channel 24

সর্বশেষ

  • অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শেষ ষোলতে নাদাল-থেইম, হালেপ-কেরবার

  • তরুণিকে ধর্ষণের পর ফেসবুক লাইভে চার বন্ধু, র‍্যাবের অভিযানে গ্রেপ্তার

  • ৬ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় মা ছেলেসহ ১০ জনের মৃত্যু

  • সরকার ১১ বছর ধরে দেশে বাকশাল কায়েম করে রেখেছে: মওদুদ

  • শেষ সপ্তাহে জমজমাট ঢাকা সিটির নির্বাচনী প্রচারণা

  • সংস্কারের অভাবে শীত-বর্ষায় দুর্ভোগের শিকার আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দারা

  • দুই সন্তানের মাকে হাত-পা বেঁধে চুল কেটে দিয়েছে শ্বশুরবাড়ির লোকজন

  • বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে বুরুন্ডিকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে ফিলিস্তিন

  • রাখাইনে সেনাবাহিনীর কামানের গোলায় ২ রোহিঙ্গা নারী নিহত

  • পাকিস্তানের কাছে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও হার বাংলাদেশের

  • ঢাবির অ্যাকাউন্টিং বিভাগের ৫০ ও অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের ২৫ বছরপূর্তি উদযাপন

  • যুক্তরাজ্যের বাজারে আসছে হুয়াওয়ের ৫জি মোবাইল নেটওয়ার্ক

  • চীনের পাঁচটি শহরে বন্ধ হল ম্যাকডোনাল্ডস রেস্ট্যুরেন্ট

  • পুঁজিবাজারে সূচক ও লেনদেনে ঊর্ধ্বমুখী ধারা

  • ৯০ বছর বয়সেও ইংরেজি শেখাচ্ছেন কাঞ্চন আলী

ভারতের পণ্য ট্রান্সশিপমেন্টে সড়ক ব্যবহারে কোনো মাশুল নির্ধারণ হয়নি

ভারতের পণ্য ট্রান্সশিপমেন্টে সড়ক ব্যবহারে কোনো মাশুল নির্ধারণ হয়নি

চট্টগ্রাম আর মোংলা বন্দর দিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে ভারতের পণ্য ট্রান্সশিপমেন্ট শুরু হচ্ছে জানুয়ারিতে। এতে বন্দর দুটি তাদের নিজস্ব চার্জ পেলেও বাংলাদেশের সড়ক ব্যবহারে কোনো মাশুল নির্ধারণ হয়নি এখনও। বন্দর সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অন্য দেশ থেকে আমদানি অথবা এক প্রদেশ থেকে অন্য প্রদেশে পণ্য প্রেরণে ভারতের যে ব্যয় হয় সে অনুযায়ী সড়কের মাশুল নির্ধারিত হওয়া প্রয়োজন। আবার বন্দর ও সড়কে সেবার মানের বিষয়েও খেয়াল রাখার কথা বলছেন কেউ কেউ।

বহুবছর ধরে নানা বিতর্ক আর পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর চট্টগ্রাম আর মোংলা বন্দরের মাধ্যমে ভারত পরীক্ষামূলকভাবে ট্রান্সশিপমেন্ট পাচ্ছে জানুয়ারিতে। গত সপ্তাহে এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে দুদেশের বৈঠকে।  

এই সুবিধার বড় অংশই হবে চট্টগ্রাম বন্দর ঘিরে। তাই এ নিয়ে চলছে বন্দরের প্রস্তুতিসহ নানা হিসাব-নিকাশ। টার্মিনাল অপারেটররা বলছেন, এই বন্দরের সক্ষমতা বেড়েছে। আছে প্রস্তুতিও। তবে ব্যবসায়ীদের মতে, বন্দর আর সড়ক দুটিকেই টেকসই সেবা নিশ্চিত করা না গেলে হোঁচট খাবে পুরো উদ্যোগ।   

চট্টগ্রাম বন্দর এখন বছরে গড়ে লাখ টন পণ্য হ্যান্ডলিং করে। ট্রান্সশিপমেন্ট শুরু হলে এ চাপ আরও বাড়বে। যা মোকাবেলায় বাড়তি প্রস্তুতির তাগিদ বন্দর ব্যবহারকারীদের।  

এদিকে, কথা উঠেছে বাংলাদেশের লাভক্ষতি নিয়েও। কেননা ইতিমধ্যে কেবল বন্দরের মাশুল পরিশোধের সিদ্ধান্ত হলেও বাংলাদেশের সড়ক ব্যবহার বাবদ ভারত কী দেবে তা নিয়ে হয়নি কূলকিনারা।

তবে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সড়ক ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে টন প্রতি ২ টাকার বেশি আর কাস্টমসের পক্ষ থেকে প্রশাসনিক চার্জ প্রস্তাব করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর