channel 24

সর্বশেষ

  • জামিন পেলেন লঙ্কান ক্রিকেটার কুশল মেন্ডিস

  • প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর

  • বানের পানিতে তলিয়েছে ৫০ হাজার হেক্টর জমির ফসল

  • প্রস্তুতির জন্য অন্তত তিন সপ্তাহ সময় চান সৌম্য সরকার

  • কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই

  • লাইসেন্সবিহীন রিজেন্ট হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসায় সরকারি অনুমোদন

  • দ্বিতীয় দফার সংক্রমণে বেহাল দশা যুক্তরাষ্ট্র, চীন, নিউজিল্যান্ড ও ইরানের

  • ইংলিশ লিগে আজ মুখোমুখি এভারটন ও টটেনহ্যাম

  • সূচক কিছুটা গতিশীল হলেও বড় পরিবর্তন নেই লেনদেনে

  • রংপুর অঞ্চলে আউশের আবাদে রেকর্ড

  • ইংল্যান্ডে দু'দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা

  • করোনার ভুয়া টেস্ট রিপোর্ট দিতো রিজেন্ট হাসপাতাল

  • রিজার্ভ থেকে ঋণ নিয়ে উন্নয়ন কাজে লাগানো যায় কিনা, তা ভেবে দেখার পরামর্শ

  • আর্থিক সংকটে পাইওনিয়ার লিগ খেলা ফুটবলাররা

  • খুলনার সেই সালামকে মুক্তির নির্দেশ আদালতের

গিনেজবুকে শাহ সিমেন্টের নাম

গিনেজবুকে শাহ সিমেন্টের নাম

দেশে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ভার্টিক্যাল রোলার মিল-ভিআরএম স্থাপন করেছে আবুল খায়ের গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান শাহ সিমেন্ট। আকৃতি এবং প্রযুক্তিতে পৃথিবীতে যা এই প্রথম। তাতে গিনেজ বুকে নাম লিখিয়েছে এই শিল্প প্রতিষ্ঠানটি। যাকে বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমুর্তি উজ্জলে নতুন মাইলফলক হিসেবে দেখছেন ব্যবসায়ী নেতা ও পর্যবেক্ষকরা।

স্থাপনা তৈরিতে অন্যতম নির্মাণ উপকরণ সিমেন্ট। দেশে প্রতিনিয়তই বাড়ছে যার চাহিদা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিনিয়োগও। ফলে মজবুত হচ্ছে এ শিল্পের ভিত্তিও।

সেই যাত্রায় এবার যুক্ত হল আরেকটি নতুন অর্জন। সম্প্রতি বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভার্টিক্যাল রোলার মিল স্থাপন করে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম লিখিয়েছে আবুল খায়ের গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান শাহ সিমেন্ট। যার গ্রাইন্ডিং টেবিল ডায়ামিটার ৮ দশমিক শূন্য ৮। আর রোলার টেবিল ডায়ামিটার ২ দশমিক ছয় ৪। ছয়টি রোলারের সমন্বিত এই ভিআরএমের দৈনিক উৎপাদনক্ষমতা ১৫ হাজার টন।

এমন অর্জনকে সাধুবাদ জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা। বলছেন, দেশে বিশ্বমানের উন্নয়নের যে অগ্রযাত্রা এটি তারই একটি উদাহরণ।

চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ভার্টিক্যাল ওয়েতে যে মেশিনটা ইমপোজ হচ্ছে বাংলাদেশে এটার ফলে বাংলাদেশ সিমেন্টশিল্পে একধাপ এগিয়ে গেল। এবং যারাই এ কাজটা করছে তাদের ধন্যবাদ জানাই, সাধুবাদ জানাই। তাদের শিল্প অনেক কর্মসংস্থান হচ্ছে। এতে দেশ এগিয়ে যাবে।

আর নগরবিদরা বলছেন, দেশীয় শিল্পের এমন দৃষ্টান্ত জাগরণ সৃষ্টি করবে অন্যান্য শিল্প খাতেও।

নগরবিদ স্থপতি আশিক ইমরান বলেন, বাংলাদেশের একটা শিল্প প্রতিষ্ঠার এ সক্ষমতা অর্জন করেছে এটা আমাদের জন্য আশাব্যঞ্জক এবং তাদের এই অর্জন দেখে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের মান গুলো আন্তর্জাতিক পযার্য়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবে। ধাপে ধাপে বাংলাদেশ তাদের মাধ্যমে স্বপ্ন অর্জন করবে এটাই আশা করি।

১৫ বছরের বেশি সময় ধরে দেশের সিমেন্ট খাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে চলেছে, আবুল খায়ের গ্রুপ। বৃহৎ আকার আর সর্বাধুনিক প্রযুক্তির নতুন কারখানার বিশ্বমানের স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠানটিকে নিয়ে যাবে অনন্য উচ্চতায় মত বিশ্লেষকদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর