channel 24

সর্বশেষ

  • ব্রহ্মপুত্র নদে সুপার ড্যাম দিচ্ছে চীন; বাংলাদেশ-ভারতে তীব্র পানি সংকটের শঙ্কা

  • রংপুরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে নির্যাতিত শিশুকে উদ্ধার করলো পুলিশ

  • ফরিদপুরে আলুর বীজ বিক্রি হচ্ছে খাবার আলু হিসেবে

  • ভোলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যু

  • শারীরিক কর্মক্ষমতা বাড়ায় মুরগীর মাংস

  • পুত্রবধূর যৌতুক মামলার আসামি শতবর্ষী বৃদ্ধ এখন হাইকোর্টের বারান্দায়

  • ৫ম দিনের মতো স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি

  • খুলনায় ভাতিজাকে খুনের দায়ে চাচা পাঁচদিনের রিমান্ডে

  • রংপুরে শিশু ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় এক আসামির মৃত্যুদণ্ড

  • মাস্ক যেন ফ্যাশন, মুখে না থেকে ঝুলছে নানা জায়গায়

  • ভাস্কর্য ইস্যুতে উত্তপ্ত রাজপথ; বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন-সমাবেশ

  • ভাস্কর্য ইস্যুতে মাঠে ৬০ পেশাজীবী সংগঠন, বাবুনগরী-মামুনুলকে গ্রেপ্তার দাবি

  • কম বয়সে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেবার রেকর্ড রাব্বির

  • গ্লোবের ভ্যাকসিন ট্রায়ালে সহায়তা করবে আইইডিসিআর

  • চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশে যুক্ত হলো কার পেট্রোলিং

করোনায় সংকুচিত বিশ্ব অর্থনীতির উন্নয়নে পদ প্রদর্শক চীন

করোনায় সংকুচিত বিশ্ব অর্থনীতির উন্নয়নে পদ প্রদর্শক চীন

করোনায় সংকুচিত বিশ্ব অর্থনীতির উন্নয়নে পদ প্রদর্শক হয়ে থাকবে চীন। দ্রুততর সময়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে দেশটির উৎপাদনসহ অর্থনীতির সব ক্ষেত্র। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে দেশটির বৈদেশিক বাণিজ্য ছাড়িয়েছে ৩ লাখ ৪৩ হাজার কোটি মার্কিন ডলার। আইএমএফ বলছে, চলতি বছরে অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির মুখ দেখবে শুধু চীন। বিশ্লেষকরা বলছেন, ব্যবসায়িক পুনরুদ্ধার মূল কারণ এই ঘুরে দাড়াঁনোর পিছনে।

করোনা সংক্রমণের কারণে অর্থনীতিতে প্রথম আঘাত আসে চীনে। চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশটির বৈদেশিক বাণিজ্য সংকুচিত হয় ২ শতাংশের বেশি।

প্রথম আঘাতের মতোই অর্থনীতিতে প্রথম ইতিবাচক ধারাও দেখা গেছে, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশটিতে। চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে যেখানে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়, ৩ দশমিক দুই শতাংশ। জুলাই-সেপ্টেম্বর মেয়াদে ২ শতাংশ বেড়ে যা দাঁড়ায় ৫ দশমিক দুই শতাংশে। বছরের শেষ প্রান্তিকেও ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকবে বলে পূর্বাভাস, বিভিন্ন অর্থনৈতিক সংস্থার।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল- আইএমএফ বলছে, চলতি বছরের শেষে শুধু একটি দেশের অর্থনীতিতেই ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখা যাবে; আর সেটি হবে চীন। ২০২০ সালে এশিয়ার এই পরাশক্তির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর মুখপাত্র লিউ আইহুয়া বলেন, চীনের পুনরুদ্ধারের গতি বেড়েছে। শিল্পখাতের উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়েছে বিদেশী বিনিয়োগ। স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী এবং ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য রফতানি করেই শক্ত অবস্থানে ফিরেছে চীনা অর্থনীতি।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সফলতার কারণেই অল্প সময়ের মধ্যে ঘুরে দাঁড়িয়েছে চীনের অর্থনীতি। চাঙ্গাভাব ফিরেছে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন, পর্যটনসহ অর্থনীতির সব খাতেই।

মহামারির ৮ মাসে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পুরো জাতি। সে সময়ের সংকট থেকে উত্তরণে দারুণ ভূমিকা রেখেছে জনসাধারণ। খুব অল্প সময়ের মধ্যে উৎপাদনে ফিরেছেন উদ্যোক্তারা। একই সঙ্গে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমায় অল্প সময়ের মধ্যে চাঙ্গা ভাব ফিরেছে পর্যটন খাতেও। শুধু জাতীয় দিবসের ছুটিকে কেন্দ্র করে অভ্যন্তরীণ পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ভিড় করেন অন্তত ৬৩ লাখ ৭০ হাজার মানুষ।

করোনার ক্ষতি কাটাতে আমদানি-রপ্তানি শুল্কে ছাড় দেয় শি চিন পিং প্রশাসন। এমন পদক্ষেপে তৃতীয় প্রান্তিকে বেড়েছে চীনের বৈদেশিক বাণিজ্য। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর সবশেষ হিসাবে দেখানো হয়েছে, বছর ব্যবধানে সেপ্টেম্বরে রপ্তানি ও আমদানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে যথাক্রমে ৯ দশমিক ৯ এবং ১৩ দশমিক দুই শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর