channel 24

সর্বশেষ

  • বান্দরবানে পর্যটকবাহী গাড়িতে এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণে অন্তত দুজন আহত হয়েছে।

  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে যেসব এক্সারসাইজে

  • মায়ের দেনা শোধে 'বক্সিং রিংয়ে' ৯ বছরের শিশু টাটা

  • ১৬৫০ কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগ: আপিল শুনানি ২০ সেপ্টেম্বর

  • কক্সবাজার সৈকতে দুই কলেজ শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃ'ত্যু

  • দিনাজপুরে ট্রাকের ধাক্কায় কাস্টমস কর্মকর্তা নিহত

  • পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পানের উপকারিতা

  • তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়

  • পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ

  • কুড়িগ্রামে করোনাকালে বেড়েছে বাল্যবিবাহ

  • ইভ্যালিতে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকের টাকার সন্ধানে পুলিশ

  • এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা নিয়ন্ত্রণে শিগগিরই ভ্যাকসিন নীতিমালা: মন্ত্রী

  • তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে ঘরোয়া উপায়

  • গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী পাতা খেলা

  • 'সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি হুমকি'

পোশাক কারখানাগুলোর মোট রপ্তানির ৪৯ শতাংশই পিপিই

পোশাক কারখানাগুলোর মোট রপ্তানির ৪৯ শতাংশই পিপিই

ব্যাপক চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে তৈরি পোশাক কারখানাগুলো ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ও মাস্ক উৎপাদন বাড়িয়েছে কয়েক গুণ। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা জানায়, জানুয়ারি-জুন মেয়াদে বিশ্বজুড়ে পোশাক খাতে মোট রপ্তানির ৪৯ শতাংশই ছিলো পিপিই। একই সময় মাস্কের রপ্তানি বাণিজ্য ছাড়িয়েছে ৭ হাজার কোটি ডলার। এসব পণ্যের অন্তত ৫৭ শতাংশই উৎপাদন ও রপ্তানি করছে চীন।

করোনায় বদলে গেছে বিশ্ব বাণিজ্যের ধরন।

পালটে যাওয়া হিসাব নিকাশের সমীকরণ মেলাতে না পেরে এখনো ধুকছে বৈশ্বিক উৎপাদন ও রপ্তানি। কৃষি খাত কিছুটা সচল থাকলেও স্থবির শিল্পোৎপাদন। ধস পর্যটন খাতে। যা নিয়ে দুশ্চিন্তায় বিশ্ব মোড়লরা। তাইতো, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সাম্প্রতিক সম্মেলনে ঘুরে-ফিরেই উঠে আসে বিশ্বজুড়ে করোনার অর্থনৈতিক প্রভাব।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ কোলম্যান নি বলেন, করোনার কারণে সব দেশেরই উৎপাদন ও রপ্তানি কমেছে। এশিয়া অঞ্চলের রপ্তানি কমেছে ৯ শতাংশ। বছর ব্যবধানে শুধু চীনের রপ্তানি কমেছে ১ শতাংশ।

এদিকে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ বারবারা ডি'আন্দ্রেয়া আদ্রিন বলছেন, করোনার প্রভাবে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ বন্ধ থাকায় স্থবির সব দেশের পর্যটন খাত। ফলে বাধাগ্রস্ত হয়, অনুন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রমও।

পরিবর্তিত এমন পরিস্থিতি মানিয়ে নিতে উৎপাদনে বৈচিত্র আনে তৈরি পোশাক শিল্প। হঠাৎই প্রয়োজনীয় পোশাকের তালিকায় জায়গা করে নেয়, ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সরঞ্জাম- পিপিই। বছর ব্যবধানে যার চাহিদা বেড়েছে কয়েকগুণ।

তৈরি পোশাকের মতোই ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সরঞ্জাম উৎপাদন ও রপ্তানিতেও নেতৃত্বে এশিয়া। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা জানায়, বিশ্বব্যাপী এ পণ্যের মোট চাহিদার একটা বড় অংশেরই যোগান দিচ্ছে চীন।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ বারবারা ডি'আন্দ্রেয়া আদ্রিন বলছেন, চলতি বছরের প্রথমার্ধ্বে পোশাক খাতে মোট রপ্তানির অন্তত ৪৯ শতাংশই ছিলো ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সরঞ্জাম। যার মোট রপ্তানি ছিলো প্রায় ১০ হাজার কোটি ডলার। আর শুধু মাস্ক রপ্তানি বাণিজ্য হয়েছে, অন্তত ৭ হাজার ১শ কোটি ডলারের; বছর ব্যবধানে যা বেড়েছে ৮৭ শতাংশ। এসব পণ্যের অন্তত ৫৭ শতাংশই উৎপাদন করছে চীন।

সম্মেলনে, বাড়তে থাকা চাহিদা বিবেচনায় পিপিই ও মাস্কের উৎপাদন আরো বাড়ানোর পরামর্শ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার। একইসাথে সব দেশকে এর রপ্তানি প্রক্রিয়া সহজ করার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর