channel 24

সর্বশেষ

  • প্রথমবার মহাকাশ ঘুরে এলেন চার সাধারণ নভোচারী

  • স্বামীর চাপাতির কোপে গুরুতর আহত স্ত্রী

  • বিচ্ছেদ চেয়ে শ্রাবন্তীর মামলা

  • দেশীয় গাছের ক্ষতি করে পরিবেশ নষ্ট করছে বিদেশি প্রজাতি

  • ব্যাংক কর্মীদের ছাঁটাই বন্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন নির্দেশনা

  • নিজের কিডনি দিয়ে বড় ভাইকে নতুন জীবন দিলেন ছোট ভাই

  • ডিআইজি পার্থ গোপালকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

  • অনিশ্চয়তায় অস্ট্রেলিয়ার পাকিস্তান সফরও

  • নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার আশায় মধ্যবর্তী নির্বাচনে ট্রুডো

  • আবারও ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের বি ক্ষো ভ

  • অতিরিক্ত কাজে বছরে প্রায় ২০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়: গবেষণা

  • ২৫ বছরেও মেলেনি সালমান শাহ'র মৃত্যুর রহস্য

  • যুক্তরাজ্যে ‘ম্যাড কাউ’ রোগ শনাক্ত

  • বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৪৭ লাখ ছাড়ালো

  • রামেকে করোনা উপসর্গে ৪ জনের মৃ'ত্যু

ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় অবিক্রিত ৮ লাখ টন লবণ

ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় অবিক্রিত ৮ লাখ টন লবণ

ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় কক্সবাজারে অবিক্রিত অবস্থায় মাঠেই পড়ে আছে ৮ লাখ টন লবণ। চাষীরা বলছেন, কয়েক বছর ধরে এ অবস্থা চলতে থাকায় বড় ধরণের অনিশ্চয়তায় তারা। আর সংশ্লিষ্টদের দাবি, বিদেশ থেকে আমদানি কমিয়ে দেশীয় চাষীদের ন্যায্য পাওনা নিশ্চিত করার।

দেশে মোট চাহিদার বেশিরভাগ লবন উৎপাদন হয় কক্সবাজার জেলা এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালি উপজেলায়। এরই মধ্যে শেষ হয়েছে চলতি বছরের লবন মৌসুম। নতুন মৌসুম শুরু হবে সামনের নভেম্বরে। 

আরও পড়ুন: কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় তিন শ্রমিকের মৃত্যু

এবারের মৌসুমে লবন উৎপাদন হয়েছে বেশ ভাল। তবে উৎপাদন ভাল হলেও দুশ্চিন্তায় চাষিরা। বলছেন, ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হওয়ায় বেশিরভাগ চাষী মাটিতেই পুতে রেখেছেন লবণ যা ৮ লাখ টনের বেশি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মাঠপর্যায়ের চাষীদের লবণের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হলে, দরকার বিদেশ থেকে আমদানী বন্ধ করা। 

দেশের ২২ লাখ ১৭ হাজার টন চাহিদার মধ্যে চলতি মৌসুমে লবণ উৎপাদন হয় ১৬ লাখ টন। গত বছর অবিক্রিত থেকে যায় ৩ লাখ টনের মত, আমদানী হয়েছে ৩ লাখ ১৬ হাজার টন। 

 

এফএইচ

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় তিন শ্রমিকের মৃত্যু

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর