channel 24

সর্বশেষ

  • নোয়াবের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় এ কে আজাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা

  • চট্টগ্রামে রেলক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার জন্য বাস চালক দায়ী: তদন্ত কমিটি

  • বিয়ের আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন

  • চাকরি দিচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ

  • অ স্ত্র প্রতিযোগিতা নয়, শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়তে সম্পদ ব্যবহার করুন: প্রধানমন্ত্রী

  • নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা দিনের পর দিন চলতে পারে না: নির্বাচন কমিশনার

  • পেগাসাস স্পাইওয়্যারের কার্যক্রম বন্ধে হাইকোর্টের রুল

  • ভাইকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেল যুবক

  • স্বাস্থ্য সচিব-ডিজির বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

  • নৌকার মনোনয়ন পাওয়ায় চেয়ারম্যানের ছেলের হাতবোমা বিস্ফোরণ করে উল্লাস

  • অর্থপাচারকারীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরিতে আইনের সংশোধন চায় দুদক

  • ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’: সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

  • পুলিশ হেফাজত থেকে পালাল রোহিঙ্গা কালাম

  • বিমানবন্দরে আটকে দেয়া হলো জ্যাকুলিনকে

  • দেশের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে অবদান রাখছে নাভানা গ্রুপ

আমদানি চালানে নিম্নমানের চাল, ভারতের বিরুদ্ধে চুক্তিভঙ্গের অভিযোগ

আমদানি চালানে নিম্নমানের চাল, ভারতের বিরুদ্ধে চুক্তিভঙ্গের অভিযোগ

জিটুজি চুক্তির আওতায় গত আগস্টে ভারত থেকে চট্টগ্রামে পৌঁছে ৫০ হাজার টন সিদ্ধ চাল আমদানির ১৯ হাজার ২০০ টন চাল। তবে চালানে নিম্নমানের চালের মিশ্রণ থাকায় তা গ্রহণ করেনি সরকার। নমুনা পরীক্ষা শেষে জাহাজ থেকে খালাসের পর ৩ হাজার ২৮৯ টন চাল চলে যায় গুদামে। যার প্রায় ১শ' বস্তায় মেলে খাবার নিম্নমানের চাল। ফলে প্রায় আড়াই মাস ধরে চট্টগ্রামে আটকা পড়ে ওই চালবাহী জাহাজ। অবশেষে সরবরাহকারীকে আদালতের দেয়া খালাসের নির্দেশে কেটেছে সংকট।  

পরে পুনঃরায় নমুনা পরীক্ষায় দেখা যায়, চুক্তি অনুযায়ী ৬-৭ শতাংশ ভাঙা চাল সহনীয় হলেও এক্ষেত্রে মেলে প্রায় ১০ শতাংশ। আর ঘোলা, লাল ও কালো দানাযুক্ত চাল ৪ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য হলেও এ চালানে পাওয়া যায় ৬০ শতাংশের বেশি। কর্মকর্তারা জানান, সচরাচর নমুনা নেয়া হয় জাহাজের ওপরের অংশ থেকে। যেখানে ছিল ভাল চাল। খারাপ চালগুলো ছিল নিচের দিকে। এমন বাস্তবতায় চালানটি গ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

আরও পড়ুন: পদ্মা ও মেঘনা নামে দুটি বিভাগ হবে: প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রাম আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক জহিরুল ইসলাম খান জানান, আমদানি চুক্তির নীতিমালা অনুযায়ী চাল না আসায় সরকার এ চাল গ্রহণ করেনি। এছাড়া সরবরাহকারীকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চাল খালাসের অনাপত্তিপত্র দেয় সরকার।

খাদ্য বিভাগ বলছে, চালানটিতে ভালো-খারাপ চাল মিশে আছে। তারপরও এগুলো গছিয়ে দিতে তৎপর সরবরাহকারী। এরমধ্যে ৬টি লাইটার জাহাজেও বোঝাই করা হয় চাল। তবে সংকট না কাটায় শেষ পর্যন্ত প্রায় আড়াই মাস ধরে আটকে থাকা জাহাজ এমভি ড্রাগন কর্তৃপক্ষ সরবরাহকারীর বিরুদ্ধে মামলা করলে আদালত চালগুলো খালাস করে দ্রুত জাহাজ ছেড়ে দেয়ার নির্দেশনা দেন।

জাহাজ মালিকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এম আমিনুল ইসলাম নজির জানান, জাহাজ মালিকের আবেদনের প্রেক্ষিতে সরবরাহকারীকে চাল খালাস করে জাহাজ ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।  

উল্লেখ্য, চলতি বছর ভারত থেকে আনা ১৯ হাজার টন চিকন চালের অন্য একটি চালানেও ৪ হাজার টন নিম্নমানের চাল পাওয়া যায়।  

একেএম/টি

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর