channel 24

সর্বশেষ

  • করোনায় ফেনীর সিভিল সার্জনের মৃত্যু

  • ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট দিয়ে মাঠে গড়াচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

  • বাংলাদেশ থেকে এক সপ্তাহের জন্য ফ্লাইট বাতিল ঘোষণা দিলো ইতালি

  • মৃতের হাত বেঁধে টাকা আদায়: প্রশান্তি হাসপাতালের বিরুদ্ধে ১ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট

  • প্যাপিনোমেলনের পুষ্টিগুণ

  • মরিচ গাছের পাতা কুকড়ানো বা লিফ কার্ল রোগ

  • আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত ঘেরে চিংড়ির রোগ নির্ণয় ভ্রাম্যমাণ মৎস্য ক্লিনিক

  • খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের দুই শ্রমিক নেতার রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর

  • ৬ হাজারের বেশি ভুয়া করোনা রিপোর্ট দিয়েছে রিজেন্ট হাসপাতাল

  • মেঘনা নদীতে প্রবল স্রোতে চাঁদপুর শহররক্ষা বাঁধে ফাটল

  • অনিয়মের আখড়া রিজেন্ট হাসপাতাল সিলগালা

  • কর্মহীনদের পাশে দাঁড়িয়েছে ঝিনাইদহের 'করোনা স্কোয়াড'

  • রেডজোন থেকে ইয়েলো জোনে চট্টগ্রামের উত্তর কাট্টলী

  • রাতে মাঠে নামছে চেলসি ও আর্সেনাল, মুখোমুখি এসি মিলান-য়্যুভেন্তাস

  • রাশিয়ান লিগে শিরোপা ধরে রাখলো জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গ

বাংলাদেশ থেকে চীনে পণ্য রপ্তানি হুমকির মুখে

বাংলাদেশ থেকে চীনে পণ্য রপ্তানি হুমকির মুখে

করোনাভাইরাসের কারণে কেবল আমদানি খাতই নয় বাংলাদেশ থেকে চীনে রপ্তানিও পড়েছে হুমকির মুখে। সংকট পুরোপুরি শুরুর আগে জাহাজীকরণের পর চীনের বন্দরে গিয়ে যেমন পড়ে আছে মালামাল তেমনি রফতানির জন্যও দেশে প্রস্তুত রয়েছে পর্যাপ্ত পণ্য। তাতে কবে নাগাদ দুর্দশা কাটবে তাই নিয়েই দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, সহসা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে অন্ধকার নেমে আসবে রপ্তানি খাতে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে চীনের বাজারে যায় প্রায় ৩শ ধরনের পণ্য। যা থেকে বছরে আয় হয় প্রায় ৫ কোটি ডলার।

তবে সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাস ই্যসুতে চীন স্থবির হয়ে পড়ায় দেশটিতে বাংলাদেশের রপ্তানি মুখ থুবড়ে পড়েছে। ক্রয় আদেশ ছিল, ছিল পণ্য প্রস্তুতও। তবে তা যাচ্ছে না। আবার শিপমেন্ট হওয়া পণ্যও আটকে আছে বন্দরে। চীনে রপ্তানি পণ্যের তালিকায় অন্যতম প্রচলিত-অপ্রচলিত মাছ। বছরে যার পরিমাণ প্রায় ৮ হাজার টন।

চীনে মাছ রফতানিকারক সৌমেন্দু বসু বলেন, চায়না নিউ ইয়ারের ছুটির সাথে দেশে মাছ আহরণ আর প্রক্রিয়াকরণের সময় না মেলায় এক ধরনের সংকট তৈরি হয়েছে। তার ওপর করোনা ভাইরাসে নাজেহাল অবস্থা।

বাংলাদেশ ওমেজম এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রমা কান্ত মজুমদার বলেন, পশুর নাড়ি-ভুঁড়ি বা ওমেজম রপ্তানি হয় কেবল চীনে। রপ্তানির পর পথে আটকে গেছে এ পণ্যটিও। আর দেশেও পড়ে আছে রপ্তানির অপেক্ষায়। এতে করে চরম দিশেহারা অবস্থা বিরাজ করছে।

সহসা করোনা ভাইরাস সংকট না কাটলে অনেক মূল্য দিতে হবে রপ্তানি খাতকে এমন মত সংশ্লিষ্টদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর