channel 24

সর্বশেষ

  • নিয়ন্ত্রণে বাড্ডার আগুন

  • আপেল যখন বিপদের কারণ!

  • হজমের সমস্যা সমাধানের কার্যকরী ৬ উপায়

  • অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে নারী উদ্যেক্তারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন

  • নাটক-সিরিয়ালে ‘আলিঙ্গন’ নিষিদ্ধ করলো পাকিস্তান

  • ড. সমীর কুমার সাহাকে বিজ্ঞান সম্মাননা দিয়েছে পথিকৃৎ ফাউন্ডেশন

  • নীরব ঘাতক কিডনি রোগ: প্রতিকার ও করণীয় (ভিডিও)

  • ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক-শ্রমিক

  • ডেঙ্গুতে ২৪ ঘণ্টায় ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ১৮৯

  • সময়ের সাথে দীর্ঘতর হচ্ছে টিসিবি পণ্যের ক্রেতার সারি

  • ‘পীরগঞ্জে হামলার মূল হোতা সৈকত ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারী’

  • খন্দকার মোশতাকের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের দাবিতে সমাবেশ

  • প্রকৃতির কোলে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছেন শ্রাবন্তী

  • আফগানিস্তান পুনর্গঠনে বেতন ছাড়াই কাজ করছেন একদল স্বাস্থ্যকর্মী

ই-কমার্স খাতে নতুন বিপত্তির নাম 'পেমেন্ট গেটওয়ে' (ভিডিও)

ই-কমার্স খাতে নতুন বিপত্তির নাম 'পেমেন্ট গেটওয়ে' (ভিডিও)

ই-কমার্স খাতে নতুন বিপত্তির নাম আর্থিক সেবা 'পেমেন্ট গেটওয়ে'। পণ্য সরবরাহের তথ্য ম্যানুয়ালি যাচাই করতে গিয়ে তৈরি হচ্ছে দীর্ঘ জটের। এতে আটকা পড়েছে গ্রাহক ও মার্চেন্টের কয়েকশ কোটি টাকা। যদিও এমএফএস ও পেমেট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোর দাবি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা মেনে হচ্ছে অর্থ ছাড়।

গ্রাহকের আস্থার জায়গা থেকে যেনো প্রতিনিয়তই দূরে সরে যাচ্ছে ই-কমার্স ব্যবস্থা। তার ওপর নতুন সঙ্কট তৈরি করেছে পেমেন্ট গেটওয়ে। যেখানে আটকে আছে গ্রাহক ও মার্চেন্টদের কয়েকশ কোটি টাকা।

ভোক্তভোগী একজন বলেন, আমার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান থেকে গেটওয়েতে তালিকাভুক্ত হয়েছে এবং গেটওয়ে কোম্পানী থেকেও আমি এসএমএস পেয়েছি, কিন্তু টাকাটা এখনো আসছে না। আমরা রিফান্ড রিকোয়েস্ট করার অনেকদিন পার হওয়ার পরও সেই রিফান্ড পাচ্ছি না। 

নানা আলোচনা-সমালোচনার পর গেলো ৩০ জুন ই-কমার্সে 'মার্চেন্ট পেমেন্ট সেটেলমেন্ট' নির্দেশনা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। যেখানে বলা হয় পণ্য বুঝে পাওয়ার পরই কোম্পানির ব্যাংক হিসাবে টাকা পাঠাবে গেটওয়ে। কিন্তু পদ্ধতিগত জটিলতায় সে নির্দেশনার বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে অনলাইন প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

ডারাজ বাংলাদেশ লিমিটেডের চিফ করপোরেট অ্যাফেয়ার্স এ এইচ এম হাসিনুল কুদ্দুস রুশো বলেন, গেটওয়েগুলো টাকা ব্লকড করে রাখছে। এটা যেটা করছে সেটা হচ্ছে ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের প্রয়োজনীয়তা বাড়াচ্ছে। যেমন, একটা টাকা আপনার আটকে থাকছে এবং আপনার নতুন করে প্রোডাক্ট কিনতে আবার টাকা লাগছে। 

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ জানায়, পেমেন্ট গেটওয়েতে শুধু কিউকমেরই আটকে আছে প্রায় ৩৯৭ কোটি টাকা। যদিও বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরে অনলাইনে অর্ডারকৃত ৪৯০ কোটি টাকার পণ্যের মধ্যে গেটওয়েতে আছে মাত্র ৪ কোটি টাকা।

এমএফএস ও পেমেট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, পণ্য সরবরাহের নিশ্চয়তা পেতে সময় লাগছে কম বেশি। ফলে দেরি হচ্ছে অর্থছাড়ে।

ফোস্টার পেমেন্টের হেড অব পিআর মুনতাসির আহমেদ বলেন, আমাদেরকে এখন প্রত্যেকদিন প্রত্যেকটি গ্রাহককে ফোন করে ক্রস চেক করে দেখতে হচ্ছে গ্রাহক তার প্রোডাক্ট পেয়েছে কি পায়নি। আর এটা একটি ম্যানুয়াল সিস্টেম। আর ম্যানুয়াল সিস্টেমে একটু সময় লাগবে।

বিকাশের হেড অব কর্পোরেট কমিউনিকেশন্স শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর ডেলিভারি রিপোর্টের ভিত্তিতে কতগুলো সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রতিপালন করেই এমএফএস প্রতিষ্ঠানগুলোকে মার্চেন্ট পেমেন্ট ছাড় করার ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

অর্থছাড় বিলম্বের বিষয়ে মন্তব্য না করলেও, অভিযোগের ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্রের।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, এ রকম যদি কোনও অভিযোগ যদি বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আসে তাহলে বাংলাদেশ ব্যাংক অবশ্যই এটাকে দেখভাল করবে এবং সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। 

পেমেন্ট গেটওয়েতে অর্থ আটকে থাকায় ইতোমধ্যে ই-ক্যাবের কাছে অভিযোগ করেছে ১৬টি প্রতিষ্ঠান।

এএ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর