channel 24

সর্বশেষ

  • লঙ্কান ঘাটিতে প্রথম আঘাত মিরাজের

  • ঈদকে সামনে রেখে ঝুঁকি নিয়ে দোকান খুলছেন গোপালগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

  • একক দেশের সাথে ভ্যাকসিনের চুক্তি ছিল বোকামি

  • করোনার দুঃসময়ে অসুস্থতার প্রতি মুহূর্ত কাটে অজানা আতঙ্কে

  • বোরোর ফলন ভালো হলেও শ্রমিক সংকটে দুঃশ্চিন্তায় সুনামগঞ্জ ও নওগাঁর কৃষকরা

  • ২৫ এপ্রিল খুলছে দোকানপাট ও শপিংমল

  • করোনায় খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে পথশিশুদের

  • ভারতে ভয়াবহ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি, ভেঙ্গে পড়েছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা

  • ক্যান্ডিতে ৫০০ রানের কোটা পেরিয়েছে বাংলাদেশ

  • নানা সংকটে নাটোর সদর হাসপাতাল, নেই আইসিইউ ও সেন্ট্রাল অক্সিজেন

  • ধর্ষণ মামলার পর আত্মগোপনে বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি

  • চট্টগ্রামে ব্যাংক কর্মকর্তার আত্মহত্যা: বিচার না পাওয়ার শঙ্কায় স্বজনরা

  • মেসির জোড়া গোলে গোল উৎসব কাতালানদের

  • ৩০ এপ্রিল মাঠে ফিরছে দেশের ফুটবল

  • নারায়ণগঞ্জে গ্যাস লিকেজ থেকে আগুনে শিশুসহ দগ্ধ ১১

১ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত এডিপি অনুমোদন

১ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত এডিপি অনুমোদন

বিদেশি উৎস থেকে সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য অনুমোদন দেয়া হলো সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি। মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়। ফলে নতুন আকার দাঁড়াচ্ছে ১ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী, উন্নয়ন খরচে লাগাম টানার নির্দেশ দেন।

বড় বিনিয়োগ আর উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশ নতুন উচ্চতায়। এজন্য প্রতি বছর বরাদ্দও বেড়েছে পাল্লা দিয়ে। কিন্তু, করোনা মহামারীর কারণে কয়েক মাস থেমে থাকে কাজকর্ম। ফলে, খরচ করতে না পারায়, ফেরত দিতে হয় বরাদ্দের টাকা। যেমন, পদ্মা সেতুতে সেই অংক ছিল ২ হাজার ১০০ কোটি।

এমন উদাহরণ ছোট-বড় বহু প্রকল্পের। তাই, অবস্থা বিবেচনায় ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য মূল এডিপিতে থাকা ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৪ কোটি থেকে সাড়ে সাত হাজার কেটে নতুন আকার ঠিক করা হয় ১ লাখ ৯৭ হাজার কোটি। যার ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটিই যোগান দেয়ার লক্ষ্য দেশীয় উৎস থেকে।

সংশোধিত কর্মসূচি অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ রাখা হয়েছে পরিবহন খাতে ৪৯ হাজার কোটির ওপরে। আর ভৌত পরিকল্পনা, শিক্ষা, বিদ্যুতের পর ষষ্ঠ অবস্থানে স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন বরাদ্দ। এদিনের সভায়, পর্যালোচনা করা চলমান প্রকল্পগুলোর সার্বিক অবস্থা। যেখানে চলতি অর্থবছরে শেষ করার লক্ষ্য ধরা হয় ৪৮২টি। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা, গুণগত মান বজায় রেখে সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কারও কাছে হাত পাতা নয়, যে সম্পদ আছে, তা দিয়েই দেশকে গড়ে তুলতে হবে।

সভায়, প্রথম সাত মাসের অগ্রগতি তুলে ধরে আইএমইডি। যাতে বলা হয়, এবারের বাস্তবায়ন হার গেলো পাঁচ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর