channel 24

সর্বশেষ

  • অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে ইউরোপিয়ান সুপার লিগের ভবিষ্যৎ

  • বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দিতে দ্রুত সিদ্ধান্ত চায় চীন

  • ফুরিয়ে আসছে করোনার টিকা, বিকল্প উৎসের খোঁজে সরকার

  • হেফাজত নেতা কোরবান আলী ৭ দিনের রিমান্ডে

  • বাংলাদেশিদের ইউরোপ-আমেরিকা যাবার বাধা কাটলো

  • ঠাকুরগাঁওয়ের শিশু জান্নাত এখন পুরোপুরি সুস্থ

  • এবছর সর্বনিম্ন ফিতরা ৭০ টাকা

  • বিএনপিকে জনগণের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান কাদেরের

  • জয় দিয়ে জিম্বাবুয়ে সিরিজ শুরু পাকিস্তানের

  • ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে আলোয় উজ্জ্বল শান্ত

  • বিদায় মুখ ঢেকে যায় বিজ্ঞাপনের কবি শঙ্খ ঘোষ

  • শান্তর সেঞ্চুরিতে রাঙানো ক্যান্ডি টেস্টের প্রথমদিন

  • জীবিকার তাগিদ বোঝে না করোনা আতঙ্ক, বোঝে না লকডাউন

  • সুপার লিগে ভাঙনের সুর, চুক্তি অনুযায়ী খেলতে বাধ্য- দাবি পেরেজের

  • ক্যারিয়ারের প্রথম শতক তুলে নিলেন শান্ত

ব্যাংক খাতের এক সাহসী যোদ্ধা খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ

ব্যাংক খাতের এক সাহসী যোদ্ধা খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ

ব্যাংকিং খাতের অনিয়মের বিরুদ্ধে সব সময় সরব ছিলেন খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। কথা বলেছেন সততার সাথে। শুধু ব্যাংকিং খাত নয় সামাজিক সাংস্কৃতিক নানা কর্মকাণ্ডের সাথেও জড়িত ছিলেন কীর্তিমান এই ব্যক্তিত্ব।

খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ ব্যাংক খাতের এক সাহসী যোদ্ধা। দেশের ব্যাংকিং খাতের নানা অনিয়ম নিয়ে যখন গাঁ বাঁচিয়ে কথা বলছিলেন, দেশের বেশিরভাগ ব্যাংকার ও অর্থনীতিবিদ। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিলেন, ১৯৪১ সালে গোপালগঞ্জে জন্ম নেয়া এই সাহসী ব্যাংকার।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষা জীবন শেষে ১৯৬৩ সালে তৎকালিন হাবিব ব্যাংকে যোগদানের মধ্যদিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ। ১৯৯৪ থেকে ৯৭ সাল পর্যন্ত এমডির দায়িত্ব পালন করেন, কৃষি, অগ্রণী এবং সোনালী ব্যাংকে। ১৯৯৮ থেকে দুবছর ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর। ২০০০ থেকে পূবালী ব্যাংকের এমডি ছিলেন ৬ বছর।

নিজ উদ্যোগে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইনস্টিটিউ অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট এর প্রথম ফ্যাকাল্টি সদস্য ও পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের প্রথম মহাব্যবস্থাপক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

ব্যাংক ব্যবস্থার অনিয়ম ও সংস্কার নিয়ে শক্ত কথা বলা আর পুঁজিবাজারে ধসের কারণ অনুসন্ধানে করা তদন্তের নেতৃত্ব দিয়েও ছিলেন আলোচনায়।

শুধু ব্যাংকিং খাত নয়, ইব্রাহীম খালেদ জড়িত ছিলেন, সামাজিক-সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও। দায়িত্ব পালন করেছেন, কেন্দ্রীয় কচি-কাঁচার মেলার পরিচালক, নির্বাহী পরিষদের সভাপতি ও ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য হিসেবে। বই লিখেছেন ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনা ও মুক্তিযুদ্ধি বিষয়ে।

ব্যাংকিং ও অর্থনীতি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদকে ২০০৯ সালে 'খান বাহাদুর আহসানউল্লা স্বর্ণপদক' ও ২০১৩ সালে ' খান বাহাদুর নওয়াব আলী চৌধুরী' জাতীয় পুরস্কার দেয়া হয়। এছাড়া ২০১১ সালে বাংলা একাডেমি তাকে সম্মানসূচক ফেলোশিপ দেয়।

ওপারে ভালো থাকুন ব্যাংকিংখাতের বাতিঘর।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর