channel 24

সর্বশেষ

  • বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকা ছাড়লেন ৪ শতাধিক মার্কিন নাগরিক

  • নিউইয়র্কের এমন পরিস্থিতি আমি আগে দেখিনি: ট্রাম্প

  • নারী শ্রমিককে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় বখাটের ছুরিকাঘাতে ঠিকাদার নিহত

  • টিসিবির সয়াবিন তেল কিনে বেশি দামে বিক্রি করায় দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা

  • আমতলী থানা হেফাজতে মৃত্য: ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের আইনজীবীর

  • সচেতনতা বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে রাজধানীর ইব্রাহিমপুরের কিছু তরুণ

  • টোকিও অলিম্পিকের নতুন তারিখ ২০২১ সালের ২৩ জুলাই

  • করোনা সন্দেহে মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে বের করে দিলেন স্বজনরা

  • ঝুঁকি জেনেও যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরলেন ৭৩ প্রবাসী

  • আপেল চাষ হচ্ছে ঢাকা শহরে বাড়ির ছাদে

  • করোনায় আক্রান্ত তুরস্কের সাবেক গোলরক্ষক রুস্তো রেকবার

  • কোয়ারেন্টিনের মাঝেই ফিটনেস ধরে রাখতে মনোযোগী ফুটবলাররা

  • নারী ক্রিকেটারদেরও আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে বিসিবি

  • পীরগাছায় ট্রেনের ইঞ্জিনের ধাক্কায় অটোরিকশার চার যাত্রী নিহত

  • ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতাল কর্মীদের পিপিই দেবে বিজিএমইএ

সাজার ১০ বছরেও পরোয়ানা পৌঁছায়নি কারাগারে, মামলার নথি গায়েব

সাজার ১০ বছরেও পরোয়ানা পৌঁছায়নি কারাগারে, মামলার নথি গায়েব

সাজা হয়েছে ১০ বছর আগে। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়েও পরোয়ানা পৌঁছায়নি এক কিলোমিটার দূরের কারাগারে। ফলে, সাধারণ হাজতি হিসেবেই কারাভোগ করছেন দিনমজুর নেজাম উদ্দিন। এমন ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামে। শুধু তাই নয়, আদালতে মামলার নথিও গায়েব হয়ে যায়। চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধান শুরু হলে অবিশ্বাস্য গতিতে কারাগারে পৌঁছে যায় সাজার পরোয়ানা। পাওয়া যায় মামলার নথিও।

এক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগে রাউজানের বাসিন্দা নেজাম উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের হয় ২০০৫ সালের সেপ্টেম্বরে। ২০০৮ সালের ৬ জানুয়ারী মামলার রায়ে তাকে ১৪ বছরের সাজা দেয় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২। আর গ্রেফতার হন একই বছরের ৪ এপ্রিল।

তবে বিস্ময়কর হলেও সত্য, রায়ের ১০ বছর পরও তার সাজার পরোয়ানা আদালত থেকে পৌঁছায়নি মাত্র এক কিলোমিটার দূরত্বের চট্টগ্রাম কারাগারে। এমনকি আদালতে গায়েব হয়ে যায় মামলার নথিও।

এ  নিয়ে অনুসন্ধানে নামে চ্যানেল টোয়েন্টিফোর। এরপরই টনক নড়ে আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখার। অবিশ্বাস্য দ্রুতগতিতে মঙ্গলবার কারাগারে পৌছে সাজা পরোয়ানা। সেইসাথে বেরিয়ে আসে মামলার নথিও। অথচ, এসব নথির অভাবে এতদিন মামলার ব্যাপারে কোন পদক্ষেপই নিতে পারেনি এই দিনমজুরের পরিবার।

জেলকোড অনুসারে এতদিনে তার সাজা পূর্ণ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু দেরিতে পরোয়ানা পৌছায় এখন দীর্ঘায়িত হতে পারে তার মুক্তি। নেজামের পরিবারের অভিযোগ, এই কাজের নেপথ্যে আছে একটি চক্র। এটাকে সংশ্লিষ্টদের গাফিলতি  এবং  অনিয়ম হিসেবে দেখছেন আইনজীবীরা।

সাজা ছাড়া দীর্ঘদিন কোন বন্দী কারাগারে থাকলে সে তথ্য দেয়ার কথা আদালত বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে। কিন্তু নেজামের বেলায় তা হয়নি। এ ব্যাপারে বক্তব্য জানার জন্য বারবার চেষ্টা করা হলেও কথা বলতে রাজি হননি কারা কর্তৃপক্ষের কেউ।

দেখুন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর