channel 24

সর্বশেষ

  • রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজি সম্পর্কে জানা ছিল না: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • রিজেন্ট চেয়ারম্যান সাহেদের পাসপোর্ট জব্দ

  • লাভের আশায় গরু পালন করে দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় খামারীরা

  • আগামী মাসে মাঠে গড়াচ্ছে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ

  • আবারও মনোবিদ আজহার আলীর ওপর আস্থা বিসিবির

  • আগস্টের প্রথম সপ্তাহ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফুটবল দলের আবাসিক ক্যাম্প

  • সাউদাম্পটন টেস্টে ৯৯ রানে পিছিয়ে ইংল্যান্ড

  • বিএফডিসিতে অসহায় শিল্পীদের সহায়তা করলেন অনন্ত-বর্ষা

  • সিলেটে বিষ খাইয়ে হত্যাচেষ্টা, মা-ছেলে কারাগারে

  • কুমিল্লায় ব্যবসায়ী আকতার হত্যার ঘটনায় মামলা

  • সাংবিধানিক কারণেই করোনার মধ্যে উপনির্বাচন: সিইসি

  • বানের জলে ডুবছে লোকালয়; সুরমা উপচে তলিয়েছে সুনামগঞ্জ শহর

  • এখনও অধরা রিজেন্ট কাণ্ডের নাটের গুরু সাহেদ

  • সাংবাদিকদের মাঝে করোনাকালীন সহায়তার চেক বিতরণ

  • অনলাইন থেকে গরু কিনলেন তিন মন্ত্রী

নানা সংকটে বান্দরবানের লামা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

নানা সংকটে বান্দরবানের লামা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

প্রায় দুই লাখের বেশি মানুষের বসবাস বান্দরবানের লামায়। যাদের চিকিৎসা সেবার একমাত্র ভরসা লামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। যদিও এই হাসপাতালে জরুরী প্রয়োজনে নেই অস্ত্রোপচার করার সুবিধা। ফলে চিকিৎসা বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

পার্বত্য জেলা বান্দরবানের লামা উপজেলা। এই জেলার জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক বাস করে লামায়। যার মধ্যে বাংলা ভাষাভাষীসহ ৬টি ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর বসতি।

পাহাড়ী এলাকায় তামাক চাষ আর সুপেয় পানির অভাব থাকায় নানা রোগে আক্রান্ত হন এখানকার মানুষ। লামা সদর, গজালিয়া ও রুপসী পাড়া ইউনিয়নসহ আলী কদমের একাংশের সাধারণ মানুষ পাহাড়ী পথ ধরে খাল আর নদী পাড়ি দিয়ে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসেন লামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ২০১৭ সালে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। যদিও এখানে চিকিৎসক সংকটসহ রয়েছে জনবলের অভাব।
এই হাসপাতালে জরুরী প্রয়োজনে অস্ত্রোপচারের সুযোগ নেই। নেই মেডিকেল অফিসার। অতিরিক্ত চাপ নিয়েই স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে যাচ্ছেন হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

পাবর্ত্য জেলা পরিষদের নিয়ন্ত্রণে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারী নিয়োগ দেয়া হয়। সেটিও বন্ধ দীর্ঘদিন। ফলে সমস্যা সমাধানে নিজ খরচে কয়েকজন ক্লিনার নিয়োগ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

লামা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শিশু কনসালটেন্ট বেলায়েত হোসেন জানান, চিকিৎসক কম থাকায় অতিরিক্ত চাপ নিয়েই সেবা দিতে হচ্ছে। সময় স্বল্পতার কারণে রোগীদের বেশি সময় দেয়া যায় না বলে ও জানান তিনি।

লামা উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মোহাম্মদুল হক জানান,  চিকিৎসকদের অনেক পদই ফাঁকা রয়েছে। তবে শিগগিরই চিকিৎসকসহ অন্যান্য জনবল নিয়োগ দেয়া হবে বলে জানান লামা উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর