channel 24

সর্বশেষ

  • পিছিয়ে যেতে পারে বন্ধবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ড কাপ

  • মৌসুমে প্রথমবারের মত ঢাকার বাইরে প্রিমিয়ার লিগ

  • দ্বিতীয় ম্যাচে দল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিপক্ষে শাহরিয়ার নাফীস

  • মুক্তিযুদ্ধে জিয়াউর রহমানের অবদানকে খাটো করে তুলে ধরা হচ্ছে: ফখরুল

  • সিরিজ নিশ্চিতের মিশনে কাল মাঠে নামবে বাংলাদেশ

  • করোনার টিকা সংরক্ষণের জোর প্রস্তুতি চলছে সারা দেশে

  • ভারতকে প্রধানমন্ত্রীর ধন্যবাদ

  • ভারতে সেরাম ইনস্টিটিউটের নির্মাণাধীন ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ৫ জনের মৃত্যু

  • লুটপাটের জন্যই বৃদ্ধাকে নির্মম নির্যাতন, পরিকল্পনায় রেখার স্বামী

  • চসিক নির্বাচন: সেনা মোতায়েনের দাবি, বিএনপির প্রার্থীর

  • উচ্ছেদ অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্র মিরপুর

  • ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার

  • বিনাদোষে ৫ বছর জেল খাটার পর মুক্তি পেল আরমান

  • ফেসবুকে পরিচয়, তারপর জিম্মি করে মুক্তিপণ দাবি

  • নীলফামারীতে ধর্ষণের দায়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড

ঋণের নামে উত্তরা ফাইন্যান্সে হরিলুট, অবৈধভাবে সরিয়েছে ১২০১ কোটি টাকা

ঋণের নামে উত্তরা ফাইন্যান্সে হরিলুট, অবৈধভাবে সরিয়েছে ১২০১ কোটি টাকা

ঋণের নামে উত্তরা ফাইন্যান্সে রীতিমত হরিলুটের প্রমাণ পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রতিষ্ঠানটি থেকে অবৈধভাবে সরানো হয়েছে ১২০১ কোটি টাকা। পরিচালকরা তো বটেই, টাকা সরানোয় পিছিয়ে নেই ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকও। যদিও, কোনো অনিয়মই ঘটেনি বলে দাবি ব্যবস্থাপনা পরিচালকের।

অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান উত্তরা ফাইন্যান্স। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটিতে ব্যাপক হরিলুটের তথ্য পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শকরা।

পরিদর্শনে দেখা গেছে, উত্তরা মটরস ও উত্তরা গ্রুপের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ঋণের নামে উত্তরা ফাইন্যান্স থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন ৩৩৫ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। পরিদর্শন প্রতিবেদনে বলা হয়,  ১১৮টি অনুমোদন বিহীন উত্তোলনের মাধ্যমে উত্তরা মটরর্স লি ও উত্তরা গ্রুপের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের নামে শর্ট টার্ম লোন রিপেমেন্ট এবং লং টার্ম লোন দেখিয়ে এ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

লুটপাটে পিছিয়ে নেই পর্ষদ চেয়ারম্যান, পরিচালক এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকও। প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান রাশেদুল হাসানকে প্রাপ্যতা বহির্ভূত বিভিন্ন খাতে ৭৯৯ কোটি ৩৬ লাখ টাকা দেয়ার প্রমাণ পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বিধিবহির্ভূতভাবে ব্যবস্থাপনা পরিচালকও নিয়েছে ২৪ কোটি ২২ লাখ টাকা। আর এক পরিচালক মুজিবুর রহমানের কাছ থেকে ২৩৬ কোটি টাকার আমানত সংগ্রহ দেখানো হলেও তা প্রতিষ্ঠানটির হিসাবে জমা হওয়ার কোন প্রমাণ দেখাতে পরেনি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। এতসব অনিয়মের পরও তেমন কিছুই ঘটেনি বলে জানান ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম শামসুল আরেফিন।

প্রতিষ্ঠান গেল দুই বছরের আর্থিক বিবরণীতে ব্যাপক ভুজভাজি পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শকরা। তদন্তে দেখা যায়, সহযোগী প্রতিষ্ঠান উত্তরা ফাইন্যান্স এন্ড ক্যাপিট্যাল ম্যানেজমেন্টকে ২৪৮ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হলেও শেয়ারে বিনিয়োগের তথ্য নেই। এই খাতের বাকি ৩৫০ কোটি টাকা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালকদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ছাড় করা হয়েছে। এমনকি, অগ্রীম ও শেয়ারে ১২০০ কোটি টাকার বিনিয়োগ করা হলেও আর্থিক বিররণীতে উল্লেখ আছে ৩১১ কোটি টাকা। সে হিসেবে বিনিয়োগের হদিস নেই ৮৯০ কোটি টাকার।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দীর্ঘদিনের এসব অনিয়ম ধরা পড়েনি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মনিটরিং দুর্বলতার কারণেই।

আর একাউন্টিং জাগলারি বা হিসাব ভুজভাজির প্রমাণ পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির সব হিসাব ফরেনসিক অডিটের পরামর্শ দিলেন আইসিএবির সাবেক সহসভাপতি সাব্বির আহমেদ।

সব মিলিয়ে আরো একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের আমানত ফেরত না পাওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন বিশ্লেষকরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর