channel 24

সর্বশেষ

  • জাতিসংঘের মিশনে যাচ্ছেন বাংলাদেশি ৪ নারী বিচারক

  • ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালীর মুক্তির সনদ: এ কে আজাদ

  • শেখ জামালের জয়ে শেষ হলো বিপিএলের প্রথম পর্ব

  • শঙ্কায় জুনের এশিয়া কাপ, ঘরোয়া ক্রিকেট করবে বিসিবি

  • কলকাতায় বিজেপির বিশাল শোডাউন; মমতাকে ব্যঙ্গ মোদির

  • নোয়াখালীতে সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার ১

  • ৭ মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার ঘোষণা নয়: বিএনপি

  • ৭ মাস পর গণভবনের বাইরে প্রধানমন্ত্রী

  • কুষ্টিয়ায় এনআইডি জালিয়াতি: ৫ জনের বিরুদ্ধে ইসির মামলা

  • বান্দরবান সরকারি মহিলা কলেজে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন

  • চট্টগ্রামে নানা আয়োজনে পালিত হল ৭ মার্চ

  • ৭ মার্চের ভাষণই স্বাধীনতার ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রী

  • চট্টগ্রামের নগর পরিকল্পনাবিদ ইঞ্জিনিয়ার আলী আশরাফের মৃত্যু

  • রোজা রেখেও নেয়া যাবে করোনার টিকা

  • পল্লী বিদ্যুৎ বোর্ড ও সমিতিতে ট্রেড ইউনিয়ন নয়: হাইকোর্ট

লোকসানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক অন্যান্য ব্যবসা

লোকসানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক অন্যান্য ব্যবসা

পরিসংখ্যান বলে, দেশের মোট চাহিদার অর্ধেকের বেশি কাগজ ব্যবহার হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাজে। দীর্ঘ সময় এ কার্যক্রম বন্ধ থাকাই নড়েচড়ে বসেছে দেশের কাগজ মিলগুলো। বন্ধ হয়েছে অর্ধশতাধিকের বেশি । একইসাথে স্টেশনারীজ ব্যবসা নেমেছে এক চতুর্থাংশে। আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন্দ্রিক করে জীবিকা নির্বাহ করা ভাসমাস হকারদের ৮০ শতাংশই এখন কর্মহীন। বিশ্লষকদের আশঙ্কা, বড় প্রতিষ্ঠানের সংকোচনের ফলে বিপাকে পরছে এ সংশ্লিষ্ট কর্মসংস্থান।

দেশে রাইটিং ও প্রিন্টিং কাগজের বড় অংশের যোগানদাতা পারটেক্স পাল্প ও পেপার মিলস। বছরে ১ লাখ টন উৎপাদন ক্ষমতা থাকলেও, করোনায় স্কুল, কলেজ বন্ধ থাকায় চাহিদা কমে যায় আশঙ্কাজনক হারে। ফলে, উৎপাদন নামিয়ে আনতে হয়েছে অর্ধেকের নিচে।

বাংলাদেশ পেপার মিলস অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবে, শিক্ষাকেন্দ্রিক কার্যক্রমে বছরে কাগজের চাহিদা প্রায় ৬ লাখ টন। কিন্তু, মহামারিতে তা নেমেছে ২ লাখে। উৎপাদনের বাইরে খাতা তৈরি, বাইন্ডিংসহ অন্যান্য কাজে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর অবস্থাও একই রকম।

করোনার নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে মুদ্রণ শিল্পেও। বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতি জানায়, গাইড ও সাজেশন মিলিয়ে বেসরকারিভাবে বছরে প্রায় ৭০ কোটি পাঠ্যবই ছাপানো হতো। কিন্তু এবার চাহিদা নেই সেসবের। ফলে, গেলো নয় মাসে আনুমানিক ক্ষতি দাঁড়িয়েছে সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা।

বই খাতার বাইরে, স্টেশনারির ব্যবসাও নেমে আসে এক চতুর্থাংশে। এই খাতের বড় প্রতিষ্ঠান আরএফএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন জানান, স্কুল কলেজে স্বাভাবিক অবস্থা না এলে ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব হবে না প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য।

শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে সরাসরি জড়িত ভাসমান হকারদের অবস্থাও শোচনীয়। হকার্স ইউনিয়নের হিসাবে, কাজ হারিয়েছেন অন্তত ৮০ শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর