শিক্ষিকা সেতেরা বেগমের। তবে এবার অভিযুক্ত সার্ভেয়ার আবদুল বারী।

কক্সবাজারের চকরিয়ার ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক সেতেরা বেগম বলেন, কোন প্রকার প্রমাণপত্র ছাড়াই টাকা দিতে চাওয়ায় তা নেইনি।

কেবল তারাই নন জেলায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ক্ষতিগ্রস্তদের একই অভিযোগ। ক্ষতিপূরণ নিতে গেলে পোহাতে হয় ভোগান্তি। কমিশন ছাড়া মেলেনা ক্ষতিপূরনের অর্থ।

কক্সবাজারের চকরিয়ার ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, গত এক বছর ধরে ক্ষতিপূরনের টাকা চাইতে গিয়ে প্রায় চারগুণ টাকা ব্যয় হয়ে গেছে।

কক্সবাজার সদরের ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক আবদুল হাকিম বলেন, বার বার দরখাস্ত দেয়ার পরও কোন কাজ হচ্ছে না।

সম্প্রতি ৯৩ লাখ টাকাসহ আটক হয়েছে এই চক্রের সদস্য সার্ভেয়ার ওয়াসিম।

র‍্যাব ১৫-এর অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেন, চক্রটির সবার নাম ও নানা অনিয়মের তথ্য পাওয়া গেছে। সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার বলেন, ভূমি অধিগ্রহন শাখায় অনিয়ম বন্ধ করতে প্রতিষ্ঠানটিকে ঢেলে সাজানোর ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়া হবে।

কক্সবাজারে চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য মোট ১৫ হাজার একর জমি অধিগ্রহন করা হয়। এর মধ্যে ৬০ ভাগ ক্ষতিপূরনের অর্থ দেয়া হয়েছে বলে দাবি প্রশাসনের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর