channel 24

সর্বশেষ

  • লিবিয়া উপকূলে নৌকাডুবি, ৩৩ বাংলাদেশি উদ্ধার

  • ন্যায়বিচার পাওয়ার আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

  • কোয়ারেন্টিন শেষে অনুশীলনে সাকিব-মোস্তাফিজ

  • নরসিংদীর রায়পুরায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ৩

  • করোনাকালেও সোয়া দুই লাখ কোটি টাকার এডিপি!

  • খিলক্ষেত ফ্লাইওভারে ‘বন্দুকযুদ্ধে দুই ছিনতাইকারী’ নিহত

  • বাংলাদেশের ভ্যাক্সিন তৈরিতে কিউবা বা ইরানের মডেল ফলো

  • নেত্রকোনায় বজ্রপাতে ৭ জনের মৃত্যু

  • রোজিনার মুক্তি দাবি সাংবাদিক অধিকার সংগঠন সিপিজের

  • দপ্তর বদল করা হয়েছে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিবের

  • করোনাভাইরাসে দেশে আরও ৩০ মৃত্যু

  • আমলার মামলায় কারাগারে সাংবাদিক রোজিনা

  • রাঙ্গামাটিতে প্রাণহানি রোধে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত প্রশাসনের

  • চট্টগ্রাম বন্দরে বাড়ছে কন্টেইনার খালাসের সংখ্যা

  • বান্দরবানে পাহাড়িদের ৭০ বসতঘর পুড়ে ছাই

করোনায় দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে ভাটা

করোনায় দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে ভাটা

প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর বহু চড়াই-উৎরাইয়ে দেশের অর্থনীতি পেরিয়েছে ১ বছর। শুরুর লকডাউনের ধাক্কা সামলে ফিরেছে গতি। তবে আমদানি কিংবা রপ্তানি কোনো কিছুই ফিরেনি আগের ধারায়। নতুন বিনিয়োগ না হওয়ায় ব্যাংকে জমেছে তারল্যের পাহাড়। কমছে বিদেশি বিনিয়োগ। চাহিদা না থাকায় কারখানাগুলোতে হচ্ছে না পূর্ণ সক্ষমতায় উৎপাদন। বিশ্লেষকদের মতে, অভ্যন্তরীণ অর্থনীতির শ্লথগতি কাটবে না সহসাই।

বহু চড়াই উতরাই পেরিয়ে দেশের অর্থনীতিতে এখন কমছে করোনার প্রকট। কিন্তু প্রশ্ন হল কতটুকু? বাড়ছে কি চাহিদা? হচ্ছে বিনিয়োগ ? ঘুরছে কি অর্থনীতি আগের ধারায় ?

এমন সব প্রশ্নের উত্তর মেলে অর্থনীতির বেশ কিছু সূচক বিশ্লেষনে। এই যেমন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, এ অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে সার্বিক আমদানি কমেছে প্রায় ৭ শতাংশ। তবে ভাবনার কথা হল, এর মধ্যে মূলধনী যন্ত্র আমদানি কমেছে ২৯ শতাংশের বেশি। সবমিলিয়ে এ সময়ে মূলধনী পণ্য আগের চেয়ে কম এসেছে প্রায় ১৭ ভাগ। যে পোশাক শিল্পের ওপর দাঁড়িয়ে রপ্তানি খাত এ ৬ মাসে তাদেরও প্রধান কাচামাল তুলা আমদানি কমেছে ২০ ভাগ, আর বিভিন্ন রকম টেক্সটাইল পণ্য প্রায় ১৬ ভাগ।

অন্যদিকে করোনার শুরুর দিকের ধাক্কা সামলে নিলেও রপ্তানিতে গতি ফিরেনি পুরোপুরি। অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে সার্বিক রপ্তানি কমেছে ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ, যার মধ্যে তৈরি পোশাক থেকেই আয় কমেছে প্রায় ৪ শতাংশ।   

আরো কয়েকটু সূচকেও প্রমান মেলে বিনিয়োগ স্থবিরতার। বিপিডিবির তথ্যে দেখা যায় দেশের কারখানাগুলো পূর্ণ উতপাদনে যেতে না পারায় কমছে বিদ্যুতের ব্যবহার। ২০২০ সালের নভেম্বর ও ডিসেম্বরে বিদ্যুতের সর্বোচ্চ উতপাদন তার আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে কমেছে প্রায় দেড় ও সাড়ে ৪ শতাংশ।  

ব্যবসায়ীরা নতুন বিনিয়োগ না করায় ব্যাংকগুলোতেও জমছে অর্থের পাহাড়। গেল বছরের শুরুতেও যেখানে অতিরিক্ত তারল্য ছিল ১ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকা, বছরের শেষ নাগাদই তা হয়ে পড়ে দ্বিগুণ।

বহুদিন ধরেই ভুগতে থাকা সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগেও ঘুরে দাড়ানোর লক্ষন নেই। অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে যা কমেছে ২২ শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর