channel 24

সর্বশেষ

  • বিড়াল উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস!

  • মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে সুপ্রিমকোর্টে ক্ষণ গণনার ঘড়ি উদ্বোধন

  • করোনা ভাইরাস: শাহজালাল বিমানবন্দরে বসানো হয়েছে স্ক্যানিং মেশিন

  • শেষ হল নারী ফুটবল লিগের দলবদল

  • নড়াইলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই

  • মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে তিনদিন ধরে সার্ভারে সমস্যা

  • এক নারীকে নির্যাতনের পর পিকআপ থেকে ফেলে দেয়ার অভিযোগ

  • মিথ্যা ঘোষণায় আনা ১ কন্টেইনার সিগারেট জব্দ

  • বাংলাদেশকে অন্ধকার থেকে আলোতে এনেছে আ.লীগ: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • কলেজছাত্রী হত্যা মামলায় প্রভাষকের মৃত্যুদণ্ড, এডভোকেটের যাবজ্জীবন

  • তেঁতুলিয়ায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ১, আহত অর্ধশতাধিক

  • হামলা-মামলার বিষয়ে কূটনীতিকদের অবহিত করলো বিএনপি

  • নিখুঁতভাবে কৃষিকাজ করছে রোবট

  • ইলিশের পুষ্টিগুণ, ডিমছাড়া নাকি ডিমওয়ালা ইলিশটি বেশি স্বাদের?

  • মাছকে খাবার দিবে যন্ত্র! দেশেও শুরু হয়েছে এই প্রযুক্তি

'আমাদের ওপর গণহত্যা, ধর্ষণের শাস্তি তারা পাবে'

'আমাদের ওপর গণহত্যা, ধর্ষণের শাস্তি তারা পাবে'

নেদারল্যান্ডসের হেগে আন্তর্জাতিক আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি শুরু হওয়ায়, আশায় বুক বেঁধেছেন নির্যাতিত রোহিঙ্গারা। বলছেন, ন্যায়বিচার হলে শাস্তি পাবে মিয়ানমারের বর্বর সেনাবাহিনী। আর নাগরিকত্ব পাওয়াসহ মৌলিক অধিকার নিশ্চিত হবে তাদের। কক্সবাজারের স্থানীয়রাও বিষয়টিকে দেখছেন ইতিবাচক হিসেবে।

নানা জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে নেদারল্যান্ডসের আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি।   

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে রাখাইনে যে নির্মম হত্যাযজ্ঞ আর নির্যাতন চালিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী, তার বিচারের দাবিতে সোচ্চার গোটা দুনিয়া। ন্যায় বিচারের অপেক্ষায় রোহিঙ্গারাও। যাদের মধ্য থেকে ৩ জনের একটি দল যোগ দিয়েছে হেগের বিচার প্রক্রিয়ায়। তাই এই মামলার মাধ্যমে সঠিক বিচার পাওয়ার আশা তাদের।  

রোহিঙ্গারা বলছেন, আমাদের ওপর যে গণহত্যা চালানো হয়েছে, ধর্ষণ করা হয়েছে, তার শাস্তি তাঁরা পাবে। এখান থেকে ৩ জন হেগে গেছেন। নির্মম ঘটনাগুলো তাঁরা সেখানে তুলে ধরবে। আমরা আশা করি আইসিজিতে সঠিক বিচার হবে। বিচার পেলে আমরা সেচ্ছায় মিয়ানমার চলে যাব।

রোহিঙ্গাদের স্বার্থ নিয়ে কাজ করা সংগঠনগুলোও বলছে, ৭০ বছর ধরে জাতিগত নিধনের সুরাহা হবে এবার। তাই এ প্রক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে পাশে চান তারা।

আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের সদস্য মোহাম্মদ জুবায়ের বলছেন, আমাদের উপর যে জুলুম হয়েছে ওয়াইসিসহ পৃথিবীর সবাই পাশে থাকলে আমরা ন্যাবিচার পাব।

রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারকাজ শুরু হওয়াকে এই সংকট সমাধানে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন পর্যবেক্ষকরা।

কক্সবাজার পিপলস ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ ইকবাল বলেন, মিয়ানমার সরকার দীর্ঘদিন যাবত যে তালবাহানার আশ্রয় নিয়ে রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত নিচ্ছে না এখন আন্তর্জাতিক চাপের কারণে রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত নিয়ে যাবে।

নতুন পুরনো মিলে কক্সবাজারের ক্যাম্পে এখন রোহিঙ্গা আছে ১১ লাখের বেশি। যাদের প্রায় সবাই কোন না কোনভাবে নিপীড়নের শিকার নিজদেশে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর