channel 24

সর্বশেষ

  • পণ্টনে নব্য জেএমবির সিলেট সেক্টর কমান্ডারসহ আটক ৫

  • গেল অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে অর্থমন্ত্রীর সন্তোষ প্রকাশ

  • বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে বিপুল কর্মসংস্থান কমেছে যুক্তরাজ্যে

  • বাজে ভাষার জেরে জরিমানার মুখে স্টুয়ার্ট ব্রড

  • সাকিবের শ্রীলঙ্কা সফরে থাকা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

  • ফুটবল ফেডারেশনের আলোচিত নির্বাচন ৩ অক্টোবর

  • 'সিনহাকে গুলি করা ব্যক্তিরা ছিলেন সিভিল পোশাকে'

  • অ্যাজমা ও ব্রংকাইটিস প্রতিরোধ করে চুইঝাল

  • ঝিনাইদহে বেড়েছে প্লাস্টিকের তৈরী ওয়ান টাইম প্লেট ও গ্লাসের ব্যবহার

  • কুড়িয়ানার শত বছরের ভাসমান পেয়ারার হাট

  • যশোরে কাভার্ডভ্যান চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই যুবক নিহত

  • ইয়াবাসহ আটক ৪ জনকে ঘুষ দিয়ে ছাড়াতে এসে যুবলীগ নেতাসহ আটক ২

  • করোনার ভ্যাকসিন আবিস্কার হলে বাংলাদেশও পাবে: ডা. খুরশীদ আলম

  • গোপালগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় যুবলীগ নেতা নিহত

  • সিনহা হত্যা: পুলিশের মামলার ৩ সাক্ষীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাড়ছে কলেরার প্রকোপ, আক্রান্ত স্থানীয়রাও

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাড়ছে কলেরার প্রকোপ, আক্রান্ত স্থানীয়রাও

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশংকাজনক হারে বাড়ছে কলেরার প্রকোপ। যাতে আক্রান্ত হচ্ছেন স্থানীয়রাও। জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য বলছে, এ পর্যন্ত ১৯১ জনের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ১৩৩ জনের মধ্যে কলেরার জীবাণু মিলেছে। এরমধ্যে ৭৭ জনই রোহিঙ্গা। কলেরার মহামারী আকার ধারণ করার আগেই নানা পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলছে প্রশাসন।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্পে এখন বাস ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার। কলেরার প্রকোপের আশঙ্কায় গত এক বছরে সেখানে চারবার পালন করা হয় টিকা দান কর্মসূচি।

কিন্তু তাতেও হলো না শেষ রক্ষা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মিলেছে কলেরার জীবাণু। যাতে আক্রান্ত স্থানীয়রাও। জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য বলছে, এ পর্যন্ত ১৯১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ১৩৩ জনের মধ্যে কলেরা রোগের জীবাণু পাওয়া গেছে। যাদের ৭৭ জন রোহিঙ্গা। বাকি ৫৬ জন স্থানীয়।

কক্সবাজার জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় জানায়, ক্যাম্পে বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট অস্বাস্থ্যকর পরিবেশসহ নানা কারণে কলেরার বিস্তার ঘটছে। আগামী ৮ থেকে ১৪ই ডিসেম্বর পঞ্চমবারের মতো ক্যাম্পগুলোতে ১ থেকে ৫ বছর বয়সী ১ লাখ ৩৮ হাজার শিশুকে আবারও দেয়া হবে কলেরার টিকা।

কক্সবাজারের ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. মহিউদ্দিন মো. আলমগী জানান, আগামি ৮ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এক বছরের বেশি বয়সী সব স্থানীয়কে কলেরার টিকা দেওয়া হবে। যাতে কলেরা উখিয়া এবং টেকনাফের স্থানীয়দের মাঝে ছড়াতে না পারে।

টিকাদানের পাশাপাশি নানা সচেতনতামূলক কর্মকান্ড চালানোর কথা বলছে দেশি-বিদেশি বেসরকারি সংস্থাগুলো। টিকাদানের এ কার্যক্রমে ক্যাম্পে ১ হাজার ৪০০টি দল আর স্থানীয় জনগোষ্ঠীর মাঝে ১১০টি দল কাজ করবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর